আজ বুধবার,২৪শে জানুয়ারি, ২০১৮ ইং,১১ই মাঘ, ১৪২৪ বঙ্গাব্দ, সময়: সকাল ৭:৩৩
  • চাকরিতে প্রবেশের বয়স ৩৫ করার দাবিতে ৫৪ জেলায় কর্মসূচি
  • ‘আল্লাহর বিচার আছে, এবার খালেদা জিয়াও জেলে যাবেন’
  • ‘খালেদাকেও কারাগারের ফ্লোরে কম্বল, বালিশ নিয়ে থাকতে হবে’
  • রাউজানে খেলার মাঠ উন্মুক্ত করলেন ইউএনও
  • বরগুনায় এক গৃহবধুকে মুখ বেধে ধর্ষন
  • জ্বাল নোট সহ জৈন্তাপুরে ১ জন আটক
  • বানারীপাড়ায় সাংবাদিক জুয়েল শ্রেষ্ঠ স্কাউট শিক্ষক নির্বাচিত

আন্তর্জাতিক অঙ্গনেও সংকটে পড়তে পারে পাকিস্তান


আন্তর্জাতিক ডেস্কঃ পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী হিসেবে নওয়াজ শরিফকে আদালতে অযোগ্য ঘোষণা করায় অভ্যন্তরীণ অস্থিতিশীল পরিস্থিতির কারণে দেশটির পররাষ্ট্রনীতির ওপরেও এর প্রভাব পড়বে। পাকিস্তানের প্রতিবেশী নীতি ছাড়াও যুক্তরাষ্ট্র, চীন ও মধ্যপ্রাচ্য নীতির ক্ষেত্রেও এর প্রভাব পড়তে পারে বলে মনে করেন বিশেষজ্ঞরা।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে ভারতে বাংলাদেশের রাষ্ট্রদূত টি. কে হায়দার বলেন, ‘এ ঘটনায় পাকিস্তানের ভাবমূর্তি ক্ষুণ্ন হয়েছে।’

প্রবীণ এই কূটনীতিক মনে করেন, ‘অভ্যন্তরীণ অস্থিতিশীল পরিস্থিতির কারণে দেশটি তার প্রতিবেশী ভারতের থেকে বেশি ভঙ্গুর বলে প্রতীয়মান হবে।’

বর্তমানে পাকিস্তানের সবচেয়ে বড় বন্ধু চীন এবং তার দীর্ঘদিনের মিত্র যুক্তরাষ্ট্রের সঙ্গে সন্ত্রাসবাদ দমন নীতিতে কিছুটা মতদ্বৈততা থাকার কারণে সম্পর্কটি শীতল না হলেও আগের মতো উষ্ণতা আর নেই। মধ্যপ্রাচ্যে সৌদি আরব ও ইরান দ্বন্দ্বের কারণে পাকিস্তান কিছুটা বিব্রতকর অবস্থার মধ্যে আছে।

কূটনীতিক টি. কে হায়দার বলেন, ‘এ ধরনের পরিস্থিতিতে ভারতসহ দক্ষিণ এশিয়ার সবার সঙ্গে সম্পর্ক এগিয়ে নিয়ে যাওয়া, চীন ও যুক্তরাষ্ট্রের মধ্যে একটি ভারসাম্য সম্পর্ক বজায় রাখা এবং সৌদি আরব ও  ইরান- এদের কাউকে না রাগিয়ে মধ্যপ্রাচ্যের সংকটে না জড়ানো, পাকিস্তানের টালমাটাল পরিস্থিতিতে এগুলো করা একটি বড় চ্যালেঞ্জ ।’

তবে তিনি মনে করেন, পাকিস্তান মুসলিম লীগ (নওয়াজ) দলটি এখনও সংসদে সংখ্যাগরিষ্ঠ এবং নওয়াজ শরীফের ভাই শাহবাজ শরিফ আগামী প্রধানমন্ত্রী হবেন বলে আশা করা হচ্ছে।

এ অবস্থায় প্রথমদিকে বিভিন্ন বিরোধী শক্তি যেমন আর্মি ও অন্যান্য শক্তির মধ্যে একটি ভারসাম্য স্থাপনের জন্য নতুন প্রধানমন্ত্রীকে কিছুটা বেগ পেতে হবে। তবে পরবর্তীতে নওয়াজ শরিফের বর্তমান নীতিতেই দেশ চলবে বলে মনে করেন তিনি।

একই ধরনের মনোভাব প্রকাশ করে পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের দক্ষিণ এশিয়া অনুবিভাগের সাবেক মহাপরিচালক ও যুক্তরাষ্ট্রে বাংলাদেশের রাষ্ট্রদূত হুমায়ুন কবির বলেন, ‘নওয়াজ শরিফ চলে গেলেও তার দল ক্ষমতায় এবং তারা সংসদে সংখ্যাগরিষ্ঠ।’

তিনি বলেন, ‘নওয়াজ শরিফ দলে তার পরিবারের নিয়ন্ত্রণ রাখার জন্য তার ভাইকে পরবর্তী প্রধানমন্ত্রী করতে চান।’

নওয়াজ শরিফকে কোনও পাবলিক অফিসে কাজ করার অযোগ্য ঘোষণা করা হলেও পর্দার অন্তরালে থেকে তার কাজ করার যথেষ্ট সুযোগ আছে বলে মনে করেন এই দক্ষ কূটনীতিক।

তিনি বলেন, ‘যতক্ষণ পর্যন্ত না নওয়াজের বিরুদ্ধে ক্রিমিনাল চার্জ আনা হচ্ছে এবং সেটি প্রমাণিত হচ্ছে, ততক্ষণ পর্যন্ত নওয়াজ জণগণের সমর্থন পাবেন বলে মনে হয়।’

দলের মধ্যে বিভিন্ন কর্মকাণ্ডে সম্পৃক্ত থেকে রাজনৈতিক কর্তৃত্ব বজায় রাখতে নওয়াজের এখনও কোনও অসুবিধা নেই। যতক্ষণ পর্যন্ত তিনি জনগণের সমর্থন পাবেন, ততক্ষণ পর্যন্ত তিনি নিরাপদ।



samakalnews24.com এর প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

আন্তর্জাতিক বিভাগের সর্বোচ্চ পঠিত সংবাদ