৩রা এপ্রিল, ২০২০ ইং ২০শে চৈত্র, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

samakalnew24
samakalnew24
শিরোনাম:
টাকার অভাবে খাবার কিনতে পারছেন না,প্রতিবেশীদের কাছে... করোনা পরিস্থিতিতে আর্তমানবতার সেবায় এগিয়ে এলেন জসিম... মহিপুরে হতদরিদ্রদের মাঝে কোষ্টগর্ডের খাবার সামগ্রী... বালিয়াডাঙ্গীতে ৩ ঘন্টা নিত্য প্রয়োজনীয় দোকান খোলা... জামালপুরে ১০০ মেগাওয়াট পাওয়ার প্লান্টের ভেতরে বিদ্যুৎ...

নোয়াখালীতে ভুয়া বিদ্যুৎ বিল-মিটারসহ চাকুরীচ্যুত মিটার রিডার আ’টক

  সমকালনিউজ২৪

এইচ.এম আয়াত উল্যা, নোয়াখালী প্রতিনিধি ::

নোয়াখালী জেলা শহর মাইজদীর নতুন জেলখানা রোড এলাকায় অভিযান চালিয়ে নাছির উদ্দিন (৩১) নামে বিদ্যুৎ অফিসের একজন মিটার রিডারকে আ’টক করেছে গোয়েন্দা পুলিশ ডিবি।

এ সময় তার কাছ থেকে বিপুল পরিমাণ ভুয়া বিদ্যুৎ বিল, মিটার, বিভিন্ন কর্মকর্তার সিল, একটি কম্পিউটার একটি প্রিন্টার জব্দ করা হয়। মঙ্গলবার ( ১৮ ফেব্রুয়ারি) দুপুরের দিকে বাংলাদেশ বিদ্যুৎ উন্নয়ন বোর্ড নোয়াখালী কার্যালয়ের পাশের একটি ভবন থেকে তাকে আ’টক করা হয়েছে।

স্থানীয় সূত্র জানায়, বাংলাদেশ বিদ্যুৎ উন্নয়ন বোর্ড নোয়াখালীতে অস্থায়ী ভিত্তিতে নিয়োগ পাওয়া একাধিক সদস্য (মিটার রিডার) দীর্ঘদিন ধরে জেলা শহরের বিভিন্ন বাসা/বাড়ী থেকে বিদ্যুৎ অফিস থেকে প্রদত্ত মূল মিটার খুলে নিয়ে তাদের কাছে থাকা নকল মিটার লাগিয়ে দিতো। চক্রটি অফিসের কাগজপত্রে বিপিডিবি উপ-সহকারি প্রকৌশলী, সহকারি প্রকৌশলী ও নির্বাহী প্রকৌশলীর স্বাক্ষর জাল করতো।

এ ছাড়াও তারা বিদ্যুৎ বিলের মূল কপিগুলো অফিস থেকে কৌশলে সরিয়ে নিয়ে কর্মকর্তাদের স্বাক্ষর জাল করে জাল বিল তৈরি করে গ্রাহকের কাছ থেকে নগদ টাকা নিয়ে আসছিল।

মঙ্গলবার দুপুরে গোপন সংবাদের ভিত্তিতে খবর পেয়ে জেলা গোয়েন্দা পুলিশ বাংলাদেশ বিদ্যুৎ উন্নয়ন বোর্ড নোয়াখালী কার্যালয়ের পাশের একটি ভবনের নিচ তলার একটি কক্ষে অভিযান চালায়। এ সময় বিপুল পরিমান ভূয়া বিদ্যুৎ বিল, মিটার, বিভিন্ন কর্মকর্তার সিল, একটি কম্পিউটার একটি প্রিন্টারসহ বিভিন্ন অনিয়মের অভিযোগে বিদ্যুৎ অফিস থেকে চাকরিচ্যুত মিটার রিডার নাছির উদ্দিনকে আ’টক করে।

বাংলাদেশ বিদ্যুৎ উন্নয়ন বোর্ড জেলা নির্বাহী প্রকৌশলী নুরুল আমিন জানান, গত ৪ ফেব্রুয়ারি তিনি একজন গ্রাহকের মিটার পরিবর্তনের জন্য কাগজপত্র চেক করতে গিয়ে তিনি সহ বাকী কর্মকর্তাদের জাল স্বাক্ষর দেখতে পান। ওইদিন এ ঘটনায় মিটার রিডার হানিফকে আ’টক করে পুলিশে সোপর্দ করেন তারা। এই ঘটনায় ৫ ফেব্রুয়ারি হানিফের বি’রুদ্ধে সুধারাম থানায় একটি মা’মলা দায়ের করা হয়।

আটককৃত নাছিরকে গ্রাহকদের কাছ থেকে পাওয়া লিখিত অভিযোগের ভিত্তিতে গত জানুয়ারিতে চাকুরি থেকে চাকরিচ্যুত করা হয়। জেলা পুলিশ সুপার (এসপি) মো. আলমগীর হোসেন জানান, জিজ্ঞাসাবাদে নাছির অবৈধভাবে গ্রাহকের মিটার পরিবর্তন, কর্মকর্তাদের স্বাক্ষর জাল করে জাল বিল তৈরি চক্রের সাথে জড়িত বলে স্বীকার করেছে।

এ চক্রে নাছির ছাড়াও একাধিক ব্যাক্তি জড়িত থাকার তথ্য পাওয়া গেছে। তাদের বি’রুদ্ধেও পদক্ষপ নেওয়া হবে।

প্রতিদিনের খবর পড়ুন আপনার ইমেইল থেকে
নোয়াখালী বিভাগের সর্বশেষ
নোয়াখালী বিভাগের আলোচিত
ওপরে