২২শে এপ্রিল, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ ৯ই বৈশাখ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

samakalnew24
samakalnew24
শিরোনাম:
বগুড়ায় করোনায় নতুন আক্রান্ত ৪৩ মৃত্যু ৩ সিংড়ায় ২৮ টাকা দরে গম সংগ্রহ শুরু শাহজাদপুরে খাজনার নামে অতিরিক্ত চাঁদা আদায়ের অভিযোগে... পূর্ব শত্রুতার জের ধরে বরগুনায় বসতবাড়ী ভাংচুর ও লুটপাট... সালথায় জমি সংক্রান্ত বিরোধের জের ধরে নি”হত-১

শাহজাদপুরে ব্রীজ হয়নি ৩০ বছরেও একমাত্র ভরসা বাশেঁর সাঁকো

  সমকালনিউজ২৪

মাসুদ মোশাররফ, শাহজাদপুর থেকেঃ

অনেকেই কথা দেয় ভোটের সময়, কিন্তু ভোট চলে গেলেই আর কারো দেখা পাইনা, সবার ভাগ্যই পরিবর্তন হয়, ভাগ্য পরিবর্তন হয়না শুধু আমাদের মতো অবহেলিত গ্রামবাসীদের। এমন করেই বলছিলেন নতুন ঘাটাবাড়ি গ্রামের কিছু বাসিন্দারা।

শাহজাদপুর উপজেলার এনায়েতপুরের খুকনি ইউনিয়নের নতুন ঘাটাবাড়ি গ্রামে খুকনি যাওয়ার একমাত্র রাস্তায় ব্রীজ নির্মাণ হয়নি গত ৩০ বছরেও। বহমান করতোয়া নদীর শাখা নদীর দুই পাশে পাকা রাস্তা থাকলেও নেই কোন স্থায়ী ব্রীজ। গ্রামের মানুষের একমাত্র রাস্তা হওয়ায় প্রতিনিয়ত নানা রকম সমস্যার সম্মুখীন হতে হচ্ছে এলাকাবাসীর। তাঁত শিল্প এলাকা হওয়ায় সকাল বিকেল এপার থেকে ওপারে কাজের উদ্দেশ্যে যাওয়ার একমাত্র রাস্তাই এটি। ব্যাক্তি উদ্দ্যোগে তৈরি এই ঝুকিপূর্ণ বাঁশের সাঁকোয় পাড়াপাড় হচ্ছে আট থেকে দশটি গ্রামের প্রায় ৪০ থেকে ৫০ হাজার মানুষ। সাঁকোটির দক্ষিণে কাইজা, সড়াতৈল, রূপসী, চেংটার চড়, বাঁশবাড়িয়া, উত্তরে খুকনি ও ঝাউপাড়া অবস্থিত।

এক পাড়ের মানুষ পাড়াপাড় হবার সময় অন্য পাড়ের মানুষ অপেক্ষা করে ফলে কিছু কিছু সময় এক মিনিটের রাস্তা পাড় হতে ২০ থেকে ৩০ মিনিটও সময় লেগে যায়। বিকল্প রাস্তা না থাকার কারনে এখানেই দাঁড়িয়ে অপেক্ষার প্রহর গুনতে হয় এ সকল এলাকাবাসীর। স্কুল কলেজের ছাত্র ছাত্রীরা এই রাস্তা দিয়ে পাড় হওয়ার সময় দুর্ঘটনার শিকার হন, কিছু কিছু অভিভাবক তাদের ছোট ছেলে মেয়েদের সাঁকো পাড় হওয়ার ভয়ে স্কুলে পাঠান না, এতে করে লেখা পড়া ব্যাহত হচ্ছে এই এলাকার অনেক শিক্ষার্থীর।

এই রাস্তায় চলাচলকারী পথচারী কাইজা গ্রামের মোঃ মর্তুজ জানান, কিছুদিন আগে এক তাঁত শ্রমিক সপ্তাহ শেষে চাউল কিনে মাথায় করে নিয়ে আসার সময় বাঁশ ভেঙ্গে খাদে পড়ে যায়। এ ছাড়াও গ্রামের বেশী বয়সী লোকদের চলাচলের জন্য খুবই বিপদজনক এই বাশেঁর সাঁকোটি।

নতুন ঘাটাবাড়ি গ্রামের বাসিন্দা কোরবান আলী ও সাহ আলম বলেন, খুকনি বাজার থেকে রিক্সা-ভ্যানে পণ্য আনতে গেলে আমাদের ১০ কিলোমিটার রাস্তা ঘুরে আসতে হয়, এতে করে অর্থ ও সময় দুটোই ক্ষতি হচ্ছে। সরকারের কাছে আমাদের একমাত্র চাওয়া এখানে যেন একটি স্থায়ী ব্রীজ হয়।

এ ব্যাপারে খুকনি ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মুল্লুক চাঁন বলেন, বিষয়টি স্থানীয় সংসদ সদস্যকে অবগত করা হলে তিনি খুব দ্রুত সময়ে ব্রীজ নির্মাণ করার প্রতিশ্রুতি দেন। ব্রীজটি নির্মাণ করা হলে এলাকাবাসীর আর কোন দুর্দশা থাকবে না।

প্রতিদিনের খবর পড়ুন আপনার ইমেইল থেকে
সিরাজগঞ্জ বিভাগের সর্বশেষ
ওপরে