২৬শে মার্চ, ২০১৯ ইং ১২ই চৈত্র, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ

samakalnew24
samakalnew24
শিরোনাম:
শ্রীপুরে মাহান স্বাধীনতা ও জাতীয় দিবস পালিত ফুলবাড়ীতে অপরচুনিটি মার্কেটিং প্রা: লি: এর... আত্রাইয়ে মহান স্বাধীনতা ও জাতীয় দিবস পালিত সাংবাদিকের উপর ছাত্রলীগ নেতার হামলা বরগুনায়-যথাযোগ্য মর্যাদায় স্বাধীনতা দিবস উদযাপন

‘শুনেছি বোমাটা ঠিক জায়গায় পড়েনি, কেউ মারা যায়নি’

 আন্তর্জাতিক ডেস্কঃ সমকাল নিউজ ২৪
‘শুনেছি বোমাটা ঠিক জায়গায় পড়েনি, কেউ মারা যায়নি’

ভারত নিয়ন্ত্রিত কাশ্মীরে পুলওয়ামা ঘটনা ও পাকিস্তানের পরিস্থিতি নিয়ে ফের মোদি সরকারের বিরুদ্ধে কঠোর সমালোচনা করেছেন পশ্চিমবঙ্গে মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। তিনি বলেছেন ‘শুনেছি বোমাটা ঠিক জায়গায় পড়েনি, কেউ মারা যায়নি’।

কয়েকটি বিদেশি সংবাদপত্রের প্রতিবেদনের কথা উল্লেখ করে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় বলেন, ‘‘আমরা শুনেছি বোমাটা ঠিক জায়গায় পড়েনি, বোমাটা মিস হয়েছে এবং মানুষ মারা যায়নি। কেউ কেউ বলছেন, ১ জন মারা গিয়েছে।’

ভারতীয় বিমানহানায় ঠিক ক’জনের মৃত্যু হয়েছে? বোমাটা কি ঠিক জায়গায় পড়েছে? দিল্লি থেকে কলকাতায় ফিরে বৃহস্পতিবার এই প্রশ্ন তুলেছেন বাংলার মুখ্যমন্ত্রী। নির্বাচনের আগে পরিকল্পিত আস্ফালন চলছে— ইঙ্গিত মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের। গত পাঁচ বছরে পঠানকোট বা উরিতে জঙ্গি হামলার পরে এই রকম পদক্ষেপ কেন করেনি ভারত সরকার? প্রশ্ন তাঁর।

দেশের স্বার্থে যুদ্ধ করতে হলে তাঁর আপত্তি নেই— বলেন মমতা। তার সঙ্গেই বলেন, ‘‘রাজনীতির প্রয়োজনে, একটা নির্বাচন জেতার জন্য যুদ্ধ আমরা চাই না। আমরা শান্তি চাই।’’

২৫ ফেব্রুয়ারি রাতে দিল্লি গিয়েছিলেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। গতকাল অর্থাৎ বুধবার সংসদের অ্যানেক্স ভবনে বিরোধী দলগুলির বৈঠকে যোগ দেন তিনি। সেই বৈঠকে দেশের নিরাপত্তা পরিস্থিতি নিয়েই মূলত আলোচনা হয়। ভারত-পাক উত্তেজনাকে নরেন্দ্র মোদীরা রাজনৈতিক স্বার্থে ব্যবহার করার চেষ্টা করছে বলে সেই বৈঠকেই সরব হয়েছিলেন তৃণমূল চেয়ারপার্সন। বৈঠকে বিরোধী দলগুলির যৌথ বিবৃতিতে শাসক দলের সমালোচনা করা হয় এবং ভারত-পাক উত্তেজনাকে রাজনৈতিক স্বার্থে ব্যবহার করার চেষ্টার অভিযোগ করা হয়।

বৃহস্পতিবার কলকাতায় মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের সুর আরও চাঁছাছোলা। এ দিন ফের তিনি বলেছেন, ‘‘জওয়ানদের রক্ত নিয়ে রাজনীতি আমরা কেউ পছন্দ করি না।’’

নবান্নে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় এ দিন বলেছেন, ‘‘আমরা জানতে চাইতেই পারি, বিমানহানায় কতজন মারা গিয়েছে? কারা মারা গিয়েছে? কিছুই তো আমরা জানতে পারিনি।’

ভারতের বিমানহানায় পাকিস্তানে ঠিক কতজনের মৃত্যু হয়েছে, তা নিয়ে বিভ্রান্তি রয়েছে বলে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় দাবি করেন। ৩০০জন, ৩৫০ জন, ৪০০ জন— সংবাদমাধ্যমে এমন নানা সংখ্যা ঘোরাফেরা করছে বলে তিনি মন্তব্য করেন। টেলিভিশন চ্যানেলগুলিকে ‘একতরফা’ তথ্য ‘খাওয়ানো’ হয়েছে বলেও তিনি অভিযোগ করেন।

‘‘আমরা জানতে চাইতেই পারি, কতজন মারা গিয়েছে? বোমাটা কোথায় ফেলা হয়েছে? বোমাটা ঠিক জায়গায় পড়েছে কি না?’’ বলেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়।

Print Friendly, PDF & Email

প্রতিদিনের খবর পড়ুন আপনার ইমেইল থেকে
আন্তর্জাতিক বিভাগের আলোচিত
ওপরে