২৪শে ফেব্রুয়ারি, ২০২০ ইং ১২ই ফাল্গুন, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

samakalnew24
samakalnew24
শিরোনাম:
বগুড়ায় বিপুল পরিমান ই’য়াবাসহ গ্রে’ফতার ২ নোয়াখালীর অসহায় ও নিরীহ মানুষের জন্য একজন... স্পেনের রাজধানী মাদ্রিদে আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস... রাজারহাটে বিপুল উৎসাহ ও উদ্দীপনায় অনুষ্ঠিত হলো... চিলমারীতে ৩০০পিচ ই’য়াবাসহ মা’দক সম্রাট মিনহাজুল...

‘দেওয়ানবাগী বেঁচে নেই, মৃত্যুর প্রমাণ আছে’

 অনলাইন ডেস্ক। সমকালনিউজ২৪

রাজধানীর আরামবাগে দেওয়ানবাগ শরীফের কথিত পীর মাহবুব-এ খোদা ওরফে দেওয়ানবাগী বেঁচে নেই বলে জানিয়েছেন বিশিষ্ট আলেম আতিকুর রহমান নান্নু মুন্সি। শুধু তাই নয়, দেওয়ানবাগীর মৃত্যু সংক্রান্ত তথ্য-প্রমাণ তার কাছে রয়েছে বলেও দাবি করেছেন।

একইসঙ্গে কেউ দেওয়ানবাগীকে জনসম্মুখে হাজির করতে পারলে তাকে নগদ ১০ লাখ টাকা পুরস্কার দেয়া হবে বলেও ঘোষণা করেছেন নান্নু মুন্সি।

বৃহস্পতিবার রাতে নারায়ণগঞ্জ সিদ্ধিরগঞ্জের হিরাঝিল হাজি রজ্জব আলী সুপার মার্কেট এলাকায় জামিয়াতু ইবরাহীম দারুল উলুম মাদ্রাসা আয়োজিত ইসলামী সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব দাবি করেন।

নান্নু মুন্সি অনৈসলামিক কার্যকলাপ প্রতিরোধ কমিটির কেন্দ্রীয় আমিরের দায়িত্বে রয়েছেন। দেওয়ানবাগীকে নিয়ে নারায়ণগঞ্জের সুপরিচিত এই আলেমের বক্তব্য শনিবার সকাল থেকে জেলায় নানা আলোচনার জন্ম দিয়েছে।

দেওয়ানবাগীকে ‘ভণ্ড পীর’ আখ্যায়িত করে নান্নু মুন্সি বলেন, ‘দেওয়ানবাগী আর বেঁচে নেই। আমার কাছে তার মৃত্যুর প্রমাণ আছে। আমার কথা বিশ্বাস না করলে, এই মঞ্চ থেকে ঘোষণা করছি— কেউ যদি তাকে জনসম্মুখে হাজির করতে পারেন, আমি নগদে ১০ লাখ টাকা পুরস্কার দেব।’

অনৈসলামিক কার্যকলাপ প্রতিরোধ কমিটির কেন্দ্রীয় আমির আতিকুর রহমান নান্নু মুন্সি

এ সময় তিনি দেওয়ানবাগীকে বাদ দিয়ে তার অনুসারিদের ইসলামের পথে আসারও আহ্বান জানান।

নান্নু মুন্সি ঘোষণা দেন, ‘তাবলিগ জামাতের মুরুব্বি দিল্লির মাওলানা সা’দ দখলদার ইহুদী ইসরাইলের দালাল। দেওবন্দ মাদ্রাসার আলেমরা ইসলামের সঠিক পথে আছেন। আমিও তাদের সঙ্গে আছি।’

উল্লেখ্য, দেওয়ানবাগীর আসল নাম মাহবুব-এ খোদা। তিনি ১৯৪৯ সালের ১৪ ডিসেম্বর ব্রাহ্মণবাড়িয়ার আশুগঞ্জ উপজেলার বাহাদুরপুর গ্রামে জন্মগ্রহণ করেন। বাবার নাম সৈয়দ আবদুর রশিদ সরদার। মা সৈয়দা জোবেদা খাতুন। ছয় ভাই, দুই বোনের মধ্যে তিনি সবার ছোট।

নিজ এলাকার তালশহর কারিমিয়া আলিয়া মাদ্রাসা থেকে ফাজিল পর্যন্ত পড়াশুনা করেন মাহবুব-এ খোদা। পরে ফরিদপুরে চন্দ্রপাড়া দরবারের প্রতিষ্ঠাতা আবুল ফজল সুলতান আহমেদ চন্দ্রপুরীর হাতে বাইয়াত নেন। এরপর পীরের মেয়ে হামিদা বেগমকে বিয়ে করেন দেওয়ানবাগী এবং শ্বশুরের কাছ থেকে খেলাফত লাভ করেন।

সেখান থেকে নিজেই নারায়ণগঞ্জে এসে দেওয়ানবাগ নামক স্থানে একটি আস্তানা গাড়েন এবং সুফি সম্রাট পরিচয় দিতে থাকেন মাহবুব-এ খোদা। আস্তে আস্তে তার অনুসারি বাড়তে থাকে। এক পর্যায়ে মতিঝিলের ১৪৭ আরামবাগে স্থায়ী দরবার গড়ে কার্যক্রম পরিচালনা করছেন দেওয়ানবাগী।

নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশনের (নাসিক) ১নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর ওমর ফারুকের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে ইসলামী সঙ্গীত পরিবেশন করেন ‘জাগ্রত কবি’ আল্লামা মুহিব খান, কলরব শিল্পীগোষ্ঠীর আবু সুফিয়ান, ইসহাক আলমগীর, আহমাদ আবু জাফর, রেজাউল করিম, আব্দুল হাকিম সাদি, নবডাক সাংস্কৃতিক ফোরামের পরিচালক শিল্পী মুখতার হোসাইন উসমানী প্রমুখ।

অনুষ্ঠানে অন্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন, অনৈসলামিক কার্যকলাপ প্রতিরোধ কমিটির কেন্দ্রীয় মহাসচিব মাওলানা শেখ সাদি, জামিয়াতু ইবরাহীম দারুল উলুম মাদ্রাসার পরিচালক আব্দুল্লাহ মুহাম্মদ নোমান ইবরাহীম, মাওলানা আবুল বাসার, হাজি রজ্জব আলী সুপার মার্কেটের পরিচালক আহমেদ আলী প্রমুখ।

প্রতিদিনের খবর পড়ুন আপনার ইমেইল থেকে
ওপরে