১৯শে অক্টোবর, ২০১৯ ইং ৪ঠা কার্তিক, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

samakalnew24
samakalnew24
শিরোনাম:
আপন বড় ভাইয়ের সাথে ছোট বোনের বিয়ে। ভ্রমনের জন্য বরগুনার লঞ্চযাত্রায় আপনাদের স্বাগতম বরগুনায় শেখ রাসেলের ৫৫তম জন্মদিন উদযাপন ৩০ বার রক্ত দিয়ে রেকর্ড গড়লেন সাগর কর্মকর যশোরের বেনাপোলে শেখ রাসেলের জন্মদিন পালিত

মধ্যপাড়া খনিতে পাথর বিক্রিতে ভাটা অবিক্রিত পাথরের মজুদ সাড়ে ৪ লাখ মেট্রিকটন দিনদিন বাড়ছে এই মজুদের পরিমান।

 ফুলবাড়ী (দিনাজপুর) প্রতিনিধি সমকালনিউজ২৪

দিনাজপুরের মধ্যপাড়া খনিতে পাথর বিক্রিতে ভাটা পড়েছে,খনির পাথর ইয়ার্ডে অবিক্রিত পাথরের মজুদ সাড়ে ৪ লাখ মেট্রিকটন। দিনদিন বাড়ছে এই মজুদের পরিমান।

 

খনি সুত্রে জানা গেছে, গত ২০১৮ সালের ৩১ ডিসেম্বর পর্যন্ত খনি থেকে পাথর উত্তোলন করা হয়েছে ১১ লাখ ৬৫ হাজার ৯৬৬ মেট্রিকটন। সেখানে পাথর বিক্রি হয়েছে ৭ লাখ ৩৩ হাজার ২২মেট্রিকটন। অবশিষ্ট ৪ লাখ ৩২ হাজার ৯৪৪ টন পাথর মজুদ রয়েছে। বর্তমানে চলতি সালে প্রতিদিন গড়ে ৫ হাজার টন পাথর উত্তোলন করা হচ্ছে। এতে বিক্রি কম হওয়ায় পাথরের মজুদ দিন-দিন বেড়েই চলেছে।

 

খনি কতৃপক্ষ বলছে, ব্যবসায়ীরা অন্যজায়গা থেকে আমদানীকৃত পাথর ওভার লোড নিয়ে পরিবহন করতে পারছে, এতে তাদের পরিবহন খরছ কমে যাচ্ছে, এই কারনে তারা খনির পাথর না নিয়ে আমদানী কৃত পাথর কিনতে আগ্রহী হচ্ছে। কিন্তু খনির পাথর অতিরিক্ত বহন করার অনুমতি না থাকার কারনে খনির পাথর বিক্রি কিছুটা কমেছে বলে দাবী খনি কতৃপক্ষের।

 

কয়েকজন পাথর ব্যবসায়ী নাম প্রকাশ না করার সত্বে বলেন, আমদানী কৃত পাথর একটি টু-ক্সেল ট্রাকে ৩২ টন ও একটি ত্রি-এক্সেল ট্রাকে ৫৫ টন পর্যন্ত পরিবহন করা যায়, এতে তাদেও পাথর পরিবহনের খরছ কমে যায়। অথচ খনি কতৃপক্ষ একটি টু-এক্সেল ট্রাকে ২২ টন ও একটি ত্রি-এক্সেল ট্রাকে ৩২ টনের বেশি লোড ও পরিবহনের অনুমতি দেয়না এতে পাথরের পরিবহন খরছ বেশি হয়ে যায়। ট্রাকের চালকদের নিকট থাকা পাথর আমদানী কারকদের দেয়া পাথরের চালানে দেখা যায়, সেখানে একটি টু-এক্সেল ট্রাকে ৩২টন ও একটি ত্রি-এক্সেল ট্রাকে ৫৫ টন পাথর লোড দিয়েছে। ট্রাক চালকরা জানায়, এই লোড নিয়ে তারা দেশের বিভিন্ন অঞ্চলে যাতায়াত করেছে কোন অসুবিধা হয়নি।

 

মধ্যপাড়া গ্রানাই মাইনিং কোম্পানী লিঃ এর মহা-ব্যবস্থাপক (অপরেশন) আবু তালেব ফরাজি বলেন, বাংলাদেমে সড়ক ও সেতু বিভাগের নিয়ম অনুযায়ী একটি টু-এক্সেল ট্রাকে ২২ টন ও একটি ত্রি-এক্সেল ট্রাকে ৩২ টন পর্যন্ত। এই নিয়ম মেনে মধ্যপাড়া খনি কতৃপক্ষ ট্রাকে পাথর পরিবহনের অনুমতি ও লোড দিয়ে থাকে। কিন্তু পাথর আমদানী কারকেরা, সরকারের এই নিয়মকে বৃদ্ধাঙ্গলী দেখিয়ে, একটি টু-এক্সেল ট্রাাকে ৩২ টন ও একটি ত্রি-এক্সেল ট্রাকে ৫৫ টন পর্যন্ত বহন করছে, এতে পাথর ব্যবসায়ীদের পরিবহন খরছ কমে যাচ্ছে এই জন্য তারা খনির পাথর না নিয়ে আমদানীকৃত পাথর কিনতে আগ্রহী হচ্ছে।

 

মধ্যপাড়া গ্রানাইড কোম্পানী লিঃ এর এই কর্মকর্তা আরো বলেন সড়ক ও সেতু কতৃপক্ষ যদি ওভার লোড পরিবহন করা রোধ করতে পারে তাহলে খনিতে পাথর বিক্রি বৃদ্ধি পাবে। তিনি আরো বলেন বাজারের তুলুনায় মধ্যপাড়া খনির পাথর গুনে-মানে ভাল ও দামও কম।

 

সমাজের অর্থনীতিবীদরা বলছেন, দেশে পাথরের চাহিদা অনেক, সেখানে দেশি পাথরের তুলুনায় আমদানীকৃত পাথর এর উপর চাপ বাড়ায়, পাথর আমদানী বৃদ্ধি পাচ্ছে। এতেকরে বৈদাশিক মুদ্রার উপর চাপ বাড়ছে। অপরদিকে অতিরিক্ত পাথর পরিবহন করায় সড়কের ক্ষতি হচ্ছে এই জন্য তারা দেশি পাথরের বাজার ধরে রাখার জন্য অতিরিক্ত পাথর পরিবহন বন্ধ ও আমদানীকৃত পাথর ব্যবহারে নিরুৎসাহী করার তাগিদ দেন।

প্রতিদিনের খবর পড়ুন আপনার ইমেইল থেকে
দিনাজপুর বিভাগের আলোচিত
ওপরে