১৮ই এপ্রিল, ২০১৯ ইং ৫ই বৈশাখ, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

samakalnew24
samakalnew24
শিরোনাম:
যৌতুক দাবী করায় বরকে ন্যাড়া করে ফেরত পাঠালো কনে পক্ষ খুলনা সার্কিট হাউসে মতবিনিময় সভায় নিমন্ত্রন পেলেন... লাইভে কুরআন ছিড়ে টয়লেটে নিক্ষেপ সেফুদার, ফাঁসি দাবী বরগুনায় মানবিক সহায়তা’১৯ প্রকল্পের শিক্ষণ কর্মশালা... অনগ্রসর শিক্ষার্থীদের মাঝে স্কুল ব্যাগ ও খেলার সামগ্রী...

বেতাগীতে ধর্ষণ মামলার আসামী ইউ.পি চেয়ারম্যান

 শফিকুল ইসলাম ইরান,বতাগী,বরগুনা সমকাল নিউজ ২৪

বেতাগীতে কিশোরী ধর্ষণ মামলায় হোসনাবাদ ইউনিয়ন পরিষদের প্যানেল চেয়ারম্যান ও বর্তমান (ভারপ্রাপ্ত) চেয়ারম্যান হুমায়ুন কবিরকে আসামী করেছে বেতাগী থানা পুলিশ । গত ১৬মার্চ ধর্ষনের ঘটনায় বেতাগী থানায় ধর্ষিতা নিজেই বাদী হয়ে একটি মামলা দায়ের করেন। মামলার আসামীগন হলেন, একই ইউনিয়নের পূর্ব-ছোপখালী গ্রামের বাসিন্দা সোহারাফ জোমাদ্দার এর ছেলে নাঈম জোমাদ্দার ও আবদুল হামেদ জোমাদ্দার এর ছেলে হুমায়ুন কবির জোমাদ্দার।

জানা যায়, বিগত ১৫ মার্চ রাত ৯ টায় হোসনাবাদ ইউনিয়নের দক্ষিন হোসনাবাদ সংলগ্ন এলাকায় এক কিশোরীকে বিয়ের প্রলবন দেখিয়ে নাঈম জোমাদ্দার ধর্ষন করেন। ধর্ষণের ঘটনায় দুইজনকে আসামী করে ধর্ষিতা নিজেই বেতাগী থানায় একটি মামলা দায়ের করেন। যাহার মামলা নং- ১৫/২০১৯।

মামলার তদন্ত অফিসার সাব-ইন্সপেক্টর হারুণ এর কাছ থেকে জানা যায়, বিগত ১৬ মার্চ বেতাগী থানায় কিশোরী ধর্ষণের ঘটনায় ৯:১/৩০ (ধর্ষণ ও ধর্ষণে সহায়তা) ধারায় একটি মামলা দায়ের করা হয়। একইসাথে আরো বলেন, মামলায় দুইজনকে আসামী করা হয়েছে, ১নং আসামী নাঈম জোমাদ্দার ধর্ষন করেন ধর্ষিতার বক্তব্যনুযায়ী ২ নং আসামী ধর্ষনে সহায়তা করেন এবং আরো বলেন, ধর্ষণের পর টাকা পয়সার মাধ্যমে মিমাংষা করার জন্য চেষ্টাও করেন অভিযুক্ত ২ নং আসামী হুমায়ুন কবীর। যার প্রেক্ষিতে বর্তমান চেয়ারম্যান (ভারপ্রাপ্ত) হুমায়ুন কবীরকে মামলার আসামী করা হয়েছে। তাছাড়াও ধর্ষক নাঈম ও হুমায়ুন কবীর সম্পর্কে চাচাতো ভাই।

নাম না প্রকাশের শর্তে বেশ কয়েকজন এলাকার বাসিন্দা বলেন, হুমায়ুন কবির ইউপি সদস্য থাকাকালীন সময়েই বেশ বেপরোয়া ও সমালোচিত ছিলেন, বিগত সময়ে স্ম্রাট কার্ড বিতরণে অবৈধভাবে ব্যাংক ড্রাফ ফাঁকি দিয়ে অর্থ বানিজ্য সহ এক বাক প্রতিবন্ধির বাৎসরিক প্রতিবন্ধি ভাতা আত্মসাৎ এর অভিযোগে ইউ,এন ও বরাবর লিখিত অভিযোগও দেয়া হয়েছিল। মৌখিক ভাবে আরো বলেন, হুমায়ন ইউপি সদস্য থাকাকালীন টাকা ছাড়া তিনি কোন ধরনের ভাতার নাম দেননি এ নিয়ে বেশ আলোচনাও হয়েছে।

ধর্ষণের ব্যাপারে অভিযুক্ত হুমায়ুন’র সাথে কথা বলতে চাইলে অনেকবার ফোন করা হলেও সে বার বার লাইন কেটে দেয়।সবশেষে সরাসরি কথা বললে সে ঘটনার বিষয় এরিয়ে যায় এবং বলে ধর্ষণের ব্যাপারে আমি কিছু জানি না।

বেতাগী থানার অফিসার ইনচার্জ মো.কামরুজ্জামান মিয়া বলেন, ধর্ষণের ঘটনায় দুইজনকে আসামী করে ধর্ষিতা নিজে বাদী হয়ে মামলা করেছেন। ইতোমধ্যে, একজন আসামীকে গ্রেফতার করে জেল হাজতে প্রেরণ করা হয়েছে। ধর্ষনের রিপোর্ট পাওয়ার পরে চার্জশিট পাঠানো হবে।

বেতাগী উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো. রাজিব আহসান “সমকাল নিউজ ২৪ ডট কম”‘কে বলেন,অভিযুক্ত ইউপি সদস্যর নামে ইতোপূর্বে বেশ কয়েকবার লিখিত অভিযোগ পেয়েছি এবং ব্যবস্থাও নিয়েছি । তবে ধর্ষণের ঘটনায় সঠিক ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য বেতাগী থানা পুলিশকে সুপারিশ করা হবে।

Print Friendly, PDF & Email

প্রতিদিনের খবর পড়ুন আপনার ইমেইল থেকে
বরগুনা বিভাগের আলোচিত
ওপরে