আজ শনিবার,২২শে সেপ্টেম্বর, ২০১৮ ইং,৭ই আশ্বিন, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ, সময়: রাত ৪:১২
  • মাঝ বয়সী নারীদের প্রতি যুবকরা কেন আকৃষ্ট হয়?
  • বিয়ের আগে যেসব পরীক্ষা করা জরুরী
  • বেনাপোল ঘিবা সীমান্তে পিস্তল,গুলি, ম্যাগাজিন ও গাঁজাসহ আটক-১
  • টাঙ্গাইলের মির্জাপুরে মিথ্যা তথ্য দিয়ে ছাত্র-ছাত্রীদের প্রখর রোদে দাঁড় করিয়ে মানব বন্ধনের প্রতিবাদে সংবাদ সম্মেলন
  • বঙ্গবন্ধু গোল্ডকাপ ফুটবল টুর্ণামেন্টের ফাইনালে চ্যাম্পিয়ন ঠাকুরগাঁও পৌরসভা
  • সরে দাঁড়িয়েছেন বুবলী, শাকিবের চাই নতুন নায়িকা!
  • ফিচার লেখক সম্মেলন ২০১৮ সম্পন্ন

নিষিদ্ধ হলেন কাগিসো রাবাদা

খেলাধুলা ডেস্কঃ এলিজাবেথে অস্ট্রেলিয়া ও দক্ষিণ আফ্রিকার মধ্যে ব্যাট-বলের উত্তাপ ছড়িয়ে পড়ছে পুরো মাঠেই। কখনো মাঠের বাইরে। প্রথম টেস্টে অসি ব্যাটসম্যান ডেভিড ওয়ার্নারের সাথে প্রোটিয়া ডি ককের বাক-বিতণ্ডা। ফলাফল ওর্য়ানারের জরিমানা ও ডিমেরিট পয়েন্টযুক্ত। আর দ্বিতীয় টেস্টে দক্ষিণ আফ্রিকার বিধ্বংসী বোলার কাগিসো রাবাদার আক্রমণাত্মক উদযাপনের ফলাফল দুই ম্যাচের নিষেধাজ্ঞা।

দ্বিতীয় টেস্টে ১১ উইকেট শিকার করেছেন রাবাদা। প্রথম ইনিংসে নিয়েছিলেন পাঁচটি উইকেট। সেদিন তার প্রথম শিকার ছিলেন অস্ট্রেলিয়ার অধিনায়ক স্টিভেন স্মিথ। তাকে সাজঘরে ফেরানোর সময় রাবাদার উদযাপন ছিল খুবই দৃষ্টিকটু। স্মিথের মুখের সামনে এসে বার বার আগ্রাসী উদযাপন করেন এই প্রোটিয়া পেসার। শুধু তা-ই নয়, ক্রিজ ছাড়ার সময় স্মিথের গায়ে জোরে ধাক্কা লাগে তার। সাথে সাথেই ফিরে তাকান স্মিথ।

পুরো ঘটনায় রাবাদা এতটাই আক্রমণাত্মক ছিলেন যে, তার শাস্তি প্রায় নিশ্চিত ছিল। সেটাই হয়েছে। সোমবার টেস্ট শেষ হওয়ার পরই আইসিসি ঘোষণা দেয়, পরের দুটি টেস্টে নিষিদ্ধ রাবাদা।

শাস্তি ঘোষণা করেন ম্যাচ রেফারি জেফ ক্রো বলেন, ‘আমার মনে হয় রাবাদার আচরণ ঠিক ছিল না। তিনি ইচ্ছে করলে ধাক্কা এড়াতে পারতেন। আমি এমন কোনো প্রমাণ পাইনি যে এটা অনিচ্ছাকৃত ছিল।’

অপরদিকে শাস্তি মেনে নিয়ে রাবাদা বলেছেন, ‘আমি দলের ক্ষতি করছি, নিজেরও ক্ষতি করছি। এসব থামাতেই হবে। আমি বারবার নিজের দলকে ডুবিয়ে দিতে চাই না।’

তবে এই সিদ্ধান্তকে মেনে নিতে পারছেন না দক্ষিণ আফ্রিকার অধিনায়ক ফাফ ডু প্লেসিস। বলেন, ‘ডেভিড ওয়ার্নার যদি কুইন্টন ডি ককের সাথে ঝামেলা করে নিষিদ্ধ না হন, তা হলে রাবাদাকে কেন হবে?’

এই সিরিজের দুটি টেস্ট এখনো বাকি। দুই দলের খেলোয়াড়দের এই দ্বন্দ্ব পরে আরো উত্তেজনা ছড়ায় কিনা তা-ই এখন দেখার বিষয়।

ডি ককের সাথে দ্বন্দ্ব : মুখ খুললেন ওয়ার্নার

প্রতিপক্ষকে ঘায়েল করতে মাঠে স্লেজিং হওয়াটা এখন অস্বাভাবিক কিছু নয়। তবে মাত্রার বাইরে গেলে সেটা কখনো গ্রহণ যোগ্য নয়। অপরাধের সামিল। এর শাস্তি ম্যাচ ফি কর্তন আর ডিমেরিট পয়েন্ট যুক্ত। এই দুই শাস্তিই পেলেন অস্ট্রেলিয়ার হার্ডহিটার ডেভিড ওয়ার্নার। আর স্লেজিং যিনি করলেন সেই প্রোটিয়া ব্যাটসম্যান কুইন্টন ডি ককের কোনো শাস্তি হয়নি। দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষে চলমান টেস্ট সিরিজে এই প্রোটিয়া ব্যাটসম্যানের আচরণে ক্ষুদ্ধ হয়ে তেড়ে গিয়েছিলেন ওয়ার্নার। কেন এমনটা করেছিলেন এই অসি ক্রিকেটার? সানডে মর্নিং হেরাল্ডকে এক সাক্ষাৎকারে জানিয়েছেন সে কথা।

প্রোটিয়াদের বিপক্ষে প্রথম টেস্টের চতুর্থ দিনের চা বিরতির সময় যখন মাঠ থেকে ড্রেসিংরুমে ফিরছিলেন দুই দলের ক্রিকেটার। তখন সিঁড়িতে ডি ককের ওপর তেড়ে যান ওয়ার্নার। সেই ঘটনা আবার সিসিটিভিতে ধরা পড়ে। পরে সেটি ভাইরাল হয়ে যায়। ওয়ার্নার-ডি ককের বিবাদের ফুটেজটি প্রথম প্রকাশ করে দক্ষিণ আফ্রিকার আউটলেট ‘ইন্ডিপেডেন্ট মিডিয়া।’

তাতে দেখা যায়, সিঁড়িতে ওর্য়ানারকে ধরে রেখেছেন কয়েকজন ক্রিকেটার। আর তিনি বেশ আক্রমণাত্মকভাবেই বার বার ডি কককে শাসাচ্ছিলেন। তাকে স্বাভাবিক করতে অস্ট্রেলিয়া দলের অন্যান্য সতীর্থরা চেষ্টা করছিলেন। উসমান খাজা, টিম পাইনরা প্রথমে চেষ্টা করেও ব্যর্থ হন। পরে দলপতি স্টিভ স্মিথের সাথে আবারো খাজা এসে ওয়ার্নারকে টানতে টানতে ড্রেসিংরুমে নিয়ে যান। এ সময় শান্ত মেজাজেই ওয়ার্নারের কথার জবাব দিচ্ছিলেন ডি কক।

এই ঘটনার তদন্ত শেষে বুধবার রাতে ওয়ার্নারকে ম্যাচ ফি’র ৭৫ শতাংশ এবং তিনটি ডিমেরিট পয়েন্ট দিয়েছে আইসিসি। আর মাত্র একটি ডিমেরিট পয়েন্ট পেলেই একটি টেস্ট বা দুটি ওয়ানডে নিষিদ্ধ হবেন ওয়ার্নার। তবে শাস্তি হয়নি ডি ককের। তার বিপক্ষে লেভেল ১-এর অপরাধ আনা হয়েছে।

কি কারণে এতো ক্ষেপে গিয়েছিলেন ‘নিপাট ভদ্রলোক’ বলে পরিচিত ডেভিড ওয়ার্নার?

প্রথমবারের মতো এই ঘটনা নিয়ে মুখ খুলেছেন তিনি। সানডে মর্নিং হেরাল্ডকে জানিয়েছেন, তার স্ত্রী ক্যান্ডিসকে নিয়ে বাজে মন্তব্য করেছিলেন ডি কক। তবে কী মন্তব্য করেছেন তা বলেননি।

ওর্য়ানারের ভাষ্য, ‘খুবই বাজে কাজ করেছে সে। কখনো কোনো নারী, বিশেষ করে কারো স্ত্রী, অথবা কোনো খেলোয়াড়ের স্ত্রী সম্পর্কে এমন কথা বলা ঠিক নয়।’

অস্ট্রেলিয়ার এই সহ-অধিনায়ক বলেন, ‘আপনারা এই ব্যাপারটা সবাই জানেন যে, মাঠে প্রতিপক্ষ নানা কথা বলে আমি এই সবে অভ্যস্ত। তখনো কান দেই না। কিন্তু কেউ যদি আমার ব্যক্তিগত ব্যাপার নিয়ে, আমার স্ত্রীকে নিয়ে অথবা সাধারণ কোনো মেয়েকে নিয়েও কেউ বাজে মন্তব্য করে আমি সহ্য করতে পারি না- যা আপনারা ইতোমধ্যে দেখে ফেলেছেন। আমি বিশ্বাসই করতে পারি না- কীভাবে একজন নারী সম্পর্কে এমন মন্তব্য করা হলো। এবং যেমনটা বলেছি- আমার পরিবার নিয়ে কেউ কিছু বললে ছেড়ে কথা বলি না, বলবও না।’

এদিকে ভিডিও ফুটেজ দেখে সবারই ধারণা, সতীর্থরা না থাকলে হয়ত ডি ককের সাথে হাতাহাতি হয়ে যেত ওর্য়ানারের। এমনটা অবশ্য ভাবছেন না তিনি। বলেন, ‘না, না এমনটা হতো না। আমি শুধু তাকে কথাগুলো জোরে বলতে বলেছিলাম। আসরে দিনশেষে আমরা মানুষ। তুমি যদি কাউকে কিছু বলতে চাও, তো চোখে চোখ রেখে বলা উচিত।’

ডিমেরিট পয়েন্ট আর ম্যাচ ফি কর্তনে এই দ্বন্দ্বের যে সমাপ্তি হবে না তা অনুমেয়। এই সবের মধ্যেই আগামীকাল শুরু হচ্ছে দ্বিতীয় টেস্ট। পোর্ট এলিজাবেথে বাংলাদেশ সময় দুপুর ২টায় টেস্টটি শুরু হবে। প্রথম টেস্ট অস্ট্রেলিয়া জিতে নিয়ে এগিয়ে আছে। কাল হয়ত লিডে থাকতে চাইবে তারা। অপরদিকে সমতায় ফিরতে চাইবে দক্ষিণ আফ্রিকা।


samakalnews24.com এর প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

খেলাধুলা বিভাগের সর্বোচ্চ পঠিত সংবাদ