২১শে জুন, ২০১৯ ইং ৭ই আষাঢ়, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

samakalnew24
samakalnew24
শিরোনাম:
বালিয়াডাঙ্গীতে ৬ষ্ঠ শ্রেণীর ছাত্রীকে ধর্ষণের চেষ্টা ডাক্তারকে মারধর করায় বরগুনায় চিকিৎসা সেবা বন্ধ আমতলীতে ৭০ পিচ ইয়াবাসহ গ্রেফতার দুই বেনাপোলে পল্লী টিভির পরিচয় দিয়ে চাঁদাবাজির অভিযোগে... উলঙ্গ অবস্থায় পাটক্ষেতে পড়ে ছিল ৪ বছরের শিশু, মাকে দেখেই...

প্রেমের ফাঁদে ফেলে ধর্ষণ মামলার পলাতক আসামীকে গ্রেপ্তার

 রাজশাহী প্রতিনিধি সমকাল নিউজ ২৪

রাজশাহীর বাগমারা থানার পুলিশ ধর্ষণের ঘটনায় করা মামলার পলাতক আসামীকে প্রেমের ফাঁদে ফেলে গ্রেপ্তার করেছে ।

একজন নারী পুলিশ সদস্য মুঠোফোনে দেড় মাস ধরে ধর্ষণ মামলার আসামীর সঙ্গে প্রেমের অভিনয় করে দেখা করার কথা বলে ডেকে আনার পর গ্রেপ্তার করা হয় তাঁকে। ওই আসামীর নাম আবুল কালাম আজাদ (২৭)। তিনি উপজেলার শুভডাঙ্গা ইউনিয়নের সৈয়দপুর গ্রামের বাসিন্দা।

বাগমারা থানার উপপরিদর্শক সৌরভ কুমার চন্দ্র বলেন, গত ১৫ এপ্রিল বখাটে আবুল কালাম আজাদ এলাকার এক নারীর ঘরে ঢুকে ধর্ষণ করেন বলে অভিযোগ রয়েছে। একপর্যায়ে ওই নারীর চিৎকার শুরু করলে আশপাশের লোকজন ঘটনাস্থলে ছুটে আসেন। এর আগেই আবুল কালাম আজাদ পালিয়ে যান। পরের দিন ওই নারী বাদী হয়ে থানায় ধর্ষণের অভিযোগে একটি মামলা করেন। ঘটনার পর থেকে তিনি পলাতক ছিলেন। নানাভাবে তাঁকে গ্রেপ্তারের চেষ্টা চালিয়ে ব্যর্থ হয় পুলিশ।

তিনি আরো বলেন, আসামীকে গ্রেপ্তারে তিনি থানার একজন নারী পুলিশ সদস্যকে দিয়ে আবুল কালাম আজাদকে প্রেমের ফাঁদে ফেলেন। দেড় মাস ধরে নারী পুলিশ সদস্য তাঁর সঙ্গে প্রেমের অভিনয় করেন। শুক্রবার (৭ জুন) দুপুরে উভয়ে মোহনপুর থানার সীমান্তবর্তী হাসনাবাদ এলাকায় দেখা করার দিনক্ষণ ঠিক করেন। তাঁরা কী ধরনের পোশাক পরবেন, সেটাও আলাপ হয় মুঠোফোনে। পোশাক দেখে পরস্পরকে চেনা যাবে বলেও ঠিক হয়। বেলা একটার দিকে মামলার তদন্ত কর্মকর্তা সৌরভ কুমার চন্দ্র নারী কনস্টেবলকে নিয়ে নির্ধারিত স্থানে হাজির হন। সাদা পোশাকে থাকা মামলার তদন্ত কর্মকর্তাও ওত পেতে থাকেন। পোশাক দেখে চিনে আসামী নারী কনস্টেবলের কাছে এসে গল্প শুরু করলে তাঁকে ধরে ফেলে পুলিশ।

থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আতাউর রহমান বলেন, আসামী ধরতে পুলিশকে বিভিন্ন কৌশল অবলম্বন করতে হয়। এতে পুলিশের ঝুঁকিও থাকে।

Print Friendly, PDF & Email

প্রতিদিনের খবর পড়ুন আপনার ইমেইল থেকে
ওপরে