২৮শে ফেব্রুয়ারি, ২০২০ ইং ১৬ই ফাল্গুন, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

samakalnew24
samakalnew24
শিরোনাম:
শিকলে বন্দি দিন কাটছে মানসিক প্রতিবন্ধি মেধাবী... জাতীয় পর্যায়ে স্বাধীনতা পুরষ্কার পাচ্ছেন টাঙ্গাইলের... মেলার মধ্য দিয়ে চাঁদপুর আরো উন্নয়নের ধারাবাহিকতায়... নোয়াখালীতে এতিম বিলকিছের বিয়ে দিলো পুনাক বরগুনার দুই টি ইটভাটাকে ৪০ লাখ টাকা জরিমানা

বরগুনার আমতলী আরো একটি স্কুল ভবনের ছাদ ও ভীমের একাংশ ভেঙ্গে পরেছে

 মোঃআসাদুজ্জামান,বরগুনা সমকালনিউজ২৪

বরগুনার আমতলী উপজেলার হলদিয়া ইউনিয়নের দক্ষিন তক্তাবুনিয়া জগৎচাদ সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শ্রেণিকক্ষের ছাদের একাংশ ও ভীম ভেঙ্গে পড়েছে। বুধবার সকাল ৯টার সময় ক্লাস চলাকালে এ ঘটনাটি ঘটেছে। তবে অল্পের জন্য বেঁচে গেছেন শিক্ষার্থীরা। বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মো. শহিদুল্লাহ জানান, ৪র্থ শ্রেণির কক্ষে ছাদের একাংশ ও ভিম ধসের ঘটনা ঘটছে।

সকালে ওই শ্রেণিতে প্রাক প্রাথমিকের শিক্ষার্থীদের পাঠদান চলছিল। এমন সময় ভীম ধ্বসে পরতে দেখে ছাত্রছাত্রী ও শিক্ষক দৌড়ে নেমে যান শ্রেনী কক্ষ থেকে। চার কক্ষের স্কুলটির একটি অফিস ও অপর তিনটি শ্রেণী কক্ষ হিসেবে ব্যবহার করা হয়। প্রতিটি কক্ষের ভীমে ফাটল ধরেছে। ছাদ ধ্বসে পলেস্তারা খসে পরছে। এ অবস্থায় ছাত্র ছাত্রীদের ঠিকমত পাঠ দান করানো যাচ্ছেনা।

ভবনের ছাদ ও দেয়াল থেকে পলেস্তারা ধ্বসে পড়ায় ও পানি চুইয়ে পড়ায় শিক্ষক ও শিক্ষার্র্থীদের ভয় ও আতংকের মধ্যে ক্লাস করতে হয়। বিদ্যালয় সূত্রে জানা গেছে, ২০০১-০২ সালে এলজিইডির অর্থায়নে প্রায় ৮ লাখ টাকা ব্যয়ে স্কুল ভবন নির্মান করা হয়। ভবন নির্মানের দীর্ঘদিন অতিবাহিত হলেও কোনো সংস্কার না করায় ভবনটি ব্যবহারের অযোগ্য হয়ে পরেছে। বর্তমানে শিক্ষকরা জরাজীর্ন ভবনে বসে ক্লাশ ও পরীক্ষা কার্যক্রম চালাচ্ছে।

বর্তমানে বিদ্যালয়টিতে প্রায় দেড় শতাধিক শিক্ষার্থী রয়েছে। বৃষ্টি এলে শিক্ষার্থীরা বই পত্রসহ দৌড়ে আশে পাশের বাড়ির বারান্দায় আশ্রয় নেয়। স্কুলের ৫ ম শ্রেনীর শিক্ষার্থী অনিক, তুষার, ও চাঁদনী জানিয়েছেন তাদের কষ্টের আর শেষ নেই। তারা বৃষ্টিতে ভিজে আর রৌদ্রে শুকিয়ে লেখাপড়া করে।

বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মো. শহিদুল্লাহ জানান, বিদ্যালয় ভবনটি স্থাপনের পর কোনো সংস্কার না করায় বর্তমানে ব্যবহারের অনুপযোগী হয়ে পড়েছে। ভবনটি সংস্কারের জন্য উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের নিকট অনেক বার আবেদন করা হয়েছে কিন্তু কোনো কাজ হচ্ছে না।

আমতলী উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তা মো. মজিবুর রহমান জানান বিষয়টি উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষকে জানিয়ে দ্রæত গতিতে ব্যবস্থা নেয়া হবে।

আমতলী উপজেলা নির্বাহী অফিসার মো. সরোয়ার হোসেন জানান, ঝুকিপূর্ন শ্রেনী কক্ষে পাঠদান বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে।

প্রতিদিনের খবর পড়ুন আপনার ইমেইল থেকে
বরগুনা বিভাগের আলোচিত
ওপরে