২৭শে জুন, ২০১৯ ইং ১৩ই আষাঢ়, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

samakalnew24
samakalnew24
শিরোনাম:
যেকোনো মূল্যে রিফাতের খুনিদের গ্রেফতারের নির্দেশ... রিফাত হত্যার ঘটনায় মর্মাহত হাইকোর্ট জানতে চান কি... স্বামীর খুনীর সঙ্গে স্ত্রীর ফুল হাতে ছবি ভাইরাল! বরগুনায় রিফাত হত্যা মামলায় গ্রেফতার – ১ কলারোয়া থানা পুলিশের অভিযানে ছয় ব্যক্তি আটক।

মাধবপুরে দুই বোনের শরীর ঝলসে দিলো দুর্বৃত্তরা

 নিজস্ব প্রতিনিধিঃ সমকাল নিউজ ২৪
মাধবপুরে দুই বোনের শরীর ঝলসে দিলো দুর্বৃত্তরা

হবিগঞ্জের মাধবপুরে ঘুমন্ত দুই বোনের ওপর দাহ্য পদার্থ ছোড়ে তাদের শরীর ঝলসে দিয়েছে দুর্বৃত্ত। শুক্রবার তাদের আশঙ্কাজনক অবস্থায় উদ্ধার করে সিলেট ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছে।

মাধবপুর থানার ওসি চন্দন কুমার চক্রবর্তী জানান, বিষয়টি শোনে তাৎক্ষণিক পুলিশ ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছে। দুর্বৃত্তদের গ্রেফতারে অভিযান শুরু হয়েছে। আহতদের পরিবারের অভিযোগ, হাবিবার স্বামী মমিনুল তাদের এ সর্বনাশ করেছে।

স্থানীয়রা জানান, উপজেলার বাঘাসুরা গ্রামের প্রবাসী এখলাছ মিয়ার কলেজপড়ুয়া মেয়ে হাবিবা আক্তার (২০) বৃহস্পতিবার রাতে খাবার শেষে ঘুমিয়ে পড়েন।

শুক্রবার ভোররাতে কে বা কারা ঘরের জানালার গ্রিল ভেঙে তার ওপর দাহ্য পদার্থ নিক্ষেপ করে পালিয়ে যায়। এতে হাবিবা আক্তারের মুখ ঝলসে যায়।

এ ছাড়া দাহ্য পদার্থে হাবিবার পাশে ঘুমিয়ে থাকা তার ছোট বোন স্থানীয় প্রাথমিক বিদ্যালয়ের পঞ্চম শ্রেণির ছাত্রী আয়েশা আক্তারের (১০) হাত ও শরীরের কিছু অংশ ঝলসে যায়।

এ সময় তারা চিৎকার শুরু করলে পরিবারের লোকজন এসে তাদেরকে উদ্ধার করে সদর আধুনিক হাসপাতালে নিয়ে যায়। সেখানে তাদের প্রাথমিক চিকিৎসা দিয়ে সিলেট ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়।

সদর আধুনিক হাসপাতালের মেডিকেল অফিসার ডা. সাইফুর রহমান সোহাগ জানান, এটি এসিড কিনা- তা সঠিকভাবে বলা যাচ্ছে না। তবে তা দাহ্য পদার্থ। পরীক্ষা না করে সঠিক বলা যাবে না, এটি কী পদার্থ ছিল। একটি মেয়ের মুখের প্রায় ৮০ শতাংশ ঝলসে গেছে। ছোট মেয়েটির হাতের কিছু অংশ ঝলসে গেছে। তাদেরকে সিলেট ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে।

হাবিবার চাচা কাওছার মিয়া জানান, গত একবছর আগে হাবিবার সঙ্গে পার্শ্ববর্তী নাসিরনগর উপজেলার শায়েক গ্রামের সাহেব আলীর ছেলে মমিনুলের বিয়ে হয়। বিয়ের পর থেকে হাবিবা প্রবাসী বাবা একলাছ মিয়ার বাড়িতে বসবাস করতেন। মুমিনূলের সঙ্গে হাবিবার বনাবনি না হওয়ায় ৩-৪ মাস আগে বিবাহবিচ্ছেদ ঘটে। এ কারণে তাদের ধারণা, মমিনুল এ ঘটনা ঘটিয়েছেন।

Print Friendly, PDF & Email

প্রতিদিনের খবর পড়ুন আপনার ইমেইল থেকে
হবিগঞ্জ বিভাগের আলোচিত
ওপরে