২৩শে মে, ২০১৯ ইং ৯ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

samakalnew24
samakalnew24
শিরোনাম:
মোদীর গুজরাটে বেহাল দশা, ৬৩টিতে একজনও পাশ করল না! টানা তৃতীয়বারের জয়ে পশ্চিমবঙ্গের মসনদে মমতা গাড়ি চালিয়ে বড় ভাই রাহুল গান্ধীর বাড়িতে প্রিয়াঙ্কা লোকসভা নির্বাচনে জয়ের সুবাতাস পাচ্ছেন বিজেপির গম্ভীর মহিপুর ইউনিয়নে বিজিডি-বিজিএফ চাল বিতরন উদ্বোধন করলেন...

আসুন দৃষ্টিভঙ্গি বদলাইঃ শিল্পী রাণী হালদার

 শিল্পী রাণী হালদারঃ সমকাল নিউজ ২৪
আসুন দৃষ্টিভঙ্গি বদলাইঃ

জেগেছে বাংলার বহ্নিশিখা, অগ্নিমাতা, কন্যাবধু, জায়া ভগিনী। বাংলাদেশ নারীর ক্ষমতায়নের দেশ। আমাদেরই উপমহাদেশে নারী শক্তির আরাধনা করা হয়। নারী মানেই মা, মা মানেই শক্তি। আর বাংলার এই নারীদের ভাগ্য জয় করার জন্য যুগে যুগে এসেছেন অনেক মহীয়সী নারী। এসেছেন নারী শিক্ষার অগ্রদুত বেগম রোকেয়া। যারা না এলে নারীর ক্ষমতায়নের স্বপ্ন অধরা থেকে যেত। এমনকি বাংলাদেশ স্বাধীন হত না যদি না অগণিত বীর মাতা তাদের সন্তানকে দেশের জন্য উৎসর্গ করতেন।

 

কেউ যদি মনে করে নারীকে অবহেলিত রেখেই সমাজ ও দেশের উন্নয়ন সম্ভব তবে সেটা বোকামী ছাড়া আর কিছুই না। পুরুষের সাফল্যের পেছনে রয়েছে নারীর অসামান্য অবদান। নারীর অবদান এখন সকল ক্ষেত্রে। তাই সময় এসেছে নারীকে আরো সামনের দিকে এগিয়ে নেওয়ার। নারীর ক্ষমতায়ন মানেই জাতির ক্ষমতায়ন। আর এর মাধ্যমে নারীরা সমাজের বিভিন্ন কাজে গুরুত্বপূর্ণ অবদান রাখার সুযোগ পাবেন।

 

বর্তমান সরকার ক্ষমতা গ্রহণের পর থেকেই নারী উন্নয়নের জন্য নানাবিধ কর্মসূচী পালন করে আসছেন। বিভিন্ন সময়ে সরকারের পাশাপাশি নারীর ক্ষমতায়নে কাজ করে যাচ্ছে বিভিন্ন স্বেচ্ছাসেবী সংগঠন, ক্ষুদ্রঋণদানকারী সংস্থা ও এনজিও। তাদের এ সকল কার্যক্রম ইতিমধ্যে দারিদ্রতা দূরীকরণে উল্লেখযোগ্য ভূমিকা রাখছে। এক্ষেত্রে বাঘা, চারঘাট, রাজশাহী-৬ আসনের প্রতিমন্ত্রী জনবা শাহরীয়ার আলম নীরবে নিভৃত্বে কাজ করে যাচ্ছেন সাধারণ নারীদের জন্য। কেননা তিনি এ অঞ্চলের নারীদের সামনে এগিয়ে নেয়ার জন্য বিভিন্ন কর্মসংস্থানের ব্যাবস্থা করেছেন এবং বাঘা উপজেলার ছাতাড়ী গ্রামে (বিজিএমইএ) গার্মেন্টস ট্রেনিং সেন্টার নামে ১টি প্রশিক্ষণ কেন্দ্রও গড়ে তুলেছেন। যেখানে অসংখ্য নারী প্রশিক্ষণের মধ্য দিয়ে নিজেদেরকে দক্ষ করে গড়ে তুলতে পারছেন। এবং প্রত্যন্ত অঞ্চলের নারীরাও এখন যোগ্যতা অনুযায়ী বিভিন্ন্ কর্মক্ষেত্রে যোগদানের সুযোগ পাচ্ছেন। এক কথায় দারিদ্রতা ও প্রতিবন্ধকতাকে পেছনে ফেলে নারীরা এখন সামনে এগিয়ে চলেছেন দুর্বার গতিতে। ফলে নারীরাও পেতে শুরু করেছেন নতুন নতুন সফলতা। তাই নারীরা এখন আর বেকার বসে থাকে না। সংসারের পাশাপাশি হস্ত শিল্পের কাজ ও বাড়ির আঙ্গিনায় সবজি চাষ করে এগিয়ে যাচ্ছেন অনেকেই। আজকের মহিয়সী ও সফল নারীরাই আগামী দিনের নারীদের অনুপ্রেরণা যোগাবে।

 

প্রতিটি সমাজে কোন না কোনভাবে নারীরা শারিরীক ও মানসিকভাবে বৈষম্যের শিকার হচ্ছেন। এমন কিছু নারী রয়েছেন যারা নির্যাতনের শিকার হলেও মুখে কোন কথা বলতেন না। চুপচাপ নীরবে সব সহ্য করে যেতেন। কিন্তু এখন সময় বদলেছে। তারা এখন নিজেদের অধীকারগুলো আদায় করে নিতে শিখেছেন। নারীরা আর পিছিয়ে নেই তারাও এগিয়ে চলেছে পুরুষদের সাথে। পড়ালেখার পাশাপাশি দক্ষভাবে তৈরি করছেন নিজেদের। আমাদের সমাজে এমনও হতো যে মেয়েদের ১৪-১৫ বছর হলেই পরিবার থেকে দেওয়া হতো। বাল্যবিয়ে হবার কারণে শারিরীক ভাবে অনেক সমস্যার সম¥খীন হতো তারা। সেই জায়গা থেকে হয়তো আমরা পুরটা উঠে আসতে পারিনি তবে অনেকটা রোধ করতে পেরেছি বাল্যবিবাহকে। এখন আর কেউ পিছিয়ে নেই। শিক্ষার আলো ছড়িয়ে গেছে প্রত্যেক নারীর মাঝে। সেখান থেকে অনেক নারী নিজেদের যোগ্যতায় তৈরি করে নিচ্ছে কর্মসংস্থান।

 

আমাদের সমাজে সব সময় নারীদের মতামত প্রকাশ করা থেকে দুরে সরিয়ে রাখা হতো। কিন্তু এখন সে প্রথাও ভেঙে বেরিয়ে এসেছে নারীরা। নরীরা তাদের নেতৃত্ব দিয়ে দেশ গঠনে সহায়তা করছে, শিক্ষিত ভবিষ্যৎ প্রজন্ম গড়ে তুলছে। তাই আসুন তাদের প্রতি সম্মান দেখাই, ভালবাসা দেখাই। তাদেরকে এগিয়ে দিই সামনের দিকে। তবে এর জন্য নারীর ক্ষমতায়ন বাড়াতে হবে। কেননা এর কোন বিকল্প নেই। তবুও আমরা অনেকেই কেন জানি নারীর ক্ষমতায়নের কথা শুনলেই ভ্রু কুঁচকে ফেলি। তাই আসুন আমরা আমাদের দৃষ্টিভঙ্গি বদলাই। আর বদলে ফেলি আমাদের চারপাশটাকে। নারীর ক্ষমতায়নের কথা আসলেই বিদ্রোহী কবি কাজী নজরুল ইসলামের সেই বিখ্যাত নারী কবিতাটির কথা মনে পড়ে যায়। কত না সুন্দর ভাবেই তিনি সেখানে নারীর অবদানের কথা তুলে ধরেছেন। প্রিয় পাঠক আজকের লেখাটি শেষ করব সেই কবিতাটির অংশ বিশেষ দিয়েই।

 

সাম্যের গান গাই-
আমার চোক্ষে পুরুষ-রমনী কোন ভেদাভেদ নাই।
বিশ্বে যা-কিছু মহান সৃষ্টি চির কল্যাণকর,
অর্ধেক তার করিয়াছে নারী, অর্ধেক তার নর।

 

কবির সাথে কণ্ঠ মিলিয়ে আবারও বলতে ইচ্ছে করে
সেদিন সুদূর নয়
যেদিন ধরনী পুরুষের সাথে
গাহিবে নারীরও জয়।

 

লেখক: শিল্পী রাণী হালদার, কমিউনিটি মিডিয়া ফেলো, রেডিও বড়াল, বাঘা-রাজশাহী

Print Friendly, PDF & Email

প্রতিদিনের খবর পড়ুন আপনার ইমেইল থেকে
ওপরে