১৬ই জুন, ২০১৯ ইং ২রা আষাঢ়, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

samakalnew24
samakalnew24
শিরোনাম:
বেনাপোলে স্বেচ্ছাসেবক লীগের সভাপতিকে হত্যাচেষ্টা ও... নরসিংদীর শিবপুরে রয়েল পরিবহনে বে-পরোয়া চালানের কারণে... বেলকুচিতে তুচ্ছ ঘটনাকে কেন্দ্র করে বসতভিটা ভাংচুর... নৌকায় ভোট দিলে দেশের উন্নয়ন হয়, গোলাম রাব্বানী ভোল পাল্টিয়ে আড়াই বছর ধরে ধর্ষণ!

রাজশাহীতে দুই বালুঘাট বন্ধের জন্য হাইকোর্টের রুল জারি

  সমকাল নিউজ ২৪

নাজিম হাসান,রাজশাহী সংবাদদাতা:
অনিয়ন্ত্রিত বালুঘাটের কারণে হুমকির মুখে পড়েছে রাজশাহীর অন্তত তিনটি মেগা প্রকল্প। কিন্তু এরই মধ্যে ইজারা প্রক্রিয়া শেষ করেছে জেলা প্রশাসন। ফলে রাজশাহী মহানগরীতে এক হাজার কোটি টাকার বঙ্গবন্ধু হাইটেক পার্কসহ তিন মেগা প্রকল্প হুমকিতে পড়ায় দুটি বালুঘাট বন্ধে জেলা প্রশাসনসহ সংশ্লিষ্টদের ওপর রুলনিশি জারি করেছে হাইকোর্ট। বিচারপতি মোহাম্মদ আশফাকুল ইসলাম ও বিচারপতি মোহাম্মদ আলীর সমন্বয়ে গঠিত বেঞ্চ গত মঙ্গলবার এই আদেশ দিয়েছেন। হাইকোর্ট পরবর্তী চার সপ্তাহের মধ্যে রুলের জবাব দিতে ভূমি ও পানিসম্পদ মন্ত্রণালয়ের সচিব,পানি উন্নয়ন বোর্ডের (পাউবো) ঢাকা ও উত্তরাঞ্চলীয় প্রধান প্রকৌশলী, রাজশাহীর জেলা প্রশাসক,পাউবোর নির্বাহী প্রকৌশলী ও পবা উপজেলা নির্বাহী অফিসারকে নির্দেশ দিয়েছেন। রাজশাহীর নবগঙ্গা এলাকার আফতার রহমান গাজলুর ছেলে বাবর আলীর রিট আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে হাইকোর্ট এ আদেশ দিয়েছেন। অভিযোগে জানাযায় রাজশাহীর মহানগরীর মধ্যে পদ্মা নদীর তীরবর্তী হাড়ুপুর ও নবগঙ্গা নামের দুটি বালুঘাট রাজমাহী জেলা প্রশাসকের কার্যালয় থেকে আগামি পহেলা বৈশাখ বাংলা ১৪২৬ সনের জন্য ইজারা প্রদান করা হয়। কিন্তু এ দুটি বালুঘাট মহানগরীতে বাস্তবায়নাধীন এক হাজার কোটি টাকার বঙ্গবন্ধু হাইটেক পার্ক এলাকার নিকটবর্তী স্থানে অবস্থিত। এছাড়া পানি উন্নয়ন বোর্ড পদ্মার নদী তীরের ভাঙ্গন রোধে সম্প্রতি ৮৪ কোটি টাকা ব্যয়ে হাড়ুপুর থেকে নবগঙ্গা এলাকা পর্যন্ত একটি প্রকল্প বাস্তবায়ন করছে। একইসঙ্গে পদ্মার উজানে নগরীর উপকণ্ঠ সোনাইকান্দি থেকে রাজশাহীর বুলনপুর পর্যন্ত এলাকায় আরও ৫০ কোটি টাকা ব্যয়ে পদ্মায় ড্রেজিং এর কাজ শুরু করেছে পাউবোর ড্রেজিং বিভাগ। আলোচিত নবগঙ্গা ও হাড়পুর বালুমহাল দুটি এসব মেগা প্রকল্পের আওতাধীন এলাকায় অবস্থিত। পদ্মা নদী থেকে ড্রেজার মেশিনের মাধ্যমে বালু তুলে প্রথমে নৌকায় ভরা হচ্ছে এবং পরে মোটা পাইপের মাধ্যমে বাঁধের ওপর দিয়ে বালু বঙ্গবন্ধু হাইটেক পার্ক এলাকায় বিশালাকারে জমা করে রাখা হচ্ছে। এতে তীর সংরক্ষণ বাঁধের উপর দিয়ে পানি মিশ্রিত বালু নদীতে পড়ায় বাঁধের অবকাঠামো ব্যাপকভাবে ক্ষতিগ্রস্থ হচ্ছে। এছাড়া বঙ্গবন্ধু হাইটেক পার্কের মতো অতি গুরুত্বপুর্ণ প্রকল্পটিও বালুস্তুপের একেবারেই নিকটে হওয়ায় প্রকল্পটি বাস্তবায়নে বিভিন্ন সমস্যার উদ্ভব হচ্ছে। ফলে প্রকল্পের কাজের গতি বাধাগ্রস্ত হচ্ছে। এ কারণে জনস্বার্থে এই দুটি বালুমহালের ইজারা বাতিল করে বালুমহাল দুটি বন্ধের আবেদন আদালতে দাখিল করেন বাদী বাবর আলী রিট করেন। এদিকে রিটকারীর আইনজীবী ব্যারিষ্টার খোরশেদ আলম খান জানান, বালুমহাল বেচে সামান্য কিছু রাজস্ব আয়ের কারণে হাজার কোটি টাকার তিনটি মেগা প্রকল্প ক্ষতিগ্রস্ত হবে-এমনটা হওয়া উচিতও নয় আবার যুক্তিযুক্তও নয়। জনস্বার্থে রিটকারী বালুমহাল দুটি বন্ধের দাবি করেছেন। হাইকোর্ট এ কারণে রুল দিয়েছেন। এতে সরকারের প্রকল্পগুলি উপকৃত হবে। এ ব্যাপারে রাজশাহীর জেলা প্রশাসক এসএম আব্দুল কাদের বলেন, রুলের অনুলিপি হাতে পাওয়ার পর পরবর্তী পদক্ষেপ গ্রহণ করা হবে। তিনি জানান, মেগা প্রকল্প এলাকায় বালুমহালের উপস্থিতি নিয়ে ইতিমধ্যেই তিনি পরিস্থিতি মূল্যায়নের জন্য তিন সদস্যের একটি কমিটি গঠন করেছেন। জনস্বার্থে আদালত বালুমহাল বন্ধের আদেশ দিলে তা বাস্তবায়ন করা হবে বলে জানান জেলা প্রশাসক।#

Print Friendly, PDF & Email

প্রতিদিনের খবর পড়ুন আপনার ইমেইল থেকে
রাজশাহী বিভাগ বিভাগের সর্বশেষ
ওপরে