২৭শে জানুয়ারি, ২০২০ ইং ১৪ই মাঘ, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

samakalnew24
samakalnew24
শিরোনাম:
সাপাহারে বৈদ্যুতিক আগুনে ৭ হাজার মুরগির ছানা পুড়ে ছাই বগুড়ায় খামার থেকে নৈশ প্রহরীর লা’শ উ’দ্ধার চেয়ারম্যানসহ সদস্যরা অবরুদ্ধ ইউনিয়ন অফিস ভাংচুর... বগুড়ায় নারীদের সফট স্কিল প্রশিক্ষণ অনুষ্ঠিত মায়ের হত্যার বিচার চেয়ে প্রধানমন্ত্রীর হস্তক্ষেপ...

চুনারুঘাটের বাল্লা-কেদারাকোট স্থলবন্দরের কাজ শিগগির শুরু হচ্ছে পরিদর্শনে অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক 

  সমকালনিউজ২৪

এম এস জিলানী আখনজী, চুনারুঘাট (হবিগঞ্জ) থেকে
হবিগঞ্জের চুনারুঘাট উপজেলার বাল্লা-কেদারাকোট স্থলবন্দর পরিদর্শন করেছেন হবিগঞ্জের অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক তারেখ মোহাম্মদ জাকারিয়া।

(২৪ আগস্ট) শনিবার দুপুরে তিনি জেলা-উপজেলা প্রশাসন, বর্ডার গার্ড বিজিবি, ব্যবসায়ী ও স্থানীয় রাজনৈতিক নেতাকর্মীদের সঙ্গে নিয়ে বাল্লা-কেদারাকোট সীমান্ত এলাকা পরিদর্শন করেন।

পরিদর্শনকালে উপস্থিত ছিলেন চুনারুঘাট উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) মোঃ মঈন উদ্দিন ইকবাল, জেলা প্রশাসক কার্য্যালয়ের ভূমি অধিগ্রহণ কর্মকর্তা সজিব চন্দ্র রুদ্র, কাস্টম ইন্সপেক্টর মোঃ জাহেদ মিয়া, বাল্লা সীমান্ত ফাঁড়ির বিজিবি কোম্পানী কমান্ডার মোঃ সেলিম উদ্দিন, গাজীপুর ইউনিয়ন তাঁতীলীগের আহবায়ক ও বাল্লা স্থলবন্দর আমদানি-রপ্তানী কারক কল্যাণ সমিতির সভাপতি জালাল উদ্দিন খান, গাজীপুর ইউনিয়ন তাঁতীলীগের সদস্য সচিব মোঃ শফিকুল আলম রণি, ব্যবসায়ী সদস্য জুয়েল মিয়া ও জেলা-উপজেলার সার্ভেয়ার সহ স্থানীয় গন্যমান্য ব্যক্তিবর্গ।

এ সময় অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক বলেন, বর্তমান সরকার দেশের বন্দরগুলোর উন্নয়নে কাজ করছে। জমি অধিগ্রহনের কাজটি আমরা দ্রুত গতিতে শেষ করে দিচ্ছি। আমাদের কাজও প্রায় শেষের দিকে, খুব বেশি দিন সময় হয়ত লাগবেনা। মাস দেড়-দুই একের মধ্যেই জমি অধিগ্রহনের কাজটি শেষ হয়ে যাবে। তিনি বলেন, বাংলাদেশ নৌ-পরিবহন মন্ত্রনালয়ের স্থলবন্দর কর্তৃপক্ষ ওরাও যতেষ্ট কাজ এগিয়ে রেখেছে, এদেরও প্রকল্প প্রায় পাশ করা। আমরা যায়গাটা বুঝিয়ে দিলেই ওরা প্রকল্পের কাজ শুরু করে দিতে পাারবে।

উল্লেখ্য, হবিগঞ্জের চুনারুঘাট উপজেলার বাল্লা স্থলবন্দরটি ১৯৫১ সালে ৪.৩৭ একর জমির ওপর প্রতিষ্ঠিত হয়। এ স্থান দিয়ে বর্তমানে ভারত ও বাংলাদেশের মধ্যে ব্যবসা বাণিজ্য চলে আসছে। এখানে রয়েছে চেকপোস্টসহ সীমান্ত ঘাঁটি। বাল্লা স্থলবন্দরের স্থায়ী অবকাঠামো গড়ে উঠলে বন্দরটি দিয়ে প্রতি বছর প্রায় ২’শত কোটি টাকার পণ্য আমদানি-রপ্তানি হবে। এতে
এলাকায় ব্যবসা-বাণিজ্যের সম্ভাবনার দ্বার খুলে যাওয়ার পাশাপাশি হাজার হাজার বেকারের কর্মসংস্থানের সুযোগ রয়েছে। দীর্ঘদিন বন্ধ থাকা সম্ভাবনাময় এ স্থলবন্দরটি বিগত ১৯৯১ সালে পুনরায় চালু হওয়ার পর এ বন্দর দিয়ে সিমেন্ট, ইট-পাথর, মাছসহ নানা পণ্য রপ্তানি হচ্ছে। বিনিময়ে ভারত থেকে বিভিন্ন কাঁচামাল, ফলমূল, বাঁশ, চকলেট, ক্যান্ডি ইত্যাদি পণ্য আমদানি
হচ্ছে। এছাড়া এ বন্দর দিয়ে লোকজনও বৈধভাবে পারাপার হচ্ছেন।

 

‘বিদ্রঃ সমকালনিউজ২৪.কম একটি স্বাধীন অনলাইন পত্রিকা। সমকালনিউজ২৪.কম এর সাথে দৈনিক সমকাল এর কোন সম্পর্ক নেই।’

প্রতিদিনের খবর পড়ুন আপনার ইমেইল থেকে
হবিগঞ্জ বিভাগের সর্বশেষ
হবিগঞ্জ বিভাগের আলোচিত
ওপরে