১৯শে মে, ২০১৯ ইং ৫ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

samakalnew24
samakalnew24
শিরোনাম:
বানারীপাড়ায় ইয়াবা সহ মাদকসেবী আটক আখাউড়ায় ফাঁসিতে ঝুলন্ত অবস্থায় যুবকের লাশ উদ্ধার। জৈন্তাপুরে পূর্ব বিরোধের জের ধরে চাচা ভাতিজার সংঘর্ষে... নওগাঁয় তুচ্ছ ঘটনাকে কেন্দ্র করে বাড়িঘর ভাঙচুর ও নারীর... খাগড়াছড়িতে বজ্রপাতে মা-ছেলের মৃত্যু !

জনগণের শান্তি ভঙ্গকারীরা রাষ্ট্রের জন্য ভয়ংকর – পুলিশ সুপার বরকতুল্লাহ খাঁন

 শংকর দত্ত,সুনামগঞ্জ/ সমকাল নিউজ ২৪

সুুনামগঞ্জের ছাতকের বন্ধুকযুদ্ধের ঘটনায় চিকিৎসাধীন ছাতক থানার ওসি সহ ৭ পুলিশ সদস্যদের শারিরীক খুঁজ খবর নিতে সিলেট এমএজি ওসমানী মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে যান পুলিশ সুপার বরকতুল্লাহ খাঁন।

বুধবার রাতে সিলেট এমএজি ওসমানী মেডিক্যাল করেজ হাসপাতালে চিকিসাধীন পুলিশ সদস্যদের দেখতে গিয়ে পুলিশ সুপার মো. বরকতুল্লাহ খাঁন গণমাধ্যমে, ছাতকের সংঘর্ষ , পুলিশের উপর হামলা ও ভ্যান চালক হত্যাকান্ডের ঘটনায় নেপথ্যে কিংবা প্রকাশ্যে যে বা যারাই জড়িত থাকুক না কেনো তারা যতবড় প্রভাশালী হউক না কেন তাদের কাউকেই উপর মহলের তদবিরে ছাড় না দিতে জেলা পুলিশের প্রতি নির্দেশনা দিয়েছেন পুলিশ সুপার।

তিনি আরো বলেন ‘জনগণের শান্তি ভঙ্গকারী জনগণের জন্য কোন দিন কোন উপকারে আসেনা, তারা রাষ্ট্রের জন্য ভয়ংকর, আমরা শান্তি চাই এবং কোন অপরাধিকে ছাড় দেইনা, তারা যত বড় ক্ষমতাধর হউক না কেন আইন ভঙ্গ করে সন্ত্রাসীকর্মকান্ড চালানোর জন্য তাদের আইনি অাওতায় এনে শান্তি পেতে হবে।

প্রসঙ্গত, মঙ্গলবার রাতে শিল্পনগরী ছাতকের সুরমা নদীতে নৌ পথে টোল আদায়ের আড়ালে চাঁদাবাজির দন্দে জেলা আওয়ামীলীগের যুগ্ন সম্পাদক ও ছাতক পৌর মেয়র আবুল কালাম চৌধুরী ও তার সহোদর জেলা আওয়ামীলীগের তথ্য ও গবেষণা বিষয়ক সম্পাদক শামীম আহমদ চৌধুরীর সমর্থকদের মধ্যে বন্ধুক যুদ্ধে শাহাবউদ্দিন নামের এক ভ্যান চালক নিহত হন।

এছাড়াও পুলিশ সংঘর্ষ থামাতে গিয়ে বন্দুকের গুলি ইট পাটকেলের আঘাতে ছাতক থানার ওসি গোলাম মোস্তফা, আরো ৬ পুলিশ সদস্য সহ প্রায় অর্ধশত ব্যাক্তিরা রক্তার্থ জখম হন।

পরিস্থিতির নিয়ন্ত্রণ আনতে ২ঘন্টার শ্বাসরুদ্ধকর অভিযান চালায় পুলিশের কয়েকটি ইউনিট। ১৬৩ রাউন্ড শর্টগানের গুলি ৫২ রাউন্ড গ্যাস গানের গুলি বর্ষণ করে পরিস্থিতি অনূকুলে অানে পুলিশ।

সংঘর্ষে লিপ্ত হওয়া ক্ষমতাসীন দলের দুই সহোদরের গ্রুপের ২৮জনকে গ্রেফতার করা হয়। সংঘর্ষ চলাকালে পুলিশের উপর হামলার ঘটনার পরদিন বুধবার থানায় ৯৫ জনের নাম উল্ল্যেখ করে পুলিশ এ্যাসল্ট মামলা দায়ের করা হয়।

এ সময় পুলিশ সুপার অারো বলেন, আমরা কাউকে ছাড় দেবনা, ঘটনায় জড়িতদের বৈধ অস্ত্র অবৈধভাবে ব্যবহার করার দায়ে সকল লাইসেন্স বাতিল করা হবে, অবৈধ কোন অস্ত্র থাকলেও সেগুলো উদ্ধারে আমাদের অভিযান চলবে, জনগনের শান্তি নষ্ট করে কেউ ক্ষমতার দম্ভ দেখিয়ে চলতে পারবেনা, আইন সবার জন্য সমান, এই অভিযানে পরিস্থিতি শান্ত করতে আমাদের ৯জন পুলিশ সদস্য আহত হয়েছিলেন, অন্যরা প্রাথমিক চিকিৎসা নিয়ে ফিরলেও ৭ জন হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছেন।

তিনি আরো বলেন, আমরা ইতিমধ্যে ২৮ জনকে আটক করে কারাগারে পাঠানো হয়েছে অন্যান্য জড়িতদেরও গ্রেফতারে অভিযান চলমান রয়েছে, আপাতত ছাতকে শান্তিপুর্ণ পরিবেশ বিরাজ করছে।

এছাড়া ১৬ মে, ভ্যান চালকের হত্যাকান্ডের ঘটনায় সাহেল উদ্দীন কে প্রদান অাসামি করে ১২ জনের বিরোদ্ধে লিখিত অভিযোগ দায়ের করেন ভ্যান চালকের স্ত্রী।

Print Friendly, PDF & Email

প্রতিদিনের খবর পড়ুন আপনার ইমেইল থেকে
ওপরে