আজ বুধবার,২৪শে জানুয়ারি, ২০১৮ ইং,১১ই মাঘ, ১৪২৪ বঙ্গাব্দ, সময়: সকাল ৭:৩৬
  • চাকরিতে প্রবেশের বয়স ৩৫ করার দাবিতে ৫৪ জেলায় কর্মসূচি
  • ‘আল্লাহর বিচার আছে, এবার খালেদা জিয়াও জেলে যাবেন’
  • ‘খালেদাকেও কারাগারের ফ্লোরে কম্বল, বালিশ নিয়ে থাকতে হবে’
  • রাউজানে খেলার মাঠ উন্মুক্ত করলেন ইউএনও
  • বরগুনায় এক গৃহবধুকে মুখ বেধে ধর্ষন
  • জ্বাল নোট সহ জৈন্তাপুরে ১ জন আটক
  • বানারীপাড়ায় সাংবাদিক জুয়েল শ্রেষ্ঠ স্কাউট শিক্ষক নির্বাচিত

পাথরঘাটা উপজেলা চেয়ারম্যান ও ডাক্তারের বিরুদ্ধে কোটি টাকা ঘুষের লেনদেনের অভিযোগ

অভিযোগ

অভিযোগ

জাহিদুল ইসলাম মেহেদী,বরগুনা অফিসঃ

কাজ নেই, ভাতা নেই শীর্ষক একটি প্রকল্পের আওতায় পাথরঘাটা উপজেলা পরিবার-পরিকল্পনা অধিদপ্তরে কর্মী নিয়োগে পাথরঘাটা উপজেলা যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক ও উপজেলা চেয়ারম্যান মো. রফিকুল ইসলাম রিপন এবং পাথরঘাটা উপজেলা পরিবার-পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. বিজলী বালা মিত্রের বিরুদ্ধে ঘুষ দুর্নীতি ও অনিয়মের মাধ্যমে প্রায় পৌনে দুই কোটি টাকা লেনদেনের লিখিত অভিযোগ পাওয়া গেছে।

রোববার বরগুনা সাংবাদিক ইউনিয়নে বেলা ১১টার পাথরঘাটায় চাকরী বঞ্চিতদের পক্ষে পাথরঘাটা সদর ইউনিয়ন যুবলীগের সভাপতি ফাইজুর রহমান ফিরোজ সাংবাদিক সম্মেলন করে লিখিত অভিযোগ করে বলেন, ৬ নভেম্বর নুন্যতম অষ্টম শ্রেণি শিক্ষাগত যোগ্যতা উল্লেখ করে একটি জাতীয় দৈনিকে উপজেলার ৭টি ইউনিয়নে ও পৌরসভায় ইউনিট ভিত্তিক ৬১ জন পেইড ভলান্টিয়ার (স্বেচ্ছা সেবক) পদে নিয়োগের বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করে পাথরঘাটা উপজেলা পরিবার-পরিকল্পনা অধিদপ্তর।

এ মর্মে চার সদস্যের একটি নিয়োগ বোর্ড গঠন করা হয়। নিয়োগ বোর্ডের সদস্যরা হলো, পাথরঘাটা উপজেলা চেয়ারম্যান ও যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক মো. রফিকুল ইসলাম রিপন আহবায়ক, পাথরঘাটা উপজেলা পরিবার-পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. বিজলী বালা মিত্র সদস্য সচিব, উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো. হুমায়ূন কবির, সদস্য ও উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের ডাক্তার মাসুমুল হক।

নিয়োগ বোর্ড ২২ ও ২৩ নভেম্বর উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যানের কার্যালয়ে রাত ১২ টা পর্যন্ত মৌখিক পরীক্ষা নেয়। লিখিত অভিযোগে ওই যুবলীগ নেতা আরও উল্লেখ করেন, নিয়োগের শর্ত অমান্য করে পরীক্ষায় উত্তীর্ণ না হওয়া, দুই সন্তানের অধিক সন্তান থাকা, ৩০ বছরের বেশি বয়সীদের এবং একই পরিবারে একাধিক ব্যক্তিকে ৩০ থেকে ৪০ হাজার টাকা করে ঘুষের বিনিময় নিয়োগ দেয়া হয়েছে।

এতে প্রায় পৌনে দুই কোটি টাকা উপজেলা চেয়ারম্যান মো. রফিকুল ইসলাম রিপন ও উপজেলা পরিবার-পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. বিজলী বালা মিত্র ঘুষ লেনদেন করেছেন। চাকরী বঞ্চিত শামসুন্নাহার, শিমু, তানজিলা, পারভিন ও মুনমুন জানান, সকল যোগ্যতা থাকা সত্বেও আমাদের চাকরী হয়নি। তারা আরো বলেন, আসমা, শিউলী, শারমিন অধিক বয়স হওয়া সত্বেও তাদের বিধি বর্হিভুত ভাবে চাকরী দেয়া হয়েছে। আসমার তিনটি সন্তান এবং বয়স বেশী হওয়া সত্বেও তাকে ঘুষের বিনিময় চাকরী দেয়া হয়েছে।

পাথরঘাটা সদর ইউনিয়ন যুবলীগের সভাপতি ফাইজুর রহমান ফিরোজ আরো জানান, উপজেলা বিএনপির সাবেক সাংগঠনিক স¤পাদক প্রিন্সের মাধ্যমে ওই নিয়োগের ঘুষের সকল টাকা লেনদেন করা হয়েছে। অভিযোগে রয়েছে উপজেলা চেয়ারম্যান মো. রফিকুল ইসলাম রিপন নির্বাচিত হয়ে বিএনপির ওই নেতাকে তার ব্যক্তিগত সেক্রেটারী পদে নিয়োগ দিয়েছেন।

এ বিষয় নিয়োগ বোর্ডের আহবায়ক ও পাথরঘাটা উপজেলা চেয়ারম্যান রফিকুল ইসলাম রিপন বলেন, পরীক্ষায় উত্তীর্ণদের মধ্য থেকেই স্বচ্ছ ভাবে নিয়োগ দেয়া হয়েছে। এখানে কোন অনিয়ম, দুর্ণীতি বা টাকা পয়সা লেনদেন হয়নি।

নিয়োগ বোর্ডের সদস্য সচিব ও উপজেলা পরিবার-পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. বিজলী বালা মিত্র বলেন, নিয়োগে কোন অনিয়ম বা আর্থিক লেনদেন হয়নি। আমার বিরুদ্ধে এ রকমের কোন প্রমান দেখাতে পারলে আমি শাস্তি নিতে বাধ্য হবো। তিনি আরো বলেন, এখন পর্যন্ত নিয়োগ প্রক্রিয়া শেষ করা হয়নি। ঢাকা অফিসে বাছাইকৃতদের তালিকা পাঠানো হয়েছে।

 



samakalnews24.com এর প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

ফিচার,বিশেষ প্রতিবেদন বিভাগের সর্বোচ্চ পঠিত সংবাদ