২১শে সেপ্টেম্বর, ২০১৯ ইং ৬ই আশ্বিন, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

samakalnew24
samakalnew24
শিরোনাম:
চাঁদপুরে ইলিশের আমদানী বাড়লেও দাম না কমায় হতাশ ক্রেতারা আত্রাইয়ে পানিতে ডুবে মাদ্রাসা ছাত্রীর মৃ’ত্যু; ১৯... পাইকগাছায় ভুয়া ঠিকানা দিয়ে বিয়ে করে দুই লক্ষ টাকা... বাল্যবিবাহ-ই’ভটিজিং-স’ন্ত্রাস ও মা’দক প্রতিরোধে... বরগুনায় ৬ষ্ট শ্রেনীর মাদরাসা ছাত্রীকে ধর্ষণের চেষ্টার ...

সড়ক প্রশস্তকরন কাজে ভূমি অধিগ্রহন না করেই জোর পূর্বক মাটি উত্তোলন

 বুলবুল (ষ্টাফ রিপোর্টার) : সমকালনিউজ২৪

ফরিদপুরের সালথা উপজেলার ৪২ নং ফুকরা মৌজা হতে ৪৮ নং যোগাড়দিয়া মৌজা হয়ে ৪৫ নং বাঙরাইল মৌজা পর্যন্ত পাকা রাস্তার দু-পাশের ফসলী জমি কেটে অবৈধভাবে মাটি উত্তোলন করে সড়ক প্রশস্তকরন কাজ করার অভিযোগ পাওয়া গেছে। সংশ্লিষ্ট ঠিকাদার ও রোডস এন্ড হাই ওয়েজের ইঞ্জিনিয়ার এর যোগ সাজসে জোর পূর্বক মাটি উত্তোলন করে রাস্তা নির্মান করা হয়েছে বলে অধভিযোগ করেছেন স্থানীয় ১৬৩ জনের মধ্যে ৮৭ জন কৃষক। ৭৬ জন কৃষক সীমিত ক্ষতিপূরন পেলেওে বাকি ৮৭ জনকে আইনের দ্বারস্থ হতে হয়েছে। এ সংক্রান্ত বিষয় নিয়ে জেলা প্রশাসক-ফরিদপুর, নির্বাহী প্রকৌশলী-সড়ক ও জনপথ বিভাগ ফরিদপুর সহ গনপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের মাননীয় প্রধান মন্ত্রী বরাবরে ৭ নভেম্বর ২০১৮ ইং তারিখে “ক্ষতিপূরন এর দাবি সম্বলিত আবেদন” করা হয়েছে। আবার মহা-পুলিশ পরিদর্শক মহোদয়ের বরাবরে ন্যায় বিচার পাওয়ার দাবি সহ বাদির নামে ষড়যন্ত্র মূলক মিথ্যা মামলা হতেপারে এমনই অভিযোগ জানিয়েছে বাদিপক্ষ।

জেলা প্রশাসক মহোদয় উপযুক্ত বিষয়ের প্রেক্ষিতে ব্যক্তি মালিকানাধীন জমি হতে অবৈধভাবে ভেকু দ্বারা মাটি কাটা সহ ফসলী জমির ব্যাপক ক্ষতিসাধন, গাছ কর্তন এর ক্ষেত্রে সঠিক মূল্য পাওয়ার বিষয়ে পুনরায় ৭ নভেম্বর ২০১৮ ইং পুনরায় আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহন করার অনুরোধ করে নির্বাহী প্রকেীশলী, সড়ক ও জনপথ বিভাগ-ফরিদপুর সহ উপজেলা নির্বাহী অফিসার-সালথা কে সরেজমিনে তদন্তপূর্বক প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহন ও গৃহীত ব্যবস্থা সম্পর্কে অত্র কার্যালয়ে অবহিত করার জন্য নির্দেশক্রমে অনুরোধ করেছেন। এমতাবস্থায় উপজেলা নির্বাহী অফিসার গন শুনানীর জন্য উভয় পক্ষকে নোটিশ দেয়া সত্বেও বিবাদীপক্ষ হাজির না হলে নির্বাহী অফিসার মহোদয় ১ মাসের সময় নিয়েছেন বিষয়টির সুষ্ঠ সুরাহা করার আশ^াসে।

এদিকে গত ১৯ ডিসেম্বর ক্ষতিগ্রস্থ কৃষকরা বাঙরাইল ব্রীজ নির্মান এলাকায় উত্তেজিত হয়ে নির্মানকাজে বাঁধা দিলে ঠিকাদার মো: শিলটন স্থানীয় সালথা থানার পুলিশ ম্যানেজ করে কাজ চালুকরে। পুলিশ সেখানে গিয়ে বাদিপক্ষের মো: দেলোয়ার ও নূর ইসলাম গংদের নামে চাঁদাবাজি মামলা দেবার হুমকি দেয়। বিষয়টি বাদিপক্ষ পুলিশ সুপার ফরিদপুরকে অবহিত করেছেন বলে জানা গেছে।

এ ব্যপারে সালথা উপজেলা নির্বাহী অফিসার বলেন, সার্ভেয়ারকে নিয়ে জরিপ করবো। আমি পুনরায় ঠিকাদারকে ডেকেছি-যদি ঠিকাদার পক্ষ হাজির না হয় তবে আইন মোতাবেক কার্যকরী ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে।

 

কৃষকদের অভিযোগের বিষয়ে দায়সারা গোছের জবাবদিয়ে ফরিদপুর সওজের নির্বাহী প্রকৌশলী জাহাঙ্গীর হোসেন বলেন, সড়ক প্রশস্তকরন কাজের জন্য সওজ বিভাগ জমি অধিগ্রহন করেছে ও ক্ষতিপূরন দিয়েছে কিন্ত মোট ১৬৩ জনের মধ্যে কতোজন ক্ষতিগ্রস্থ কৃষককে ক্ষতিপূরন দেওয়া হয়েছে তা বলেননি।
এখানে প্রকাশ থাকে যে, ফরিদপুর সওজ বিভাগ সূত্রে জানা গেছে ১১৮ কোটি টাকা ব্যয়ে দুইপাশের ৩ ফুট করে রাস্তা চওড়া করার উদ্যোগ নিয়ে কাজ শুরু করা হয়। যার প্রকল্প ব্যয়ধরা হয় ১১৮ কোটি টাকা এবং ২০১৬ সালের ফেব্রয়ারী মাসে কাজ শুরু হয়ে ২০১৯ সালের জুন মাস পর্যন্ত কাজ শেষ হবে।

প্রতিদিনের খবর পড়ুন আপনার ইমেইল থেকে
ফরিদপুর বিভাগের সর্বশেষ
ফরিদপুর বিভাগের আলোচিত
ওপরে