৩রা এপ্রিল, ২০২০ ইং ২০শে চৈত্র, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

samakalnew24
samakalnew24
শিরোনাম:
টাকার অভাবে খাবার কিনতে পারছেন না,প্রতিবেশীদের কাছে... করোনা পরিস্থিতিতে আর্তমানবতার সেবায় এগিয়ে এলেন জসিম... মহিপুরে হতদরিদ্রদের মাঝে কোষ্টগর্ডের খাবার সামগ্রী... বালিয়াডাঙ্গীতে ৩ ঘন্টা নিত্য প্রয়োজনীয় দোকান খোলা... জামালপুরে ১০০ মেগাওয়াট পাওয়ার প্লান্টের ভেতরে বিদ্যুৎ...

এলইডি চায়না লাইটের আলো সড়ক দূঘটনা বাড়াচ্ছে

  সমকালনিউজ২৪

বুলবুল, ফরিদপুর সংবাদদাতা :

দূর পাাল্লার পরিবহন, গণ-পরিবহন, ট্রাক সহ তিন চাকায় চালিত ইজিবাইক, নছিমন,মাহেন্দ্র এবং ব্যাটারি চালিত ভ্যান ইত্যাদী গাড়িতে একাধিক চায়না এলইডি লাইট ব্যবহার এর কারনে সড়ক দূর্ঘটনা বেড়েই চলেছে। এসব লাইটের তীর্যক বেগুনী রশ্মি একদিকে যেমন চোখে সূচাগ্র কাঁটার মতো বিঁধে অন্যদিকে রাস্তার উভয় দিক থেকে আসা গাড়ি চলাচলের সময় আলোর তীব্রতা এতোটাই মারাত্মক যার কারনে চোখে কিছুই দেখা যায়না। বিশেষ করে হাইওয়ের বাহিরে উপজেলা এবং গ্রামের রাস্তাগুলোতে চলাচলরত গণ পরিবহন সহ বিভিন্ন গাড়িতে একাধিক লাইটের ব্যবহার যেন ফ্যাশনে পরিণত হয়েছে। কালো অন্ধকার ভেদ করে মৃত্যুদূত চোখ ঝলসানো আলোকরশ্মি আর লাইটের প্রভাব যমদূতে পরিণত হয়েছে।

বাস-ট্রাক সহ গণ পরিবহনের সামনের অংশে ৬ টি মারাত্মক এলইডি লাইট তীব্র আলো বিকিরন করছে। অন্যদিকে গাড়িতে স্বাভাবিক লাইট থাকা সত্বেও অতিরিক্ত আরো ২/৩ টি লাইট সংযোজন করে ব্যবহার করা হচ্ছে। ব্যাটারি ও মোটর চালিত ভ্যান, ষ্যালো মেশিনের ইঞ্জিন সংযোযিত নছিমন,মাহেন্দ্র নামক পরিবহন গুলোতে এ লাইট ব্যবহারের মারাত্মক রুপ বিশেষভারে লক্ষ্যনীয়। এ ছাড়াও গ্রামের সংযোগ রাস্তায় ষ্যালো মেশিনের ইঞ্জিন সংযোজন করে চলছে আরো অনেক ধরনের যান। ইট,বালি,মাটি, গাছ, খড়ি পরিবহনের কাজে ব্যবহৃত বাহন, ক্লাস বিহীন এসব গাড়ির ব্রেক এবং বডির সাথে কোন সামনজস্য নেই, যেগুলোর কোন বৈধতা নেই। এমন গাড়িতে এলইডি লাইটের চোখ ধাঁধানো ঝলকানিতে অহরহ ঘটছে সড়ক দূর্ঘটনা। বিশেষকরে মটরসাইকেল চালক বেশীকরে বিড়ম্বনা ও দূর্ঘটনা কবলিত হয়ে মৃত্যুর মহামারিতে আক্রান্ত হচ্ছে।

এতোসব বিষয় নিয়ে সাধরন জনতার অভিযোগের অন্ত না থাকলেও প্রতিকারের তেমন কোন পদক্ষেপ নেই। অভিযোগ করেছেন নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক কয়েকটি উপজেলার পুলিশের গাড়ি চালক সহ উপজেলা নির্বাহী অফিসার ও ম্যাজিষ্ট্রের গাড়ি চালক।
প্রতিকারের ব্যবস্থা এবং করনীয় নিয়ে জানতে চেয়েছিলাম ফরিদপুরের সিনিয়র সহকারী পুলিশ সুপার এফ এম মহিউদ্দীন সাহেবের কাছে। তিনি বললেন, সরকারী নির্দেশনা পেয়েছি-অচিরেই প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে।

প্রতিদিনের খবর পড়ুন আপনার ইমেইল থেকে
ফরিদপুর বিভাগের আলোচিত
ওপরে