২৩শে এপ্রিল, ২০১৯ ইং ১০ই বৈশাখ, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

samakalnew24
samakalnew24
শিরোনাম:
সেফুদার বিরুদ্ধে ভিয়েনার আদালতে মামলা শ্রীলঙ্কা হামলার ‘মাস্টার মাইন্ড’ মাওলানা জাহরান... বগুড়ায় মদসহ তিন মাদক ব্যবসায়ী গ্রেফতার বগুড়ায় ছিনতাইচক্রের মূল হোতা আটক প্রেম বাড়াতে আসছে ‘ইনজেকশন’

বোদায় নবজাতক শিশু মেরে ফেলার অভিযোগ

 ম. তরিকুল ইসলাম পঞ্চগড় সমকাল নিউজ ২৪

পঞ্চগড় জেলাধীন বোদা উপজেলা সদরের নিরাময় নার্সিং হোম এন্ড ডায়াগনস্টিক সেন্টারের মালিক, ক্লিনিক ম্যানেজার ও কথিত নার্সের বিরুদ্ধে নবজাতক শিশুকে মেরে ফেলার অভিযোগ উঠেছে।

এ ঘটনায় ওই পরিবারের লোকজন পঞ্চগড়ের জেলা প্রশাসকের বরাবরে লিখিত অভিযোগ দায়ের করেছেন। বিষয়টি পঞ্চগড়ের সিভিল সার্জন ডা. মোহাম্মদ নিজামউদ্দিন, বোদা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা সৈয়দ মাহমুদ হাসানসহ স্থানীয় প্রশাসনকে অবহিত করেছেন। চিকিৎসক ছাড়াই নরমাল ডেলিভারী করতে গিয়ে এক নবজাতককে মেরে ফেলার ঘটনায় ক্ষুব্ধ এলাকাবাসি ওই ক্লিনিক ঘেরাও করে রাখে।

৮ এপ্রিল/১৯ সোমবার দুপুরে জেলার বোদা উপজেলা সদরে এ ঘটনাটি ঘটে। ওঁই ক্লিনিকের মালিক উজ্জ্বল সরকার, ম্যানেজার অভি সরকার ও সাবিনা নামে এক মহিলা মিলে ওই গৃহবধুর সন্তানকে নরমাল ডেলিভারী করার সময় টেনে হিচড়ে বের করতে গিয়ে নবজাতকের মৃত্যু হয়। ঘটনার পর ক্লিনিকের ম্যানেজার ও কথিত নার্স গা ঢাকা দিয়েছেন।

অভিযোগে সূত্রে জানা গেছে, জেলার বোদা উপজেলার নয়াদিঘী তাঁতিপাড়া এলাকার সুকদেব রায়ের স্ত্রী মিত্রা রানীর প্রসব বেদনা শুরু হলে সকালে ওই ক্লিনিকে ভর্তি করে। এরপর আল্ট্রাসনোগ্রাম করে বাচ্চার অবস্থা দেখে সিজার করার পরামর্শ দেয় চিকিৎসক। এজন্য বিশেষজ্ঞ চিকিৎসক ডা. আনোয়ার আলীকে খবর দেয়া হয়। কিন্তু ওই চিকিৎসক আসার আগেই ক্লিনিকের মালিক উজ্জ্বল সরকার, ম্যানেজার অভি সরকার ও সাবিনা নামে এক মহিলা বিশেষজ্ঞ গাইনী চিকিৎসক এবং আবেদনবিদ ছাড়াই গৃহবধুকে অপারেশন থিয়েটারে নিয়ে যান। সেখানে তারা নিজেরাই নবজাতককে জোরপূর্বক টেনে হিচড়ে প্রসব করানোর চেষ্টা করেন। একপর্যায়ে পা ধরে জোরে টান দিলে নবজাতক শিশুটির মৃত্যু হয়।

জোরপূর্বক টেনে হিচড়ে নবজাতককে বের করতে গিয়ে প্রসূতিও অসুস্থ্য হয়ে পড়ে এবং শরীরের কিছু অংশে কেটে ছিড়ে যায়।

এতে গৃহবধু মিত্রা রানীর স্বামী সুকদেব রায় জানান, আল্ট্রাসনোগ্রামের সময় বাচ্চার পজিশন খুব ভালো আছে বলে চিকিৎসকরা জানিয়েছেন। অত:পর ক্লিনিকের মালিক বিশেষজ্ঞ চিকিৎসক ও আবেদনবিদ ছাড়াই জোরপূর্বক টেনে হিচড়ে বের করতে গিয়ে আমার সন্তানকে মেরে ফেলেছে।

এ বিষয়ে ডা. আনোয়ার আলীর সঙ্গে মোবাইলে যোগাযোগ করা হলে আমার আসার আগেই তারা নরমাল ডেলিভারী করেন এবং মৃত বাচ্চা প্রসব হয়েছে বলে শুনেছি। পঞ্চগড় সিভিল সার্জন ডা. মোহাম্মদ নিজামউদ্দিন জানান, এ বিষয়ে লিখিত অভিযোগ পেলে তদন্ত সাপেক্ষে ওই ক্লিনিকের বিরুদ্ধে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়া হবে।

Print Friendly, PDF & Email

প্রতিদিনের খবর পড়ুন আপনার ইমেইল থেকে
পঞ্চগড় বিভাগের সর্বশেষ
ওপরে