১৭ই আগস্ট, ২০১৯ ইং ২রা ভাদ্র, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

samakalnew24
samakalnew24
শিরোনাম:
বগুড়ায় স্কুলছাত্রীকে নৌকার ভিতরে ধর্ষ’ণ দুর্গাপুরে শিশুশ্রমেই চলছে ওয়ার্কসপ। কাউখালীতে জমি জমা নিয়ে সংঘ’র্ষে দুই ভাইকে কুপিয়ে আহত গোয়েন্দা পুলিশের অভিযানে আত্রাইয়ে গাঁ’জাসহ আটক-১ বন্দরে ইন্স্যুরেন্স কোম্পানীর ম্যানেজারকে কু’পিয়ে...

উপজেলা ছাত্রলীগের সম্পাদক ফোরকান চেয়ারম্যান প্রার্থী।

 মো. সুজন মোল্লা, বানারীপাড়া (বরিশাল) প্রতিনিধি। সমকাল নিউজ ২৪

তরুণরাই হবে আগামীর সোনার বাংলার কর্ণধার,বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের সভাপতি,প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার এমন মন্তব্যে উজ্জীবিত হয়ে বানারীপাড়া উপজেলা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক মো. ফোরকান আলী হাওলাদার আসন্ন উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে চেয়ারম্যান প্রার্থী হবার প্রত্যাশী বলে জানিয়েছেন।

 

তিনি জানান ১৯৯১ সালে ছাত্রলীগের হাত ধরে তার রাজনীতির পথচলা। ১৯৯৬ সালে উপজেলার বাইশারী মাধ্যমিক বিদ্যালয়ে ভর্তি হয়ে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের আদর্শ শিক্ষার্থীদের মাঝে ফুঁটিয়ে তোলার দৃঢ় প্রত্যয় নিয়ে কাজ করে ওই সময়ে নজর কারেন স্থানীয় আওয়ামী লীগের। ২০০১ সালে এসএসসি পরীক্ষায় পাস করে ভর্তি হন পার্শ্ববর্তী স্বরূপকাঠি উপজেলার একটি কলেজে। সেখানেও সমান তালে ছাত্রলীগের রাজনীতি করার অপরাধে ২০০৩ সালে এইচএসসি পরীক্ষার ফরম ফিলাপ করতে পারেনি তৎকালীন বিএনপি-জামায়াতের রোষানলে পরে। পরবর্তী সময়ে নিজ গ্রামের বাইশারী সৈয়দ বজলুল হক ডিগ্রী কলেজে এসে ভর্তি হয় ২০০৭ সালে। সেখান থেকে ২০০৯ সালে এইচএসসি পাশ করে তরুণ এই ছাত্র নেতা। ২০১৬ সালের শেষের দিকে বানারীপাড়া উপজেলা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক নির্বাচিত হয় ফোরকান। দাদা মো. সেকেন্দার আলী হাওলাদার স্বাধীনতার পরে উপজেলার বাইশারী ইউনিয়ন পরিষদের টানা ৩০ বছর পর্যন্ত ইউপি সদস্যের দায়িত্ব পালন করেছেন অনেক সুনামের সহিত। বাবা মো. তাজেম আলী হাওলাদার বানারীপাড়া উপজেলা আওয়ামী লীগের অন্যতম সহ-সভাপতি। ১৯৯৮ সালে দলীয় সমর্থন নিয়ে ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে বিপুল ভোটে বিজয়ী হয়ে পরাজিত করেছিলেন বিএনপির প্রার্থীকে। পরে ইউনিয়ন নির্বাচনে এখান থেকে আওয়ামী লীগের কোন নেতাকে চেয়ারম্যান প্রার্থী করা হয়নি বলে জানাগেছে। উল্লেখ্য ২০০১ সালের জাতীয় সংসদ নির্বাচনে চার দলীয় জোট সরকার গঠন করার পরে এই পরিবারের ওপরে নেমে আসে অনেকটা মধ্যযুগীয় নির্যাতন। কেবলমাত্র আওয়ামী লীগ করার অপরাধে তাদের বাড়ির পুকুরের মাছ,বিভিন্ন জাতের রোপিত গাছ,ইট ভাটার ইট,ট্রলার এমনকি গোয়ালের গরুও বিএনপি-জামায়াতের ক্যাডারদের হাত থেকে রেহাই পায়নি। শেষ পর্যন্ত নির্যাতনের মাত্রা আরও বেড়ে যাওয়ায় তারা বসতভিটা ছেড়ে পালিয়ে যায় রাজধানি ঢাকায়। সেখানে গিয়ে বাবা সাবেক ইউপি চেয়ারম্যান তাজেম আলীকে সাথে নিয়ে রাস্তার ফুটপাতে বসে চা বিক্রি করতে হয়েছে তাদেরকে। দলের জন্য এমন ত্যাগ স্বীকার করা পরিবারের তরূণ সন্তানকে যথার্থ মূল্যায়ন করবেন দেশরত্ন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এমনটাই জানালেন ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক ফোরকান আলী হাওলাদার।

Print Friendly, PDF & Email

প্রতিদিনের খবর পড়ুন আপনার ইমেইল থেকে
বরিশাল বিভাগের সর্বশেষ
বরিশাল বিভাগের আলোচিত
ওপরে