২৭শে জুন, ২০১৯ ইং ১৩ই আষাঢ়, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

samakalnew24
samakalnew24
শিরোনাম:
রিফাত হত্যার ঘটনায় মর্মাহত হাইকোর্ট জানতে চান কি... স্বামীর খুনীর সঙ্গে স্ত্রীর ফুল হাতে ছবি ভাইরাল! বরগুনায় রিফাত হত্যা মামলায় গ্রেফতার – ১ কলারোয়া থানা পুলিশের অভিযানে ছয় ব্যক্তি আটক। মনোহরগঞ্জে বসত বাড়িতে সশস্ত্র হামলা ভাঙচুর ও লুটপাট

আমতলীতে আনারস প্রতিকে ভোট দেয়ার অপরাধে নারীর হাতের রগ কর্তন

 হায়াতুজ্জামান মিরাজ,আমতলী-বরগুনা সমকাল নিউজ ২৪

আনারস প্রতিকে ভোট দেয়ার অপরাধে আমতলী উপজেলার হলদিয়া ইউনিয়নের টেপুরা গ্রামে মাফিয়া বেগমকে (৪০) কুপিয়ে হাতের রগ কেটে দিয়েছে ঘোড়া প্রতিকের সমর্থক সিদ্দিক মাদবর নামের এক ব্যাক্তি। ঘটনা ঘটেছে মঙ্গলবার সকালে।

স্থানীয় সূত্রে জানাগেছে, উপজেলার টেপুড়া গ্রামের সিদ্দিক মাদবর সদ্য সমাপ্ত উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে ঘোড়া প্রতিক প্রার্থী সামসুদ্দিন আহম্মেদ ছজুর পক্ষে প্রতিবেশী জহিরুল ইসলামের স্ত্রী মাফিয়ার বেগমের কাছে ভোট চায়। কিন্তু মাফিয়া বেগম তার পছন্দের প্রার্থী গোলাম ছরোয়ার ফোরকানের আনারস প্রতিকে ভোট দেয়। এ ঘটনা জানতে পারে সিদ্দিক।

মঙ্গলবার সকালে মাফিয়া বেগম সিদ্দিক মাদবরের বাড়ীর টিউবওয়েলে পানি আনতে যায়। এ সময় সিদ্দিক মাদবর প্রতিবেশী মাফিয়া বেগমকে আনারস প্রতিকে ভোট দেয়ার কারন জানতে চায়। এ নিয়ে দু’জনের মধ্যে কথা কাটাকাটি হয়। এক পর্যায়ে ঘোড়া প্রতীকের সমর্থক সিদ্দিক মাদবর ক্ষিপ্ত হয়ে আনারস প্রতিকে ভোট দেয়ার অপরাধে মাফিয়া বেগমের বাম হাতে দাঁড়ালো অস্ত্র দিয়ে কুপিয়ে গুরুতর জখম করে। এতে মাফিয়া বেগমের বাম হাতের কব্জির রগ কেঁটে যায়।

এ সময় তার ডাক চিৎকারে মেয়ে লিমা বেগম (২০) এগিয়ে এলে সিদ্দিক মাদবরের স্ত্রী লিলি বেগম ও পুত্র সুমন লিমাকে পিটিয়ে আহত করে। দ্রুত তাদের উদ্ধার করে আমতলী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে আসে। কর্তব্যরত চিকিৎসক মাফিয়াকে উন্নত চিকিৎসার জন্য বরিশাল শের-ই-বাংলা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠিয়েছে।

আমতলী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের উপ-সহকারী কমিউনিটি মেডিকেল অফিসার গৌরঙ্গ হাজরা বলেন, মাফিয়া বেগমের বাম হাতের রগ কেঁটে যাওয়ায় তাকে উন্নত চিকিৎসার জন্য বরিশাল শেবাচিম হাসপাতালে প্রেরন করা হয়েছে।

মাফিয়া বেগম বলেন, সিদ্দিক মাদবর আমার কাছে ঘোড়া প্রতিকে ভোট চেয়েছিল। আমি তার কথায় ভোট না দিয়ে আমার পছন্দের প্রতিক আনারসে ভোট দিয়েছি। আনারসে ভোট দেয়ার অপরাধে সিদ্দিক মাদবর আমাকে কুপিয়েছে এবং তার স্ত্রী লিপি ও ছেলে সুমন আমার মেয়ে লিমাকে পিটিয়ে আহত করেছে। আমি এ ঘটনার বিচার চাই।

ঘোড়ার সমর্থক সিদ্দিক মাদবরের সাথে মুঠোফোনে ( ০১৭০৮৯৭৭০৩২) যোগাযোগ করা হলে তার মেয়ে লিয়া জানান, সকালে ঝগড়া হয়েছিল। তবে আমার বাবা কাউকে মারধর করেনি।

আমতলী থানার ওসি (তদন্ত) মোঃ নুরুল ইসলাম বাদল বলেন, খবর পেয়েছি। অভিযোগ পেলে আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে।

Print Friendly, PDF & Email

প্রতিদিনের খবর পড়ুন আপনার ইমেইল থেকে
বরগুনা বিভাগের সর্বশেষ
বরগুনা বিভাগের আলোচিত
ওপরে