১৯শে নভেম্বর, ২০১৯ ইং ৪ঠা অগ্রহায়ণ, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

samakalnew24
samakalnew24
শিরোনাম:
নাঙ্গলকোটের দু’র্ধর্ষ চো’র ইসমাইলকে গ্রে’ফতার... আখাউড়ায় ৭দিন ধরে নি’খোজ মাদ্রাসা ছাত্র! সন্ধান চায়... ইবি রিপোর্টার্স ইউনিটির ১ম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উদযাপন ঝালকাঠিতে পেঁয়াজ সহ নিত্য প্রয়োজনীয় দ্রব্যমূল্য... সাংবাদিক রাহাদ সুমন বানারীপাড়া উপজেলায় ম্যানেজিং...

রাজাপুরে প্রধান শিক্ষকের যোগসাজশে স্কুলে না এসেও দপ্তরীর বেতন উত্তোলন

  ইমাম হোসেন বিমান,ঝালকাঠি, সমকালনিউজ২৪

ঝালকাঠি জেলার রাজাপুর উপজেলাধীন হাইলাকাঠী সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের নিয়োগপ্রাপ্ত দপ্তরী কাম নৈশপ্রহরী স্কুলে না এসেও বেতন তুলছেন। ম্যানেজিং কমিটির সভাপতির ক্ষমতা প্রয়োগ ও প্রধান শিক্ষকের সহযোগীতায় বিদ্যালয়ে না এসে নিয়মিত বেতন ভাতা উত্তোলন করার অভিযোগ পাওয়া গেছে দপ্তরী মনিরের বিরুদ্ধে ।গত ৫ আগষ্ট সোমবার সকাল ১১ টার দিকে সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়, দপ্তরী মনির হোসেন স্কুলে উপস্থিত নেই এবং হাজিরা খাতায় নয় দিন পর্যন্ত উপস্থিতির স্বাক্ষরও নেই। এলাকাবাসীর একাধিক অভিযোগ সূত্রে জানাযায়, শুধু দপ্তরী একাই নয় স্কুলে কাগজে কলমে ছয়জন শিক্ষক থাকলেও বেশিরভাগ সময় বাস্তবে দুই থেকে তিন জন শিক্ষককে দেখা যায়। এ ক্ষেত্রে প্রধান শিক্ষক নিজেও মাঝে মাঝে স্কুলে এসে হাজিরা খাতায় স্বাক্ষর করে এটিও সাহেবের কথা বলে চলে যায়।এ বিষয় সরোজমিনে গিয়ে আরো জানাযায়, স্কুলের সভাপতি স্থানীয় আ.লীগ নেতা আঃ খালেক হাওলাদার। স্থানীয় নেতার প্রভাব খাটিয়ে সভাপতি তার ছেলে মোঃ মনির হোসেনকে দপ্তরী পদে নিয়োগ দানে ব্যাপক সহযোগীতা করায় মনিরের চাকরি হয়। নিয়োগ পাওয়ার আগে মনির হোসেন ঢাকায় একটি প্রাইভেট কম্পানিতে চাকুরি করতেন। স্কুলে চাকরিতে নিয়োগ পাওয়ার পরেও মনির পূর্বের চাকুরি থেকে অব্যাহতি গ্রহন না করে সেখানেই কাজ করছেন বলে জানায়। সেখান থেকে মাঝে মাঝে ছুটি গ্রহন করে স্কুলে আসে। স্কুলে এসে স্কুলের প্রধান শিক্ষক এইচ এম ফয়সাল এর সহযোগীতা ও পিতার ক্ষমতা বলে তার হাজিরা খাতায় পুরো মাসে উপস্থিতি দেখান।এ বিষয়ে অভিযুক্ত দপ্তরী মনির হোসেনের ব্যবহারিত মোবাইল ফোনে যোগাযোগ করা হলে তার বিরুদ্ধে আনিত অভিযোগ মিথ্যা বলে তিনি দাবী করেন। এবং তিনি তার মুঠোফোনে সাংবাদিককে জানান, আমার শারীরিক অসুস্থতার কারনে আমি স্কুলে উপস্থিত হতে পারিনি।এ বিষয় বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষকের কাছে “বিদ্যালয়ে না এসেও কিভাবে বিদ্যালয়ের হাজিরা খাতায় স্বাক্ষর দিচ্ছে একজন দপ্তরী” সে বিষয় জানতে চাওয়া হলে তিনি জানান, আমি এই মূহুর্তে স্কুলের কাজে উপজেলায় আসছি। আর মনির হোসেন এর ব্যাপারে জানতে চাইলে তিনি জানান, ওর স্ত্রী ঢাকায় খুবই অসুস্থ থাকায় ওকে ৩ দিনের ছুটি দিয়েছি। আপনি তাকে ছুটি দিতে পারেন কিনা এমন প্রশ্নের জবাবে তিনি জানান, মানবিক কারনে আমি তাকে ছুটি দিয়েছি।”এ বিষয়ে স্কুলের ক্লাস্টারের দায়ীত্বে থাকা এটিও মোঃ সাইফুর রহমান জানান, “দপ্তরী মনির হোসেন কে সোকাজ করা হয়েছে এবং প্রধান শিক্ষকের বিরুদ্ধে অভিযোগের বিষয়টি খতিয়ে দেখা হবে।

প্রতিদিনের খবর পড়ুন আপনার ইমেইল থেকে
ঝালকাঠি বিভাগের সর্বশেষ
ওপরে