১৪ই নভেম্বর, ২০১৯ ইং ২৯শে কার্তিক, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

samakalnew24
samakalnew24
শিরোনাম:
বগুড়ায় বিপুল পরিমাণ প্রাচীন নকল ধাতব মুদ্রাসহ... স্বরূপকাঠিতে ত্রাণ বিতরণে গৃহায়ন ও গনপূর্তমন্ত্রী —... ঠাকুরগাঁওয়ে অ’সামাজিক কার্যকলাপ বন্ধের দাবিতে... মতলব উপজেলা নির্বাহী অফিসার মো: শাহিদুল ইসলাম শ্রীপুরে স্কুল ছাত্রীর আ’ত্মহ’ত্যা

ঝালকাঠিতে আওয়ামীলীগে অনুপ্রবেশকারী চেয়ারম্যান ও মেম্বার সহ ১৫ জনের তালিকা প্রকাশ

  সমকালনিউজ২৪

মো: ইমাম হোসেন বিমান,ঝালকাঠি ::

ঝালকাঠিতে নব্য আওয়ামীলীগ তথা হাইব্রিড বা অনুপ্রবেশকারী তিন ইউপি চেয়ারম্যান ও ৭জন মেম্বর (ইউপি সদস্য) সহ ১৫ জনের তালিকা প্রকাশ করেছে আওয়ামীলীগ।

বিভিন্ন দল থেকে এসে আওয়ামীলীগ ও তার অংঙ্গ সংগঠনে অনুপ্রবেশের মাধ্যমে রাজনৈতিক ফায়দা হাসিল সহ রাজনৈতিক ব্যানার ব্যবহার করে দলীয় কোন্দল, অরাজকতা সৃষ্টি ঠেকাতে আওয়ামীলীগে শুদ্ধি অভিযানের ধারাবাহিকতার প্রভাব এবার ঝালকাঠিতে। আর এই অ’ভিযানের তালিকায় নব্য  আওয়ামীলীগ তথা হাইব্রিড বা অনুপ্রবেশকারীর বাছাইয়ে ঝালকাঠি জেলার ঝালকাঠি-নলছিটি ২ আসনের তালিকা প্রকাশ করেছে আওয়ামীলীগ। আর এ তালিকায় ঝালকাঠি সদর ও নলছিটি উপজেলার তিনজন ইউপি চেয়ারম্যান ও সাতজন মেম্বর সহ মোট ১৫ জনের একটি তালিকা প্রকাশ করেছে।

তালিকাভুক্ত তিনজন চেয়ারম্যান হলো ঝালকাঠি সদর উপজেলা আওয়ামীলীগ এর যুগ্ন সাধারন সম্পাদক এবং ইউনিয়ন আওয়ামীলীগ এর সভাপতি ও বর্তমান সদর উপজেলাধীন ৮নং ধানসিঁড়ি ইউপি চেয়ারম্যান এ কে এম জাকির হোসেন। যিনি অনুপ্রবেশের পূর্বে সদর উপজেলা বিএনপির যুগ্ন সাধারন সম্পাদক ও ইউনিয়ন বিএনপির সভাপতি ছিলেন। বর্তমান নলছিটি উপজেলা আওয়ামীলীগ এর সাংগঠনিক সম্পাদক ও ৩ নং কুলকাঠি ইউপি চেয়ারম্যান এইচ এম আখতারুজ্জামান বাচ্চু। যিনি অনুপ্রবেশের পূর্বে ছিলেন পৌর সভাপতি বাংলাদেশ ছাত্র শিবির নলছিটি এবং পরবর্তী তে জামাত ইসলাম এর সাথী সদস্য,ও ফ্রিডম পার্টির উপজেলা সভাপতি। বর্তমান ২ নং মগড় ইউনিয়ন আওয়ামী লীগ সেক্রেটারি এবং ইউপি চেয়ারম্যান মো : এমানুল হক শাহীন। যিনি অনুপ্রবেশের পূর্বে ছিলেন জাতীয় পার্টির ইউনিয়ন সভাপতি ছিলেন।

তালিকাভুক্ত সাতজন ইউপি সদস্যদের মধ্যে একই ইউনিয়নে চার জন ইউপি সদস্য অপর আরেক ইউনিয়নের তিন জন। আর তারা হলেন, ৪ নং কেওড়া ইউনিয়ন আওয়ামীলগের সেক্রেটারি,এবং ৪ নং কেওড়া ইউনিয়নের বর্তমান ইউপি সদস্য
শাহ আলম মীর বহর। অনুপ্রবেশের পুর্বে ছিলেন বিএনপি কর্মী।

৪ নং কেওড়া ইউনিয়ন আওয়ামীলীগ এর সাধারন সম্পাদক ইউনিয়নের বর্তমান ৭ নং ওয়ার্ড মেম্বর। অনুপ্রবেশের পুর্বে ছিলেন ইউনিয়ন বিএনপির সাংগঠনিক সম্পাদক।

৪নং কেওড়া ইউনিয়নের বর্তমান ওয়ার্ড আওয়ামীলীগ সাধারন সম্পাদক, এবং বর্তমান ৫ নং ওয়ার্ডের ইউপি সদস্য মাসুম হাওলাদার যিনি অনুপ্রবেশের পূর্বে ছিলেন, কেওড়া ইউনিয়ন বিএনপির ৫ নং ওয়ার্ডের সাংগঠনিক সম্পাদক।

৪ নং কেওড়া ইউনিয়ন আওয়ামীলীগ এর গ্রাম বিষয়ক সম্পাদক ও ৩ নং ওয়ার্ডের ইউপি সদস্য জাকির হোসেন তালুকদার যিনি অনুপ্রবেশের পুর্বে ছিলেন একই ওয়ার্ডের বিএনপির সাধারন সম্পাদক।

নলছিটি উপজেলার গোবিন্দপুর গ্রামের ইউপি সদস্য ও বর্তমানে ইউনিয়ন আওয়ামীলগ সদস্য মাহবুব আলম আকন। যিনি অনুপ্রবেশের পুর্বে ছিলেন বিএনপির কর্মী।

নলছিটি উপজেলার নাচনমহল ইউনিয়ন যুবলীগ সভাপতি ও নাচনমহল ইউপি সদস্য আনোয়ার হোসেন যিনি অনুপ্রবেশের পূ্র্বে ছিলেন বিএনপির যুবদলের সদস্য।

নলছিটি উপজেলার নাচনমহল ইউনিয়ন আওয়ামীলীগ কর্মী ও নাচনমহল ইউপি সদস্য জলিল হাওলাদার যিনি অনুপ্রবেশের পুর্বে বিএনপির কর্মী ছিলেন।

এছাড়াও অপর ৫জন হলেন খাগড়াখানা গ্রামের মিজান খলিফা বর্তমান আওয়ামী লীগ কর্মী যিনি অনুপ্রবেশের পূর্বে ছিলেন ওয়ার্ড যুবদলের সাধারন সম্পাদক।

হারদল গ্রামের আল আমিন হাওলাদার বর্তমান আওয়ামীলীগ কর্মী যিনি অনুপ্রবেশের পুর্বে ছিলেন, স্বেচ্ছাসেবক দলের ইউনিয়ন সাধারন সম্পাদক।

গোবিন্দপুর গ্রামের এম এ নান্না মিয়া বর্তমান ইউনিয়ন আওয়ামীলীগ এর সাংগঠনিক সম্পাদক যিনি অনুপ্রবেশের পুর্বে ছিলেন, ইউনিয়ন বিএনপির স্বেচ্ছাসেবক দলের সভাপতি।

ডেবরা গ্রামের মামুন হাওলাদার বর্তমান ইউনিয়ন যুবলীগ সদস্য যিনি অনুপ্রবেশের পূর্বে ছিলেন, জামায়েত ইসলামী সদস্য।

ডেবরা গ্রামের বশির হাওলাদার বর্তমান আওয়ামীলীগ কর্মী যিনি অনুপ্রবেশের পুর্বে ছিলেন বিএন পির কর্মী।

এ বিষয় আওয়ামীলীগের একাধিক ত্যাগী কর্মীরা জানান, সরকার ক্ষমতায় আসার পরে এরা দল বদল করে আওয়ামী লীগে যোগ দিয়ে গুরুত্বপূর্ণ পদ দখল করে রয়েছে। জন্ম থেকে যারা আওয়ামী লীগ দল করছে তারা কিছুই পাইনি। তাদের কোনঠাসা করে রাখা হয়েছে বলে একাধিক কর্মীরা জানিয়েছেন।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এক আওয়ামী লীগ কর্মী জানান ,আমরা ছোটবেলা থেকে দল করে কিছুই পাইনি। যারা নব্য হাইব্রিড আওয়ামীলীগে যোগ দিয়ে টাকার কুমির হয়েছে। তাদের কাছে আমাদের কোন মূল্য নেই। আমরা দলকে ভালোবেসে বঙ্গবন্ধুর আদর্শকে বুকে নিয়ে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে দল করি। আমরা অনুপ্রবেশকারীর দলের নয়। সারাজীবন দল করে আমরা সঠিক মূল্যায়ন পাইনি। যেদিকে তাকাই দেখা যায় অনুপ্রবেশকারী সংখ্যা বেশি।

মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর কাছে আমাদের অনুরোধ এই অনুপ্রবেশকারীদের হটিয়ে জন্ম থেকে যারা আওয়ামী লীগ দলকে ভালোবাসে দলের দুঃসময়ে মাঠে ছিল তাদের সঠিকভাবে তদন্ত করে মূল্যায়ন করার জন্য অনুরোধ করছি।

 

 

‘বিদ্রঃ সমকালনিউজ২৪.কম একটি স্বাধীন অনলাইন পত্রিকা। সমকালনিউজ২৪.কম এর সাথে দৈনিক সমকাল এর কোন সম্পর্ক নেই।’

প্রতিদিনের খবর পড়ুন আপনার ইমেইল থেকে
ঝালকাঠি বিভাগের সর্বশেষ
ওপরে