২০শে ফেব্রুয়ারি, ২০১৯ ইং ৮ই ফাল্গুন, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ

samakalnew24
samakalnew24
শিরোনাম:
বরিশাল শেবাচিমে ময়লার স্তূপে মিললো ২২ অপরিণত শিশুর... স্বামীর লাশ ওয়ারড্রবে রেখে অফিস করলেন স্ত্রী! ঐক্যফ্রন্টকে গণভবনে প্রধানমন্ত্রীর দাওয়াত চাকরিতে প্রবেশের বয়স ৩৫ করার দাবিতে মানববন্ধন বন্য হাতির আক্রমণে নিহত জাসদ নেতা সাইমুন কনক

শীতে কেন নিয়মিত খেজুর খাওয়ার পরামর্শ দেন চিকিৎসকরা

  সমকাল নিউজ ২৪
শীতে কেন নিয়মিত খেজুর খাওয়ার পরামর্শ দেন চিকিৎসকরাশীতে কেন নিয়মিত খেজুর খাওয়ার পরামর্শ দেন চিকিৎসকরা

বছরের এই বিশেষ সময়ে শীতে পরিবেশে ক্ষতিকর জীবাণুর মাত্রা এতটাই বেড়ে যায় যে শরীরকে চাঙ্গা রাখা বেজায় মুশকিল হয়ে দাঁড়ায়। আর ঠিক এই কারণেই শীতকাল জুড়ে নিয়মিত খেজুর খাওয়ার পরামর্শ দেন চিকিৎসকরা। এতে থাকা ফাইবার, উপকারি তেল, ক্যালসিয়াম, সালফার, আয়রন, পটাশিয়াম, ফসফরাস, কপার, ভিটামিন বি৬, ভিটামিন কে এবং আরো অনেক খনিজ উপাদান, বিভিন্নভাবে শরীরের উপকার করে। নিয়মিত খেজুর খাওয়া শুরু করলে যে কেবল রোগ প্রতিরোধই নয় আরও একাধিক উপকার মেলে-

মস্তিষ্কের ক্ষমতা বাড়ে: একাধিক গবেষণায় একথা প্রমাণিত হয়ে গেছে যে খেজুরে উপস্থিত ডায়াটারি ফাইবার, পটাশিয়াম, অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট এবং আরও নানাবিধ উপকারি উপাদান শরীরে প্রবেশ করার পর ব্রেন সেলের ক্ষমতা বাড়িয়ে ব্রেন পাওয়ার বৃদ্ধি করে।

ত্বকের সৌন্দর্য বৃদ্ধি পায়: খেজুরে থাকা ভিটামিন সি এবং ডি শরীরে প্রবেশ করার পর এমন খেল দেখায় যে ত্বক টানাটান হয়ে ওঠে। সেই সঙ্গে বলিরেখাও গায়েব হতে শুরু করে। ফলে ত্বক প্রাণবন্ত এবং উজ্জ্বল হয়ে ওঠে। এই ফলটিতে উপস্থিত অ্যান্টি-এজিং প্রপাটিজ, ত্বকের বয়স ধরে রাখতেও নানাভাবে সাহায্য করে থাকে।

হার্টের ক্ষমতা বৃদ্ধি পায়: ডায়াটারি ফাইবারে সমৃদ্ধ হওয়ার কারণে নিয়মিত খেজুর খেলে শরীরে “এল ডি এল” বা খারাপ কোলেস্টেরলের মাত্রা কমতে শুরু করে। ফলে হঠাৎ করে হার্ট অ্যাটাক এবং স্ট্রোকের আশঙ্কা হ্রাস পায়। সেই সঙ্গে এতে উপস্থিত পটাশিয়াম আরও সব হার্টের রোগে আক্রান্ত হওয়ার সম্ভাবনাও কমায়।

খেজুর যেসব রোগের ঔষধ

খেজুর খুবি পুষ্টিকর একটি ফল। পুষ্টিমানে যেমন এটি সমৃদ্ধ তেমনি অসাধারণ এর ঔষধিগুণ। খেজুর সারা বছরই খাওয়া যেতে পারে। খেজুর খাওয়ার অভ্যাস তৈরি করা স্বাস্থ্যের জন্য উপকারিই হবে। আসুন জেনে নেয়া যাক খেজুরের পুষ্টিমান ও ঔষধিগুণ।

পুষ্টিমান: প্রতি ১০০ গ্রাম খেজুরে পাওয়া যায় ২৭৭ কিলোক্যালরি শক্তি। এতে শর্করা ৭৪.৯৭ গ্রাম, প্রোটিন ১.৮১ গ্রাম, ফ্যাট ০.১৫ গ্রাম, কোলেস্টরল ০.০০ গ্রাম, ফাইবার ৬.৭ গ্রাম রয়েছে। খেজুরে আছে প্রচুর পরিমাণ ভিটামিন এ, ভিটামিন সি, ভিটামিন কে, সোডিয়াম, কপার, পটাশিয়াম, ক্যালসিয়াম, ম্যাঙ্গানিজ, জিংক, ফসফরাস, থায়ামিন, নাইয়াসিন, রিবোফ্ল্যাভিন, বিটা-ক্যারোটিন সহ নানারকম স্বাস্থ্যউপকারি উপাদান। তবে শুকনা খেজুরে ভিটামিন সি নষ্ট হয়ে যায়।

ভেষজগুণ: খেজুর একটি আশ্চর্য খাদ্য উপকরণ। শুধু খেজুরগাছের ফল নয়, ফুল, পাতা, ফলের বীজ আর মূলের রয়েছে অসাধারণ ভেষজগুণ। নিয়মিত খেজুর খেলে সেরে যেতে পারে আপনার কঠিন সব অসুখ।

ক্যান্সার প্রতিরোধ: খেজুরে রয়েছে প্রচুর পুষ্টি আর এটি প্রাকৃতিক আঁশে সমৃদ্ধ। গবেষণায় দেখা গেছে খেজুরে আছে ক্যান্সার প্রতিরোধী উপাদান। অন্ত্রের ক্যান্সার নিরাময়ে খেজুর খুব উপকারি। আর নিয়মিত খেজুর খেলে ক্যান্সার হওয়ার সম্ভাবনা কমে যায়।

প্রসব বেদনা কমাতে: ইতিহাস থেকে জানা যায়, মুসলিম মহিয়সী মরিয়ম (আ.) যখন প্রসব বেদনায় কষ্ট পাচ্ছিলেন তখন তিনি একটি খেজুর গাছের নিচে বসেছিলেন। বাতাসে গাছ নড়ার ফলে যে খেজুর নিচে পড়েছিল তা খেয়ে তার ব্যথা উপশম হয়েছিল। বর্তমানেও সৌদি আরবের অধিবাসীরা প্রসব-পূর্ববর্তী ও পরবর্তী সময়ে এই উদাহরণটি অনুসরণ করে থাকেন। খেজুর জরায়ুর মাংসপেশির দ্রুত সংকোচন-প্রসারণ ঘটিয়ে তাড়াতাড়ি প্রসব হতে সাহায্য করে। এছাড়া, এ ফল প্রসব-পরবর্তী কোষ্ঠকাঠিন্য ও রক্তক্ষরণ কমিয়ে দেয়।

হৃদরোগের মহৌষধ: খেজুর হৃৎপিণ্ডের কার্যক্ষমতা বৃদ্ধি করে। রক্তপরিশোধনে ভূমিকা রাখে। হৃৎপিণ্ডের সংকোচন-প্রসারণ স্বাভাবিক রাখে। তাই হৃদরোগে আক্রান্ত রোগীর জন্য খেজুর অসাধারণ উপকারি। দৃষ্টিশক্তি বাড়ায়: খেজুরে আছে প্রচুর পরিমান ভিটামিন এ। ভিটামিন এ দৃষ্টিশক্তি বাড়াতে কার্যকরী ভূমিকা রাখে। রাতকানা রোগ প্রতিরোধেও খেজুর অত্যন্ত কার্যকর।

শক্তিদায়ক: রোজায় দীর্ঘসময় খালি পেটে থাকার কারণে দেহে প্রচুর গ্লুকোজের প্রয়োজন হয়। খেজুরে অনেক গ্লুকোজ থাকায় এ ঘাটতি পূরণ হয়। এটি রক্ত উৎপাদনকারী।

হাড়কে মজবুত করে: ক্যালসিয়াম হাড় গঠনে সহায়ক। আর খেজুরে আছে প্রচুর পরিমান ক্যালসিয়াম। যা হাড়কে মজবুত করে। হাড়ক্ষয় রোগের হাত থেকে রাখে নিরাপদ। এছাড়াও খেজুর নানারোগের ঔষধ; যেমন খেজুর হজমশক্তি বর্ধক, পাকস্থলীর ও যকৃতের শক্তি বাড়ায়, কামশক্তি বর্ধক, মুখে রুচি আনে, রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়ায় এবং পেটের গ্যাস, শ্লেষ্মা, কফ দূর করে, শুষ্ক কাশি এবং এজমায় উপকারি। পক্ষঘাত এবং সব ধরনের অঙ্গ-প্রত্যঙ্গ অবশকারী রোগের জন্য উপকারি। খেজুরের বিচি রোগ নিরাময়ে বিশেষ ভূমিকা রাখে। খেজুরবিচিচূর্ণ মাজন হিসেবে ব্যবহার করলে দাঁত পরিষ্কার হয়। খেজুর ফুলের পরাগরেণু পুরুষের বন্ধ্যাত্ব দূর করে শুক্রাণু বৃদ্ধি করে।

কোষ্ঠকাঠিন্য ও হজমের সমস্যা দূর করে: খেজুরে আছে এমন সব পুষ্টিগুণ, যা খাদ্য পরিপাকে সাহায্য করে এবং কোষ্ঠকাঠিন্য রোধ করে। ফাইবার সমৃদ্ধ খেজুর নিয়মিত খেলে দূর হয় হজমের সমস্যা।

স্মৃতিশক্তি বাড়ায়: মস্তিষ্কের ক্ষমতা বাড়ায় খেজুর। বিশেষ করে বয়স্কদের জন্য খেজুর খুবই উপকারী। এটি স্মৃতিশক্তি বাড়াতে সাহায্য করে। গ্লুকোজের পাশাপাশি প্রাকৃতিক চিনি পাওয়া যায় খেজুর থেকে যা এনার্জি বাড়ায়। খেজুরে থাকা ভিটামিন সি ও ডি ত্বক ভালো রাখে। এছাড়া খেজুর দৃষ্টিশক্তি বাড়িয়ে রাতকানা প্রতিরোধেও সহায়ক।

মায়ের বুকের দুধ: খেজুর বুকের দুধ খাওয়ানো মায়েদের জন্য সমৃদ্ধ এক খাবার, যা মায়ের দুধের পুষ্টিগুণ আরও বাড়িয়ে দেয় এবং শিশুর রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়ায়।এছাড়া ক্যালসিয়াম হাড় গঠনে সহায়ক। আর খেজুরে আছে প্রচুর পরিমাণ ক্যালসিয়াম, যা হাড়কে মজবুত করে।

সংক্রমণ রোধ: যকৃতের সংক্রমণে খেজুর উপকারী। এ ছাড়া গলাব্যথা এবং বিভিন্ন ধরনের জ্বর, সর্দি ও ঠাণ্ডায় বেশ কাজ দেয়। এছাড়া অন্ত্রের কৃমি ও ক্ষতিকারক পরজীবী প্রতিরোধে খেজুর বেশ সহায়ক। অন্ত্রে উপকারী ব্যাকটেরিয়া তৈরি করে।

শিশুদের রোগবালাই: খেজুর শিশুদের মাড়ি শক্ত করতে সাহায্য করে এবং কোনো কোনো ক্ষেত্রে ডায়রিয়াও প্রতিরোধ করে। তাই শুধু রমজান মাসে কেন, বছরজুড়েই খাদ্য তালিকায় থাকুক খেজুর।

খেজুর রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়ায়। পক্ষঘাত এবং সব ধরনের অঙ্গপ্রত্যঙ্গ অবশকারী রোগের জন্য খেজুর খুবই উপকারী।

ক্যানসারের বিরুদ্ধে যুদ্ধ: পেটের ভেতরের অঙ্গ-প্রত্যঙ্গের ক্যানসারের বিরুদ্ধে যুদ্ধ করে খেজুর। এছাড়াও মুখগহ্বরের ক্যান্সার রোধেও এই ফল বেশ কার্যকরী। গবেষণায় দেখা যায়, অ্যাবডোমিনাল ক্যান্সারের হাত থেকে রক্ষা করার ক্ষমতা রয়েছে খেজুরের।

দৃষ্টিশক্তি: খেজুর দৃষ্টিশক্তি উন্নত করতে বিশেষভাবে সহায়ক। প্রতিদিন খেজুর খাওয়ার অভ্যাস রাতকানা রোগ ভালো করতেও সাহায্য করে থাকে।

আয়রন: খেজুরে রয়েছে প্রচুর পরিমাণে আয়রন। প্রতিদিন খেজুর খাওয়ার অভ্যাস দেহের আয়রনের অভাব পূরণ করে এবং রক্তস্বল্পতা রোগের হাত থেকে রক্ষা করে। যাদের এই রক্তস্বল্পতার সমস্যা রয়েছে তাদের প্রতিদিন খেজুর খাওয়ার অভ্যাস করা উচিত।

প্রতিদিন খেজুর খাওয়া ভালো: গবেষণায় দেখা যায়, প্রতিদিন খেজুর খাওয়ার অভ্যাস আমাদের দেহের ইন্টেস্টাইনের ভেতর স্বাস্থ্যের জন্য ভালো প্যাথলজিক্যাল অর্গানিজমের উৎপাদন বৃদ্ধি করে যা ইন্টেস্টাইনের নানা সমস্যা দূর করে।

খেজুর কতটা খাবেন এবং কেন?

খেজুর বেশ প্রচলিত পুষ্টিকর একটি খাবার। খেজুরের গুণের বিষয়ে স্বাস্থ্য প্রতিদিন অনুষ্ঠানে কথা বলেছেন স্কয়ার হসপিটাল লি.-এর পুষ্টিবিদ নুজহাত মঞ্জুর। তিনি বলেন, ‘খেজুর অত্যন্ত ক্যালরিবহুল একটি খাবার। এটি বিভিন্ন ভিটামিন, মিনারেলস ও আঁশসমৃদ্ধ। এই ভিটামিনগুলোর মধ্যে রিবোফ্লাবিন, নায়াসিন, থায়মিন ইত্যাদি উল্লেখযোগ্য।’

পুষ্টিবিদ নুজহাত মঞ্জুর বলেন, ‘মিনারেলসগুলোর মধ্যে সোডিয়াম, পটাশিয়াম, ক্যালসিয়াম, ম্যাগনেসিয়াম উল্লেখযোগ্য। আমেরিকান ক্যানসার সোসাইটি আমাদের সবাইকে দৈনন্দিন ২০ থেকে ৩৫ গ্রাম আঁশজাতীয় খাবার গ্রহণের পরামর্শ দিয়েছে। এটি আমরা খেজুর থেকেই গ্রহণ করতে পারি। এ ছাড়া সারা দিনে একটি খেজুর খাওয়া আমাদের চোখের সুস্থতা দান করে।’

‘খেজুর উচ্চ মাত্রার সলিউবল ফাইবার সমৃদ্ধ। এটি প্রাকৃতিক ল্যাক্সাটিভ হিসেবে কাজ করে আমাদের বাউয়েল মুভমেন্টে সহায়তা করে এবং কোষ্ঠকাঠিন্য দূর করতে বিশেষ ভূমিকা পালন করে,’ বলেন তিনি।

খেজুরে প্রচুর পরিমাণ মিনারেলস রয়েছে জানিয়ে তিনি বলেন, ‘যেমন : সেলেনিয়াম, ম্যাঙ্গানিজ, জিংক ইত্যাদি থাকায়, এটি হাড়ের গঠন ও বৃদ্ধিতে সাহায্য করে। বিভিন্ন ধরনের হাড়ের অসুখ, অস্টিওপরোসিস থেকে রক্ষা করে। নিকোটিন নামক উপাদান খেজুরে থাকায় এটি আমাদের অন্ত্রের বিভিন্ন অসুখ থেকে রক্ষা করে।’

এ ছাড়া অ্যালার্জি দূর করতে খেজুরের জুড়ি নেই জানিয়ে তিনি বলেন, ‘খেজুরে আয়রন ছাড়াও আর একটি উপাদান রয়েছে, যেটি সচরাচর অন্যান্য খাবারে আমরা কম পাই। আর সেটি হলো অর্গানিক সালফার। এটি আমাদের বিভিন্ন সিজনাল অ্যালার্জি থেকে রক্ষা করে।’

পুষ্টিবিদ নুজহাত মঞ্জুর বলেন, ‘এ ছাড়া ওজন বাড়াতে খেজুরের জুড়ি নেই। একটি খেজুর থেকে আমরা ২৩ কিলোক্যালরি পেয়ে থাকি। ১০০ গ্রাম খেজুর থেকে আমরা ২৮২ কিলোক্যালরি পাই। এই থেকে আমরা বুঝতে পারি যে অল্প পরিমাণ খাবার থেকে যথেষ্ট ক্যালরি পেতে পারি। যাঁরা ওজন বাড়াতে চান বা পেশি বৃদ্ধি করতে চান, তাঁরা খেজুর খেতে পারেন।’

নুজহাত মঞ্জুর আরো বলেন, ‘খেজুরে রয়েছে প্রাকৃতিক সুগার। যেমন : গ্লুকোজ, ফ্রুকটোজ, সুক্রোজ। এটি কম সময়ে আমাদের শক্তি যোগাতে সাহায্য করে। এ ছাড়া ডায়রিয়া হলে খেজুর একটি বিশেষ ভূমিকা পালন করে। খেজুরে প্রচুর পটাশিয়াম রয়েছে। এটি আমাদের ডায়রিয়া-পরবর্তী সমস্যা দূর করতে বিশেষ ভূমিকা পালন করে।’

রমজান মাসে সারা দিনের ক্যালরির ঘাটতি খেজুর দিয়েই পূরণ করতে পারি জানিয়ে তিনি বলেন, ডায়াবেটিসের রোগীরাও অনায়াসে দুটো খেজুর খেতে পারেন। তাই দৈনন্দিন খাদ্যতালিকায় খেজুর রাখার পরামর্শ দেন তিনি।

খেজুর যেভাবে রাখবেন: তাজা খেজুর সরাসরি ফ্রিজে রাখা ভালো এবং কয়েকদিনের মধ্যেই তা খেয়ে ফেলা উচিত৷ তবে শুকনো খেজুর বা খোরমা কিছুদিন রেখে খাওয়া যায়৷ তবে লক্ষ্য রাখতে হবে তাতে যেন পোকা বা ফাঙ্গাস না হয়৷ এরকমটা হলে খেজুর সাথে সাথেই ফেলে দেওয়া উচিত৷

সাবধান! যাদের মাইগ্রেন বা প্রচণ্ড মাথা ব্যথার সমস্যা রয়েছে, তাদের খেজুর না খাওয়াই ভালো৷ কারণ ছোট মিষ্টি খেজুরে ‘টিরামিন’ বলে যে পদার্থটি রয়েছে, তা মাথা ব্যথা আরো বাড়িয়ে দিতে পারে৷ তাছাড়া আর যারা ডিপ্রেশনে ভুগছেন, তাদের জন্যও খেজুর খাওয়া ঠিক নয়৷ এক্ষেত্রে রক্তচাপ বেড়ে যাওয়ার আশঙ্কা থাকে৷

ত্বকের যত্নে খেজুরের ব্যবহার

স্বাস্থ্যকর ফল খেজুর। কিন্তু আপনি কি জানেন আপনার ত্বকের যত্নে ও খেজুর ব্যাপক ভুমিকা রাখে। এতে রয়েছে ভিটামিন ও আয়রন যা ত্বক উজ্জ্বল করার পাশাপাশি দূর করে ত্বকের দাগ। খেজুরে প্রচুর পরিমাণে ভিটামিন বি৫ রয়েছে, যা ত্বকের বলিরেখা ও রুক্ষতা দূর করে উজ্জ্বল করে এবং ত্বক টানটান করে। এতে ভিটামিন এ ও সি রয়েছে যা ত্বকের আর্দ্রতা ধরে রাখে এবং ত্বক নরম ও মসৃণ করে। তাই যাঁরা চেহারার বয়সের ছাপ দূর করে ত্বক উজ্জ্বল ও টানটান রাখতে চান তাঁরা নিয়মিত খেজুর ব্যবহার করুন।

আর আজ আমরা ত্বকের যত্নে খেজুরের ব্যবহার আপনাদের জানাবো যা আপনার সৌন্দর্য চর্চায় রাখবে ভুমিকা। চলুন দেরি না করে জেনে নেই রূপচর্চায় খেজুরের ব্যবহার-

উজ্জলতা বৃদ্ধি করতে: খেজুরে থাকা প্রোটিন ও এনজাইম ত্বকের উজ্জলতা বাড়ায়। কয়েকটি খেজুর বিচি ছাড়িয়ে দুধে ভিজিয়ে রাখুন সারারাত। পরদিন ব্লেন্ড করে পেস্ট তৈরি করে ত্বকে লাগান। কিছুক্ষণ পর ঠাণ্ডা পানি দিয়ে ধুয়ে ফেলুন। নিয়মিত ব্যবহার করুন।

নরম ও কোমল ত্বকের জন্য: খেজুরে রয়েছে ভিটামিন সি যা ত্বকের নমনীয়তা বাড়াতে সাহায্য করে। খেজুর ব্লেন্ড করে ১ চা চামচ চন্দন গুঁড়া ও ১ চা চামচ হলুদ গুঁড়া মেশান। সামান্য দুধ মিদিয়ে পেস্ট তৈরি করুন। মিশ্রণটি ত্বকে লাগিয়ে রেখে ঠাণ্ডা পানি দিয়ে ধুয়ে ফেলুন। ফলাফল আপনি উপলব্ধি করতে পারবেন যখন আপনি আপনার ত্বক স্পর্শ করবেন।

বলিরেখা দূর করতে: খেজুরে রয়েছে প্রচুর পরিমাণে অ্যান্টি-অক্সিডেন্ট যা বলিরেখা দূর করে টানটান রাখে ত্বক। কয়েকটি খেজুর ব্লেন্ড করে ১ চা চামচ দই ও মধু মিশিয়ে তৈরি করুন ফেসপ্যাক। মিশ্রণটি ত্বকে লাগিয়ে রাখুন। আধা ঘণ্টা পর ঠাণ্ডা পানি দিয়ে ধুয়ে ফেলুন। এভাবে কয়েকদিন লাগাতে হবে। তাহলে ফলাফল বুঝতে পারবেন।

ত্বকের নমনীয়তায়: খেজুর ত্বককে নমনীয় করে তোল। কারণ খেজুরে রয়েছে রয়েছে ভিটামিন সি। খেজুর ব্লেন্ড করে ১ চা চামচ চন্দন গুঁড়া ও ১ চা চামচ হলুদ গুঁড়া মেশান। সামান্য দুধ মিদিয়ে পেস্ট তৈরি করুন। মিশ্রণটি ত্বকে লাগিয়ে রেখে ঠাণ্ডা পানি দিয়ে ধুয়ে ফেলুন।

ত্বকের ফাটা দাগ দূর করতে: ত্বকের ফাটা দাগ দূর করবে খুব সহজেই দূর হয়ে খেজুরের সাহায্য। এজন্য খেজুর পেস্ট করে অ্যালোভেরা জেল মিশিয়ে ত্বকে লাগাতে হবে।

চুলের যত্নে খেজুর

চুল পড়া বন্ধ করতে: খেজুরে থাকা আয়রন ও ভিটামিন বন্ধ করতে পারে চুল পড়া। খেজুর ব্লেন্ড করে মাথার তালুতে লাগিয়ে রাখুন। কিছুক্ষণ পর শ্যাম্পু দিয়ে ধুয়ে ফেলুন চুল।

চুল ঘন করতে: খেজুরের তেল নিয়মিত ব্যবহার করলে চুল হয় ঘন, কালো।

Print Friendly, PDF & Email

প্রতিদিনের খবর পড়ুন আপনার ইমেইল থেকে
ওপরে