১৯শে সেপ্টেম্বর, ২০২০ খ্রিস্টাব্দ ৪ঠা আশ্বিন, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

samakalnew24
samakalnew24
শিরোনাম:
দৈনিক রূপসী বাংলা’র প্রতিনিধির বিভাগীয় সম্মেলনে জেনারেল এগ্রোকেয়ারকে ৭০ হাজার টাকা জরিমানা ফরিদগঞ্জে ২হাজার ১শ’ পিস ই’য়াবাসহ দুই মা’দকব্যবসায়ী... জামালপুরে পেঁয়াজের বাজারে অভিযান চালিয়ে ৩ ব্যবসায়ীকে... টাঙ্গাইলের মির্জাপুরে গোড়াইতে যানজট এলাকা পরিদর্শন...

মা-ছেলের বিকৃত প্রেম, ৬ মাসের অন্তঃসত্তা মা!

 অনলাইন ডেস্কঃ সমকালনিউজ২৪
মা-ছেলের বিকৃত প্রেম, ৬ মাসের অন্তঃসত্তা মা!

বিকৃত রুচির কিছু মানুষের বসবাস করা পৃথিবীতে কতো আজব ঘটনাই ঘটছে। এমনই এক ঘটনা ভারতীয় মিডিয়ায় ফলাও করে প্রচার করা হলো। ভারতের উত্তরপ্রদেশের গার্গীপুরে ৪২ বছর বয়সী এক মা তার ২৩ বছর বয়সী ছেলের সাথে অসম প্রেম করে চলেছেন। মা এখন ৬ মাসের অন্তঃসত্তা। তবে তারা এ সম্পর্ককে অবৈধ মানতে নারাজ। কারণ তারা খুব শীঘ্রই বিবাহ করছেন।

ওই মহিলার নাম সবিতা পান্ডে। সাত বছর আগে তিনি স্বামী হারা হনএরপর তিনি তার একমাত্র ছেলে দীপককে মানুষ করতে থাকেন। ছেলের বয়স এখন ২৩। ছেলে সরকারী চাকুরী করে। ভালো রোজগার করে।

সবিতা দেবী বলেন, ‘আমি আমার ছেলেকে একা মানুষ করেছি। আমি অনেক কষ্ট করেছি। আমাকে কেউ সাহায্য করেনি। সুতরাং আমার ছেলের সব আয় আমারই প্রাপ্য। অন্য কোন নারী তার আয়ের উপর ভাগ বসাতে পারবে নসবিতা জানান, ৩ বছর আগে ছেলের সঙ্গে তার প্রেম শুরু হয়। বর্তমানে তিনি ৬ মাসের অন্ত:সত্ত্বা।

তিনি বলেন, ‘আমার ছেলের ঔরসে আমি গর্ভবতী হয়েছি। আমরা শীঘ্রই বিয়ে করবো।’এদিকে ২৩ বছর বয়সী ছেলে দীপক বলেন, ‘আমার মা আমাকে কষ্ট করে মানুষ করেছেন। সুতরাং আমার মাকে সুখী করা আমার দায়িত্ব।’

দীপক স্বীকার করেন, তার মায়ের সঙ্গে তিনি প্রেম করছেন। তারা শীঘ্রই বিয়ে করবেন। তারা দুজনেই এই সম্পর্কে খুব সুখী এবং তাদের এই সম্পর্কের মধ্যে কোনো পাপ নেই। অন্যদিকে, শুধু ভারতই নয়, এই ঘটনার সাক্ষী থেকেছে ফ্রান্সও।অবিশ্বাস্য! মা’কে বিয়ে করলো ছেলে! অবিশ্বাস্য এই ঘটনার জন্ম দিয়েছেন এরিক হোল্ডার (৩২) ও এলিজাবেথ লরেঞ্জ (৫৩)। ফ্রান্সের এই জুটি পরস্পর সম্পর্কে ‘ছেলে’ ও ‘মা’ হলেও ঐতিহাসিক এক বিবাহ বন্ধনে আবদ্ধ হয়েছেন।

কিন্তু তাদের এই বিয়ে খুব সহজ ছিল না। ফ্রান্সের প্রচলিত আইনে বাবার স্ত্রীকে নিজেরই ছেলে বিয়ে করতে পারেন না।সুতরাং আইনগতভাবে এরিক হোল্ডার ও এলিজাবেথ লরেঞ্জের মিলিত হওয়া অবৈধ ও আইনসিদ্ধ ছিল না।তবে তাতে দমে যায়নি প্রণয়-পাগল জুটিটি। বরং দীর্ঘদিন আদালতে মামলা লড়ে আদায় করেছে বিয়ের সম্মতি।শুধু কী তাই? ঐতিহাসিক সেই বিয়েতে হাজির করেছিল মিসেস এলিজাবেথ লরেঞ্জের পিতা জেসন এলিজাবেথ।

যিনি বিয়ের পর নবদম্পতিকে আর্শীবাদও করেনএদিকে নতুন ইতিহাস সৃষ্টির পর বিকৃত মানসিকতা পোষণকারী মিস এলিজাবেথ বলেন, ‘আমি জানি আমাদের এই দৃষ্টান্ত ভবিষ্যতে অন্যদেরকে সাহায্য করবে। কেননা এরকম আরও অনেকেই আছেন।’তবে, শুধু মা-ছেলেই নয়, ভারতে বাবা এবং মেয়ের মধ‌্যেও এই একই সম্পর্ক দেখা গিয়েছে। আমাদের পৃথিবীতে কতো আজব ঘটনাই ঘটছে।

প্রতিদিনের খবর পড়ুন আপনার ইমেইল থেকে
অপরাধ বিভাগের সর্বশেষ
ওপরে