২১শে সেপ্টেম্বর, ২০১৯ ইং ৬ই আশ্বিন, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

samakalnew24
samakalnew24
শিরোনাম:
চাঁদপুরে ইলিশের আমদানী বাড়লেও দাম না কমায় হতাশ ক্রেতারা আত্রাইয়ে পানিতে ডুবে মাদ্রাসা ছাত্রীর মৃ’ত্যু; ১৯... পাইকগাছায় ভুয়া ঠিকানা দিয়ে বিয়ে করে দুই লক্ষ টাকা... বাল্যবিবাহ-ই’ভটিজিং-স’ন্ত্রাস ও মা’দক প্রতিরোধে... বরগুনায় ৬ষ্ট শ্রেনীর মাদরাসা ছাত্রীকে ধর্ষণের চেষ্টার ...

নারী নির্যাতন মামলায় জেলে থেকে ১ মাস অনুপস্থিত শার্শার ডিএসটি মাধ্যমিক স্কুলের শিক্ষক

 রাসেল ইসলাম, বেনাপোল প্রতিনিধি। সমকালনিউজ২৪

শার্শার ডি,এস,টি মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষক শাহাজুল ইসলাম নারী নির্যাতন ও যৌতুক মামলায় প্রায় ১ মাস জেলে থেকে স্কুলে অনুপস্থিত থাকার অভিযোগ পাওয়া গেছে। স্কুলের ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি আবুল কালাম বিশ্বাস তার এ অপকর্মকে ঢাকার জন্য কোন ব্যবস্থা গ্রহন করছে না বলে ও ঐ স্কুলের দায়িত্বশীল শিক্ষকের ও অভিযোগ।

বুধবার সরেজমিনে ঐ স্কুলে মাস ব্যাপি অনুপস্থিত থাকার বিষয় জানতে গেলে স্কুলের ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি আবুল কালাম বিশ্বাস বলেন, তার স্ত্রী তার নামে মামলা করেছে তার কারনে সে জেল হাজতে গেছে। এর জন্য প্রায় সে এক মাস অনুপস্থিত রয়েছে। এস এসসি পরীক্ষার জন্য প্রধান শিক্ষক ব্যাস্ত থাকায় তার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হয়নি। আগামীকাল মিটিং আছে সেখানে ব্যবস্থা নেওয়া হবে। তবে সে আজ জামিনে মুক্তি পেয়েছে। স্কুলের দায়িত্বশীল সুত্র নাম প্রকাশ না করার শর্তে বলেন, আমরা ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি কালাম এর জন্য ব্যবস্থা নিতে পারছি না। কালাম শাহজুলকে বাঁচানোর জন্য কোন মিটিং করছে না। এর আগে দুইবার মিটিং দেওয়া হয়েছে কিন্তু সভাপতি তাকে বাঁচানোর জন্য এড়িয়ে যায়। স্কুলের প্রধান শিক্ষক হবিবর রহমান বিষয়টি ম্যানেজিং কমিটির ভয়ে কৌশলে এড়িয়ে যেয়ে বলেন, শাহজুলের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা ব্যাস্ততার কারনের জন্য নেওয়া হয়নি। তবে আগামীকাল মিটিং আছে ঐ মিটিংয়ে তাকে শোকজ করা হবে। তিনি সহ আরো কয়েকজন শিক্ষক বলেন শাহজুলের স্ত্রীর পরকীয়া প্রেম থাকায় সে তার স্ত্রীকে তালাক দেয় যার ফলে তার স্বামীর নামে মামলা করে। আর এ মামলায় শাহজুল গত ১০/০২/১৯ তারিখে সাতক্ষীরা আদালতে আটক হয়ে জেল খানায় যায়।

শাহজুলের স্ত্রী চামেলী খাতুনের নিকট ফোনে বিষয়টি জানতে চাইলে তিনি বলেন আমার নিকট ৫ লাখ টাকা যৌতুক দাবী করে। আমি টাকা না দিতে পারায় আমাকে প্রায় আমার স্বামী শারীরীক নির্যাতন করে; এবং আমাকে তালাক প্রদান করে। যার জন্য আমি আদালতে মামলা করতে বাধ্য হয়েছে।

শাহজুলের গ্রামের বাড়ি জামতলা স্কুলের পাশে ট্যাংরা গ্রামে যেয়ে জানতে চাইলে তার বাবা হামিদ এবং ভাবীরা জানায় শাহজুলের স্ত্রী একজন চরিত্রহীন মানুষ। সে বিবাহীত হওয়া সত্বেও অন্য ছেলের সাথে সম্পর্ক করে এবং বাবার বাড়িতে যেয়ে তার সাথে সময় ব্যায় করে। এ কথা বলতে বলতে তার ভাবী শাহজুলের বিয়ের একটি ছবি এনে দেখায় । সেখানে শাহজুল এবং তার স্ত্রী ও তার কথিত প্রেমিকের ছবি এক সাথে বাঁধানো।

প্রতিদিনের খবর পড়ুন আপনার ইমেইল থেকে
যশোর বিভাগের সর্বশেষ
যশোর বিভাগের আলোচিত
ওপরে