১৬ই সেপ্টেম্বর, ২০১৯ ইং ১লা আশ্বিন, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

samakalnew24
samakalnew24
শিরোনাম:
ঝালকাঠিতে পাওনা টাকাকে কেন্দ্র করে হা’মলায় আহত... অ’পহরণের ৫ দিন পর ঠাকুরগাঁও থেকে তরুণীকে উ’দ্ধার বঙ্গবন্ধু গোল্ডকাপ ফুটবল টুর্ণামেন্ট... র‌্যাবের অ’ভিযানে ২৫৬০ পিস ই’য়াবাসহ ব্যবসায়ী... দুর্গাপুরে হা-ডু-ডু প্রতিযোগিতা

উপজেলা চেয়ারম্যানকে শরনার্থী বলায় মুক্তিযোদ্ধাদের প্রতিবাদ সমাবেশ অনুষ্ঠিত

  সমকালনিউজ২৪

স্বপন খান,নরসিংদী প্রতিনিধিঃ   নরসিংদীর শিবপুরের সাংসদের সংবাদ সম্মেলনে উপজেলা চেয়ারম্যানকে শরনার্থী বলায় মুক্তিযোদ্ধাদের প্রতিবাদ সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়েছে।

মঙ্গলবার (১০ সেপ্টেম্বর) উপজেলা অডিটরিয়ামে অনুষ্ঠিত প্রতিবাদ সমাবেশে সভাপতিত্ব করেন শিবপুর উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা সংসদের সাবেক কমান্ডার দৈয়দ সিরাজ উদ্দিন। সভায় ২৯ আগষ্ট শিবপুরের সাংসদ জহিরুল হক ভূঞা মোহনকে মুক্তিযোদ্ধা দাবী করে সংবাদ সম্মেলন করেন তার অনুসারী মুক্তিযোদ্ধারা। ওই সংবাদ সম্মেলনে সাংসদের পক্ষে উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা সংসদের সাবেক কমান্ডার আজিজুর রহমান খান ভুলু তার লিখিত বক্তব্যে সাংসদ জহিরুল হক ভূইয়াকে মুক্তিযোদ্ধা দাবী করেন এবং উপজেলা চেয়ারম্যান হারুনুর রশীদ খানকে শরনার্থী বলে উল্লেখ করেন। ফলে ক্ষিপ্ত হয়ে উঠে স্থানীয় মুক্তিযোদ্ধারা। এরই প্রেক্ষিতে উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা সংসদের সাবেক কমান্ডার আজিজুর রহমান খান ভুলুর বক্তব্যের প্রতিবাদে এবং এই বক্তব্য প্রত্যাহার করার দাবীতে সমাবেশ করেন মুক্তিযোদ্ধারা।

সমাবেশে উপজেলা চেয়ারম্যান ও উপজেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি হারুনুর রশীদ খান উপস্থিত ছিলেন।

সভায় উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা সংসদের সাবেক কমান্ডার তাজুল ইসলাম খান ঝিনুক বলেন যারা প্রকৃত মুক্তিযোদ্ধা নয় তারা কিভাবে একজন মুক্তিযোদ্ধার বি’রুদ্ধে কথা বলেন। উপজেলা চেয়ারম্যান হারুনুর রশীদ খান একজন প্রকৃত মুক্তিযোদ্ধা।

এছাড়া সভায় একাধিক মুক্তিযোদ্ধা তাদের বক্তব্যে বলেন, উপজেলা চেয়ারম্যান শরনার্থী নয় বরং যিনি শরনার্থী বলেছেন তিনি প্রকৃত মুক্তিযোদ্ধা নন। ভারতীয় তালিকায় হারুনুর রশীদের নাম রয়েছে। বক্তারা অবিলম্বে উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা সংসদের সাবেক কমান্ডার আজিজুর রহমান খান ভুলু তার বক্তব্য প্রত্যাহার করে ক্ষমা চাওয়ার জন্য আহবান জানান।

সভায় উপজেলা চেয়ারম্যান হারুনুর রশীদ খান বলেন, শিবপুরের সাংসদের পিতা সিরাজুল ইসলাম রাজাকার ছিলেন না কিন্তু তার অবস্থান মুক্তিযুদ্ধের বিরুদ্ধে ছিল। যার জন্য তাকে হত্যা করেছে। আজিজুর রহমান খান ভুলু শরনার্থী হতে পারে আমি নই। আমার ভাই আজিজুর রহমান ভুলুকে প্রশিক্ষণ করিয়েছেন।  কিন্তু তিনি যুদ্ধে অংশ গ্রহণ করেননি।

সমাবেশে অন্যান্যদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন, উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা সংসদের সাবেক ডেপুটি কমান্ডার মোহসীন নাজির, সাবেক ডেপুটি কমান্ডার আঃ মোতালিব খান, এ কে নাছিম আহমেদ হিরণসহ বিভিন্ন ইউনিয়ন কমান্ডারবৃন্দ।

 

‘বিদ্রঃ সমকালনিউজ২৪.কম একটি স্বাধীন অনলাইন পত্রিকা। সমকালনিউজ২৪.কম এর সাথে দৈনিক সমকাল এর কোন সম্পর্ক নেই।’

প্রতিদিনের খবর পড়ুন আপনার ইমেইল থেকে
নরসিংদী বিভাগের সর্বশেষ
নরসিংদী বিভাগের আলোচিত
ওপরে