১৯শে নভেম্বর, ২০১৯ ইং ৪ঠা অগ্রহায়ণ, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

samakalnew24
samakalnew24
শিরোনাম:
নাঙ্গলকোটের দু’র্ধর্ষ চো’র ইসমাইলকে গ্রে’ফতার... আখাউড়ায় ৭দিন ধরে নি’খোজ মাদ্রাসা ছাত্র! সন্ধান চায়... ইবি রিপোর্টার্স ইউনিটির ১ম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উদযাপন ঝালকাঠিতে পেঁয়াজ সহ নিত্য প্রয়োজনীয় দ্রব্যমূল্য... সাংবাদিক রাহাদ সুমন বানারীপাড়া উপজেলায় ম্যানেজিং...

৫ বছরেও ভাঙ্গা সেতু মেরামত না করায় ৯ গ্রামের মানুষের চরম দুর্ভোগ

 হায়াতুজ্জামান মিরাজ,আমতলী, সমকালনিউজ২৪

বরগুনার আমতলীতে সেতু ভেঙ্গে যাওয়ার ৫ বছরেও মেরামত না করায় আঠারোগাছিয়া ইউনিয়নের ৯ গ্রামের মানুষের চলাচলে চরম দূর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে। প্রতিদিন ভাঙ্গা সেতু দিয়ে জীবনের ঝুঁকি নিয়ে পার হচ্ছেন শিক্ষার্থীসহ ঐ এলাকার মানুষ।

স্থানীয় সূত্রে জানাগেছে, বরগুনার আমতলী উপজেলার আঠারোগাছিয়া ইউনিয়নের সোনাখালী তাফালবাড়িয়া নদীর উপরে স্থাণীয় সরকার প্রকৌশলী বিভাগ ২০০০ সালে সেতু নির্মান করেন। গত ৫ বছর পূর্বে একটি ট্রলি গাড়ী মাটি কাটার এক্সেভেটর (বেকু) মেশিন নিয়ে সেতুটি পার হওয়ার সময় গাড়ীসহ মাঝখানের অংশ ভেঙ্গে নদীতে পড়ে যায়। এ সেতু দিয়ে চালিতাবুনিয়া, গেড়াবুনিয়া, আলগী, পূর্ব সোনাখালী, উত্তর সোনাখালী, গোডাঙ্গা, দড়িকাটা, পশ্চিম আঠারোগাছিয়াসহ ৯ গ্রামের মানুষ ও শিক্ষার্থীরা চলাচল করেন। এ সেতু পার হয়ে চালিতাবুনিয়া, গেড়াবুনিয়া, আলগী, গোডাঙ্গা, পূর্ব সোনাখালী গ্রামের লোকজনকে ইউনিয়ন পরিষদ কার্যালয় আসতে ও যেতে হয়। সোনাখালী স্কুল এন্ড কলেজ ও সোনাখালী সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রায় ৫ শতাধিক শিক্ষার্থীরা প্রতিদিন এ সেতু পার হয়ে বিদ্যালয়ে ক্লাশ করতে আসে।

সেতুটি ভেঙ্গে যাওয়ার সপ্তাহখানেক পরে ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যানের উদ্যোগে শিক্ষার্থী ও স্থানীয় জনসাধারণ চলাচলের জন্য সেতুর ভাঙ্গা অংশে কাঠ দিয়ে পাটাতন তৈরী করে দেন। বৃষ্টিতে পাটাতনের কাঠ ভিজে নষ্ঠ হয়ে যাওয়ার কারনে এখন সে কাঠের পাটাতন দিয়ে চলাচল ঝুকিপূর্ন হয়ে পড়েছে। সেতুর পাটাতন দীর্ঘদিন সংস্কার না করার কারনে এখন আরো অধিক ঝুঁকিপূর্ন হয়ে পড়েছে। এ ভাঙ্গা সেতু দিয়ে পার হয়ে কোমলমতি ছোট শিক্ষার্থীরা বিদ্যালয়ে যেতে ভয় পাচ্ছেন। বিশেষ করে বৃদ্ধ ও শিশুরা ঝুঁকি নিয়ে এ ভাঙ্গা সেতু পারাপার হচ্ছেন।

সোনাখালী স্কুল এন্ড কলেজের একাদ্বশ শ্রেণীর শিক্ষার্থী তুহিন, ফাতিমা, ৮ম শ্রেণীর শিক্ষার্থী সুখী, তামান্না, আবুল বাশার ও ৯ম শ্রেণীর শিক্ষার্থী শাওন জানান, প্রতিদিন আমাদের জীবনের ঝুঁকি নিয়ে এ ভাঙ্গা সেতু পার হয়ে বিদ্যালয়ে আসতে যেতে হয়।

সোনাখালী সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিশু শিক্ষার্থী তাছলিমা, নাহিদ, তানজিলা, সোহান, মহিউদ্দিন জানান, এই ভাঙ্গা সেতু পার হয়ে আমাদের স্কুলে আসতে ও যেতে অনেক ভয় লাগে।

সোনাখালী স্কুল এন্ড কলেজের প্রধান শিক্ষক মোঃ ইউসুফ আলী জানান, আমাদের বিদ্যালয়ের অধিকাংশ শিক্ষার্থী এ ভাঙ্গা সেতু পার হয়ে বিদ্যালয়ে ক্লাশ করতে আসে। দ্রুত সেতুটি মেরাতম করা দরকার। অন্যথায় যে কোন মুহুর্তে বড় কোন দূর্ঘটনা ঘটতে পারে।

আঠারোগাছিয়া ইউনিয়নের চেয়ারম্যান মোঃ হারুন অর রশিদ হাওলাদার জানান, গত ৫ বছর পর্যন্ত ভাঙ্গা সেতুটি মেরামত না করায় আমার ইউনিয়নের ৯টি গ্রামের লোকজন ইউনিয়ন পরিষদ ও ৩টি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থীরা জীবনের ঝুঁকি নিয়ে চলাচল করেন। দ্রুত সেতুটি মেরামত অথবা নতুন একটি সেতু নির্মান করা প্রয়োজন।

আমতলী উপজেলা প্রকৌশলী মোঃ নজরুল ইসলাম জানান, শীঘ্রই এখানে একটি পাঁকা সেতু নির্মান করা হবে।

 

‘বিদ্রঃ সমকালনিউজ২৪.কম একটি স্বাধীন অনলাইন পত্রিকা। সমকালনিউজ২৪.কম এর সাথে দৈনিক সমকাল এর কোন সম্পর্ক নেই।’

প্রতিদিনের খবর পড়ুন আপনার ইমেইল থেকে
বরগুনা বিভাগের আলোচিত
ওপরে