২২শে নভেম্বর, ২০১৯ ইং ৭ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

samakalnew24
samakalnew24
শিরোনাম:
আমাকে হ’ত্যা করতে চেয়েছিল আল্লাহর রহমতে জনগণের দোয়ায়... ঠাকুরগাঁওয়ে এক কেন্দ্রেই ৪৬ জন ভুয়া পরীক্ষার্থী মা’দক দেশ ও সমাজকে ধ্বংস করে: নওগাঁয় খাদ্যমন্ত্রী বগুড়ায় সব সবজির দাম ঊর্ধ্বমুখী বানারীপাড়ায় ওসি খলিলুর রহমানের বিদায় সংবর্ধনা

বাগমারায় কথিত নারীসহ যুবক আটকের পর ভ্রাম্যমান আদালতে মুক্তি

 নিজস্ব প্রতিবেদক: সমকালনিউজ২৪

রাজশাহীর বাগমারা উপজেলায় কথিত নারীসহ যুবক আটকের পর ভ্রাম্যমান আদালতে মুক্তি দেওয়া হয়েছে। শনিবার দুপুরে উপজেলার সদর ভবানীগঞ্জ নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেটের ভ্রাম্যমান আদালতে তাদের বিরুদ্ধে নারী ঘটিত কোনো অভিযোগ প্রমানিত না হওয়ায় তাদের মুসলিকা লেখে নিয়ে ছেড়ে দেওয়া হয়।

পুলিশ ও এলাকাবাসি সুত্রে জানাগেছে, উপজেলার তাহেরপুর পৌরসভার মেয়র আবুল কালাম আজাদের গানম্যান ও জামগ্রামের আব্দুল জলিলের ছেলে এরশাদ আলী শুক্রবার রাতে ভবানীগঞ্জ পৌরসভার চাঁনপাড়া মহল্লার জনক প্রবাসীর স্ত্রী আক্তার বানুকে ধরে ফেলে এলাকাবাসী। পরে তারা পুলিশে খবর দিলে পুলিশ ঘটনাস্থলে এসে আক্তার বানুসহ এরশাদ আলীকে আটক করে থানায় নেয়। এদিকে, এরশাদ আলী কয়েক বছর যাবত থেকে প্রবাসীর স্ত্রীকে ধর্ম বোন বানায়।

এবং সেই সম্পর্কের জের ধরে তার বাড়িতে আসা যাওয়া চলে এরশাদের। এটা নিয়ে এলাকাবাসীর মনে সন্দেহ বাসা বাধে। শুক্রবার রাতে এরশাদ প্রবাসীর স্ত্রী আক্তার বানুর চাঁনপাড়া মহল্লার বাড়িতে আসলে এলাকাবাসী তাদেরকে হাতেনাথে ধরে পুলিশে দেয়। অপরদিকে, ঘটনা যাতে অন্যদিকে না যায় সে জন্য প্রবাসীর স্ত্রী আক্তার বানু সবাইকে বলে যে এরশাদ আমার ধর্ম ভাই। সে আমার কাছ থেকে হাজার হাজার টাকা ধার নিয়েছিল সেই টাকা আমার প্রয়োজন তাই সেটা দিতে এসেছে।

এই ঘটনার পরও পুলিশ তাদেরকে ধরে থানায় নেয় বলে তিনি অভিযোগ করেন। এবং শনিবার তাদেরকে ভ্রাম্যমান আদালতে হাজির করা হলে ভ্রাম্যমান আদালতের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট উপজেলা নির্বাহী অফিসার তাদের এবং স্থানীয় লোকজনের জবানবন্দী নেয়। এসময় জবানবন্দী শোনার পর তাদেরকে বেকুসুর খালাসের রায় প্রদান করেন এবং এরকম ভাবে যেন রাতে প্রবাসীর স্ত্রী বা পাতানো বোনের কাছে না যায় সে কারনে মুসলেখা নিয়ে ছেড়ে দেন। এবিষয়ে বাগমারা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা আতাউর রহমান জানান, আমরা জানতে পারি এক প্রবাসীর স্ত্রীর ঘরে একজন ছেলে ঢুকেছে এই ঘটনায় স্থানীয়রা তাকে ধরে ফেলেছে। খবরটি পুলিশে জানতে পারলে পুলিশ গিয়ে তাদেরকে সেখান থেকে উদ্ধার করে থানায় নিয়ে আসেন।

এবং শনিবার তাদেরকে ভ্রাম্যমান আদালতে হাজির করা হয়। এব্যাপারে ভ্রাম্যমান আদালতের নিবার্হী ম্যাজিস্ট্রেট উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা জাকিউল ইসলাম জানান, এটা যেহেতু নারী ঘটিত ব্যাপার। তারপরও ওই মহিলার স্বামী প্রবাসে থাকেন তাই বিষয়টি সুষ্ঠু ভাবে স্বাক্ষ্য প্রমানের ভিত্তিতে রায় প্রদান করা হয়। এবং ঘটানার সাথে অভিযোগের মিল না থাকায় তাদেরকে মুক্তি প্রদান করা হয়েছে।

প্রতিদিনের খবর পড়ুন আপনার ইমেইল থেকে
ওপরে