১৬ই জুলাই, ২০১৯ ইং ১লা শ্রাবণ, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

samakalnew24
samakalnew24
শিরোনাম:
রিফাত শরিফ হত্যা মামলায় প্রধান সাক্ষী পুলিশ হেফাজতে ফরিদগঞ্জের কাঁশারা ছিদ্দিকিয়া দাখিল মাদরাসাটির ভবন না... বন্যার্তদের পাশে ত্রাণ নিয়ে পাশে দাড়ালেন ছাত্রলীগ নেতা... নওগাঁয় সনাতন সম্প্রদায়ের জ্ঞাতিভোজ অনুষ্ঠান বন্ধ... বগুড়ায় হু হু করে বাড়ছে যমুনার পানি

বিয়ের দাবিতে প্রেমিকের বাড়িতে প্রেমিকার অনশন

 অনলাইন ডেস্কঃ সমকাল নিউজ ২৪
বিয়ের দাবিতে প্রেমিকের বাড়িতে প্রেমিকার অনশন

জামালপুরের সরিষাবাড়ীতে বিয়ের দাবিতে প্রেমিকের বাড়িতে অনশন শুরু করেছে করেছে এক প্রেমিকা। গত শুক্রবার থেকে টানা তিন দিন ধরে প্রেমিকা অনশনে রয়েছে বলে জানা গেছে। ঘটনাটি ঘটেছে পৌরসভার সাতপোয়া মধ্য পাড়া এলাকায়। প্রেমিকার অনশনে হবু শশুর-শাশুড়ি বাড়ি থেকে পালিয়ে গাঁ ঢাকা দিয়েছে। রবিবার (২৪ মার্চ) বিকালে এ তথ্য পাওয়া গেছে।

স্থানীয় ও অনশনকারী শিক্ষার্থী সূত্রে জানা গেছে, সরিষাবাড়ী পৌরসভার সাতপোয়া মধ্যপাড়া এলাকার মজনু মিয়ার পুত্র ১০ শ্রেণীর ছাত্র লুশন আহম্মেদ (১৭) এর সাথে একই এলাকার জুয়েল মিয়ার কন্যা ৮ম শ্রেণির ছাত্রী জিন্নাত আরা ইন্নি (১৫)র কয়েক মাস যাবৎ প্রেমের সম্পর্ক চলে আসছিল। বিশেষ কারণে প্রেমিকা বিয়ের জন্য প্রেমিককে চাপ দেয়। কিন্তু প্রেমিকের তালবাহানার এক পর্যায়ে গত শুক্রবার দুপুরে প্রেমিকা ইন্নি বিয়ের দাবিতে প্রেমিক লুশন আহম্মেদের বাড়িতে অনশন শুরু করে দেয়। অনশন শুরুর পরপরই লুশন আহম্মেদের পিতা-মাতা অবস্থা বেগতি দেখে নিজের বাড়ি থেকে পালিয়ে গাঁ ঢাকা দেয়।

হবু শশুর-শাশুড়ি বাড়ি থেকে পালিয়ে গেলেও প্রেমিক প্রবরের সাথে এক ঘরে তিন দিন যাবৎ এক সাথে রয়েছে।
বিবাহ বহির্ভূত এ সম্পর্ক নিয়ে এলাকার মানুষের মাঝে নানা সমালোচনার ঝড় বইছে। প্রেমিক লুশন আহম্মেদ সরিষাবাড়ী পৌরসভার আরামনগর রিয়াজ উদ্দিন তালুকদার উচ্চ বিদ্যালয়ের ১০ম শ্রেণির ছাত্র। প্রেমিকা জিন্নাত আরা ইন্নি একই স্থানের পাশের সালেমা খাতুন উচ্চ বিদ্যালয়ের ৮ম শ্রেণিতে পড়ছে বলে জানা গেছে।

বিয়ের দাবিতে অনশনকারী জিন্নাত আরা ইন্নি বলেন, আমি বিয়ের দাবিতে এ বাড়িতে এসেছি। লুশন আহম্মেদের পিতা-মাতা আমাদের দু-জনকে বিয়ে না দিয়ে তারা পালিয়েছে। আমরা তিন দিন ধরে প্রায় না খেয়ে এক ঘরে দিন রাত কাটাচ্ছি। আমি বিয়ে না করে বাড়িতে যাব না।

অনশন দেখতে আসা প্রতিবেশী সোনা বানু (৫৫) বলেন, বিয়ে না করিয়ে ছেলে মেয়ে এক ঘরে থাকা ভালো দেখায় না। তিনি সাংবাদিকদের বলেন আপনারা একটা কিছু করে দেন।

এ ব্যাপারে সরিষাবাড়ী পৌর সভার মেয়র রুকুন্নুজ্জামান রোকন বলেন, বিষয়টি দেখছি। দেখি কী করা যায়।
সরিষাবাড়ী থানার অফিসার ইনচার্জ মাজেদুর রহমান বলেন, এ বিষয়ে অভিযোগ পাওয়া গেলে আইনগত ব্যাবস্থা নেয়া হবে।

জানতে চাইলে সরিষাবাড়ী উপজেলা নির্বাহী অফিসার সাইফুল ইসলাম বলেন, অল্প বয়সে এ রকম ঘটনা দুঃখজনক। তবে বিষয়টি প্রয়োজনীয় ব্যাবস্থা গ্রহণ করা হবে।

Print Friendly, PDF & Email

প্রতিদিনের খবর পড়ুন আপনার ইমেইল থেকে
ওপরে