২১শে জুলাই, ২০১৯ ইং ৬ই শ্রাবণ, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

samakalnew24
samakalnew24
শিরোনাম:
বগুড়ায় ছেলে ধরা সন্দেহে এক ব্যক্তিকে পুলিশে সোপর্দ বরগুনায় বঙ্গবন্ধু ও বঙ্গমাতা শেখ ফজিলাতুন্নেছা... কোটচাঁদপুরে অবৈধ গর্ভপাতের মূলহোতা রিনা পারভিন আটক মিন্নির জামিন আবেদন নামঞ্জুর # রিফাত হত্যাকারীদের... মিন্নির জামিন নামঞ্জুর

বড়পুকুরিয়া কয়লা দুর্নিতিবাজদের বিচার ও ক্ষতিপুরনের দাবীতে আন্দোলনে নেমেছে ক্ষতিগ্রস্থ গ্রামবাসীরা।

 মেহেদী হাসান উজ্জল / ফুলবাড়ী (দিনাজপুর) প্রতিনিধি। সমকাল নিউজ ২৪

দিনাজপুরের বড়পুকুরিয়া কয়লা খনি থেকে লোপাট হওয়া এক লাখ ৪৪ হাজার মেট্রিকটন কয়লা ঘাটতির ঘটনায় জড়িত খনির দুর্নীতিবাজ কর্মকর্তা ও প্রভাবশালী হোতাদের বিচার ও গ্রামবাসীদের ক্ষতিপুরনের দাবীতে আন্দোলনে মেনেছে, খনির কারনে ক্ষতিগ্রস্থ গ্রামবাসীরা।

গত বুধবার বিকালে বড়পুকুরিয়া কয়লা খনি এলাকার হামিদপুর উত্তর চৌহাটি গ্রামে, ক্ষতিগ্রস্থ গ্রামবাসীদের উপযুক্ত ক্ষতিপুরন প্রদান ও ২০১৮ সালের বহুল আলোচিত খনি থেকে এক লাখ ৪৪ হাজারটন কয়লা ঘাটতির সাথে জড়িত তৎকালিন খনির দুর্নীতিবাজ কর্মকর্তা ও তাদের হোতা প্রভাবশালী মহলের বিচারের দাবীতে, বড় রকমের আন্দোলনে নামার প্রস্তুতি হিসেবে গ্রামবাসীদের নিয়ে মতবিনিময় ও উঠান বৈঠক করছেন, ক্ষতিগ্রস্থ গ্রামবাসীদের সংগঠন ২০ গ্রাম সম্বনয় কমিটি।

গত এক সপ্তাহর ব্যবধানে সম্বনয় কমিটির উদ্যোগে ১০টি গ্রামে এ মতবিনিময় ও উঠান বৈঠক করেছেন বলে জানিয়েছেন তারা।

মতবিনিময় ও উঠান বৈঠকে উত্তর চৌহাটি গ্রামের আহসানুল হক হিটলারের সভাপতিত্বে প্রধান অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন, ২০ গ্রাম সম্বনয় কমিটির সভাপতি মশিউর রহমান বুলবুল। এতে অনান্যদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন সম্বনয় কমিটির অন্যতম নেতা বেনজির ওয়ালিদ, ২০ গ্রাম সম্বনয় কমিটির সদস্য মতিয়ার রহমান, গোলজার হোসেন পান্না, কাজিপাড়ার বেলাল হোসেন, ফরহাদ হোসেনসহ ২০ গ্রামের নেতৃবৃন্দ।

ক্ষতিগ্রস্থ ২০ গ্রামের সম্বনয় কমিটির সভাপতি মশিউর রহমান বুলবুল বলেন, ২০১৮ সালে বড়পুকুরিয়া কয়লা খনি থেকে এক লাখ ৪৪ হাজার মেট্রিক টন কয়লা লোপাট হয়ে গেছে, এই ঘটনাটি সেই সময় সারা দেশে আলোড়ন সৃষ্টি হয়েছিল, ঘটনাকে কেন্দ্র করে সরকারের উচ্চ পর্য্যায়ে কয়েকটি কমিটি গঠন করা হয়েছিল, কিন্তু দুঃখ জনক বিষয় এখন পর্যন্ত সেই তদন্ত কমিটি গুলো আলোর মুখ দেখেনি। তিনি বলেন কয়লা লোপাটের সেই হোতা ও সেই সময়ের খনির প্রভাবশালী কর্মকর্তাদের সেই সময় খনি থেকে বদলী করা হলেও, তারা অন্যাত্র বহাল তবিয়তে চাকুরি করছে, এবং সেখান থেকে বড়পুকুরিয়া কয়লা খনিটিকে অশান্ত করার জন্য ষড়যন্ত্র করছে।

ক্ষতিগ্রস্থ গ্রামবাসীর এই নেতা বলেন, সেই দুর্নীতিবাজ কমৃকর্তারা খনিতে একের পর এক দুর্নীতি করে নিজের আখের গোছালেও, ক্ষতিগ্রস্থ গ্রামবাসীদের কোন দাবী পুরন করেনি। এই জন্য তিনি, খনি এলাকার ক্ষতিগ্রস্থ গ্রামবাসীদের উপযুক্ত ক্ষতি পুরন প্রদান করার দাবী জানান এবং অনতিবিলম্ভে দুর্নীতিবাজ কর্মকর্তাদের শাস্তি প্রদান করারো দাবী জানান।

Print Friendly, PDF & Email

প্রতিদিনের খবর পড়ুন আপনার ইমেইল থেকে
দিনাজপুর বিভাগের সর্বশেষ
দিনাজপুর বিভাগের আলোচিত
ওপরে