১৬ই সেপ্টেম্বর, ২০১৯ ইং ১লা আশ্বিন, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

samakalnew24
samakalnew24
শিরোনাম:
ঝালকাঠিতে পাওনা টাকাকে কেন্দ্র করে হা’মলায় আহত... অ’পহরণের ৫ দিন পর ঠাকুরগাঁও থেকে তরুণীকে উ’দ্ধার বঙ্গবন্ধু গোল্ডকাপ ফুটবল টুর্ণামেন্ট... র‌্যাবের অ’ভিযানে ২৫৬০ পিস ই’য়াবাসহ ব্যবসায়ী... দুর্গাপুরে হা-ডু-ডু প্রতিযোগিতা

আমতলীতে ত্রাণের ঘর দখলকে কেন্দ্র করে দু’গ্রুপের সংঘর্ষে আহত ১৫

 হায়াতুজ্জামান মিরাজ,আমতলী/ সমকালনিউজ২৪

বরগুনার আমতলী উপজেলার গুলিশাখালী বাজার সংলগ্ন স্থানে সিডরের ত্রাণের ঘর দখলকে কেন্দ্র করে দু’গ্রæপের সংঘর্ষে নারীসহ ১৫ জন আহত হয়েছে। আহতদের বরিশাল শেবাচিম ও বরগুনা জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। ঘটনা ঘটেছে শুক্রবার সকালে।

স্থানীয় সূত্রে জানাগেছে, উপজেলার গুলিশাখালী ইউনিয়নের গুলিশাখালী বাজার সংলগ্ন স্থানে শ্রী কৃষ্ণ মিস্ত্রি ঘূর্ণিঝড় সিডরে ত্রাণের একটি ঘর পায়। ২০০৯ সালে ওই ঘর গোপাল মালির কাছে স্ট্যাম্পে লিখিত দিয়ে এক লক্ষ বিশ হাজার টাকায় বিক্রি করে। শ্রী কৃষ্ণ মিস্ত্রি ওই জমি বিক্রি করে এলাকা থেকে ঢাকায় চলে যান। ওই ঘরে গোপাল মালি গত ১০ বছর ধরে বসবাস করে আসছে। এদিকে শ্রী কৃষ্ণ মিস্ত্রি গোপনে ২০১২ সালে ওই ঘর একই এলাকার আবদুল মন্নান মৃধার কাছে কোর্টে এ্যাফিডেভিট দিয়ে আশি হাজার টাকায় বিক্রি করে। শুক্রবার সকালে ওই ঘর দখল করতে যায় মন্নান মৃধাসহ তার লোকজন। এতে বাঁধা দেয় গোপাল মালি ও তার লোকজন। এ সময় দু’পক্ষ সংঘর্ষে জড়িয়ে পড়ে। সংঘর্ষে দু’পক্ষের নারীসহ ১৫ জন আহত হয়েছে। গুরুতর আহত ফাতেমা (১৪), নুরুন্নাহারকে (৪০) বরিশাল শেবাচিম হাসপাতালে এবং মিনতি রানী (৪০), ইন্দোজিত মালি (৬০), রাধা রানি (২৩), পূর্ণিমা রানী (১৪), অন্তরা রানী (২০), পলকি রানীকে (১৬) বরগুনা জেনারেল হাসপাতালে এবং আসমা (২৫), ইব্রাহিম ও আবুল হোসেনকে আমতলী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়েছে। খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছে। অপর আহতদের প্রাথমিক চিকিৎসা দেয়া হয়।

আমতলী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের উপ-সহকারী কমিউনিটি মেডিকেল অফিসার মোঃ মোস্তাফিজুর রহমান বলেন, গুরুতর আহত ফাতেমা ও নুরুন্নাহারকে উন্নত চিকিৎসার জন্য বরিশাল শেবাচিম হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে।
অপর তিন জনকে আমতলী হাসপাতালে ভর্তি করা হয়।

গোপাল মালি বলেন, ২০০৯ সালে শ্রী কৃষ্ণ মিস্ত্রি ঘর আমার কাছে এক লক্ষ বিশ হাজার টাকায় বিক্রি করে স্ট্যাম্পে লিখিত দিয়ে গেছেন। ওই সময় থেকে আমি ওই ঘরে বসবাস করে আসছি। শুক্রবার সকালে ওই ঘর মন্নান মৃধা ১৫/২০ জন সন্ত্রাসী দিয়ে জোড় করে দখল করতে যায়। এতে আমি বাঁধা দিলে লোহার হাতুড়ি, রড ও ধারালো অস্ত্র দিয়ে পিটিয়ে ও কুপিয়ে আমাদের ৬ জনকে আহত করেছে। আমি ঘটনার বিচার চাই।

আবদুল মন্নান মৃধার ছোট ভাই আবুল হোসেন মৃধা বলেন, শ্রী কৃষ্ণ মিস্ত্রি ২০১২ সালে ওই ঘর আশি হাজার টাকায় বিক্রি করে আদালতে এ্যাফিডেভিট দিয়ে গেছেন। ওই ঘর দখল করতে গেলে আমার লোকজনকে কুপিয়ে আহত করেছে।

আমতলী থানার ওসি মোঃ আবুল বাশার বলেন, খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে পুলিশ পাঠিয়েছি। পরিস্থিতি শান্ত রয়েছে। অভিযোগ পেলে আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে।

প্রতিদিনের খবর পড়ুন আপনার ইমেইল থেকে
বরগুনা বিভাগের আলোচিত
ওপরে